অভাগা দেশের বাসিন্দা

মত-মতান্তর

মাহবুব মাসুম, টোকিও (জাপান) থেকে | ১১ মে ২০১৭, বৃহস্পতিবার | সর্বশেষ আপডেট: ২:১৪
যে দেশে  ধর্ষণের বিচার নেই।সরকারের জবাবদিহিতা নেই। জনগণের ভোটাধিকার নেই। সাধারণ মানুষের ঘাম ঝড়ানো অর্জিত হাজার-হাজার কোটি টাকা ক্ষমতাশালী চক্রের বিদেশে পাচার। বন্দুকধারী সন্ত্রাসীরা সর্বোচ্চ বিদ্যাপীঠের শিক্ষক। ধর্ষকরাই যে দেশের হর্তকর্তা। সে দেশে বিচার না পেয়ে আত্মহত্যাই যেন স্বাভাবিক ঘটনা।
রাস্তায় বেড় হলে নিজের মানিব্যাগটা নিয়ে বাড়ি ফেরার নিশ্চয়তা নেই। শুধু তাই নয় নিজের ঘরে শান্তি মত ঘুমানোর কোন অবকাশ নেই। চারদিকে অবৈধ দাপটশালী-সন্ত্রীদের জয়জয়কার। অন্যদিকে সাধারণ খেটে খাওয়া মানুষদের অনিশ্চয়তা-হাহাকার বেড়েই চলছে। উন্নয়নের জোয়ারের নামে সর্বত্রই চলছে ক্ষমতাসীনদের হরিলুট। ঠেকাবে কে? সর্ষের মধ্যেই যে ভুত! দেশে প্রতিটি মানুষ আজ কোন না কোনভাবে ধর্ষিত! কেউ শারিরীক কেউ মানসিক কেউ অর্থিক। নিয়ন্ত্রণহীন পুরো সমাজ-রাষ্ট্র। যে যেভাবে পাচ্ছে লুটেপুটে খেয়ে সমস্ত অর্থ দেশের বাইরে পাঠিয়ে দিচ্ছে। ক্ষমতাসীনদের অজানা ভয়। না জানি কখন ক্ষমতা চলে যাবে। এক ফ্লাইটেই পাড়ি জমাবে বিদেশে। বাহ! কি সুন্দর আমার সোনার বাংলাদেশ! সত্যি অভাগা দেশের বাসিন্দা আমরা।

গত ৬ মে আনন্দ বাজার পত্রিকা লিখেছে। বাংলাদেশের রফতানি আয়ের ৮০ শতাংশই ছিদ্রপথে বিদেশ চলে যাচ্ছে। ঠেকাবে কে? সর্ষের মধ্যেই যে ভুত! পত্রিকাটি আরো লিখেছে এ কারণে ক্রমেই শীর্ণ হচ্ছে দেশের অর্থনীতি। এভাবে চলতে থাকলে মনে হয় গুটি কয়েক প্রভাবশালী ছাড়া সবাইকে পথে বসতে হবে। আমার মনে হয়, হওয়ার বাকিও নেই। শহর-গ্রাম-গঞ্জে এখন সাধারণ মানুষের শুধু হাহাকার। আনন্দবাজার পত্রিকায় লেখার শুরুটা দেখে দারুণ কষ্ট পেয়েছি। তাতে লেখা হয়েছে-“দরজা জানালা খোলা রেখে এসি চালালে কী লাভ। ঘর ঠান্ডা তো হবেই না। মাঝখান থেকে হু হু করে কারেন্ট পুড়বে। গরম থেকে রেহাই দূর অস্ত্। এমন খামখেয়ালি কাজ মানা যায় না। বাংলাদেশের বাণিজ্যে এমনটাই হচ্ছে। রফতানিতে যত আয় তার চেয়ে ব্যয় বেশি। আয়ের ৮০ শতাংশ ছিদ্রপথে বিদেশে চলে যাচ্ছে। ঠেকাবে কে! সর্ষের মধ্যেই যে ভূত! অভিযোগের আঙুল কাস্টমস আর ব্যাঙ্ক কর্তাদের দিকে। রফতানি সংস্থার মালিকদের সঙ্গে যোগসাজসে তাঁরা অর্থ নির্গমনের পথ চওড়া করছেন। টাকার বৈভবে আহ্লাদে আটখানা। প্রাপ্য রসদ থেকে বঞ্চিত হয়ে শীর্ণ হচ্ছে দেশের অর্থনীতি।” প্রথম আলোর খবরে দেখলাম ২০১৪ সালে এক বছরে ৭৩ হাজার কোটি টাকা পাচার। ২০০৫-১৪ অর্থবছরে পাচার হয়েছে ৬,০৬,৮৬৮ কোটি টাকা। এটাতো দেখা। অদেখা আরো কত হাজার কোটি কে জানে!এসব নিউজ দেখলে মনে হয় পুরো প্রিয় জন্মভূমিটাই আজ হরিলুটের মাল!

এদিকে সম্প্রতি গাজীপুরের শ্রীপুরে ধর্ষিত শিশু মেয়ের বিচার না পেয়ে চলন্ত ট্রেনের নিচে ঝাঁপ দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন বাবা-মেয়ে। কতটা অমানবিক। কতটা নির্মম ঘটনা। প্রভাবশালীদের কারণে পুলিশ মামলা নিতেও ঘরিমসি করেছে। এ ঘটনা শেষ হতে না হতেই বনানীতে গেল সপ্তাহে ঘটে গেল আরেক ধর্ষনের ন্যক্কারজনক ঘটনা। বনানীর রেইনট্রি হোটেলে জন্মদিনের পার্টিতে ডেকে নিয়ে সাফাত ও নাঈমরা দুই তরুণীকে ধর্ষণ করেন এবং অন্যরা ছিলেন সহযোগী।এ যেন সত্যি কোন অসভ্য নরকের কাহিনী। সুস্থ সমাজে এধরণের ঘটনা কখনেই ঘটতে পারে না। রাষ্ট্রও কেন যেন নীরব। চোর-ডাকাত-সন্ত্রাসী আর অসৎ মানুষে ভরেগেছে দেশটা। স্বাধীনতার স্বপ্ন এমনটা ছিলো না। তাহলে কেন এমন হলো আমাদের সোনার বাংলাদেশ। নৈতিকতা-জবাবদিহিতা নেই কোথাও। টাকা ছাড়া কেউ কথা বলে না। পুরো দেশটায় আজ নষ্টদের অধিকারে। বিচার চাওয়াটাও যেন অপরাধ। বাসায় শান্তি নেই। রাস্তায় শান্তি নেই। আইন-শৃঙ্খলাতো নেই। নিজের জীবনটা নিয়ে ঠিকমত ঘরে ফেরার নিশ্চয়তাও নেই। এমন অবস্থায় ক্ষমতাসীন দলের সাধারণ সম্পাদক ও দায়িত্বশীল মন্ত্রী যদি বলে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় না থাকলে টাকাপয়সা নিয়ে পালাতে হবে। তখন লুটপাটের পরিমানটা আরো বেড়ে যাওয়ার আশঙ্কা থাকে। ঘটছেও তাই। সবাই যার যার মতো করে আখের গোছাচ্ছে।

ধর্ম পালনেও শান্তি নেই। ধর্মের নামে ধর্মন্ধ কিছু বিভ্রান্ত মানুষ জঙ্গি-জঙ্গি খেলায় মেতে উঠেছে। নৈতিকতার এতটাই অধ:পতন যে এখন মসজিদে নামাজ পড়তে গেলেও জুতা চুরি হয়ে যাচ্ছে। সর্বত্রই অনিয়ম-অন্যায়-অভিচার। সাধারণের মানুষের মুক্তি মিলবে কি? দূর দেশে থেকে প্রতিনিয়ত নিজ দেশের স্বপ্ন দেখি। যেখানে থাকবে না চুরি-বাটপারি-ধর্ষণ-হত্যা। ২৪ ঘন্টা দরজা খুলে ঘুমালেও কেউ বিরক্ত করবে না। মানুষ মানুষকে সম্মন করবে। রাষ্ট্র চলবে তার নিজের গতিতে। জাপানের কোন এক কোনে বসে ঠিক জাপানের মতো এমন এক সোনার বাংলার স্বপ্ন দেখি। 
 
লেখক: প্রবাসী সাংবাদিক
masum86cu@yahoo.com

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

probashi rayhan

২০১৭-০৫-১৭ ০৩:৩১:১৭

no use - west of energy ! better thing something good about India , napal, srilanka - because Bangladesh and Pakistan are same stage - i don't know why they divide in 2 country in 1971 ??

Harun

২০১৭-০৫-১১ ২২:০৯:৫৩

খাইছে এত হাছা কথা কইলে তো দেশে ঢুকতে পারবেন না। আপনার পৈতিক ভিটা বা জানটাই চলে যেতে পারে।

আপনার মতামত দিন

বিদেশি হস্তক্ষেপ রোহিঙ্গা সমস্যার সমাধান হবে না : বেইজিং

ছাত্রলীগ নেতাসহ তিনজন চারদিনের রিমান্ডে

সোনাজয়ী শুটার হায়দার আলী আর নেই

মালয়েশিয়ায় ভূমি ধসে তিন বাংলাদেশি নিহত

নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত মুক্তামনি

খাল থেকে উদ্ধার হলো হৃদয়ের লাশ

রোহিঙ্গা সঙ্কট সমাধানকে কঠিন পর্যায়ে নিয়ে গেছে সরকার: খসরু

সঙ্কট সমাধানে প্রয়োজন পরিবর্তন: দুদু

চোখের চিকিৎসা করাতে লন্ডনে গেলেন প্রেসিডেন্ট

সন্ত্রাসী, চাঁদাবাজ আওয়ামী লীগের সদস্য হতে পারবে না

বৌদ্ধ ভিক্ষু সেজে কয়েক শত কিশোরীর সঙ্গে যৌন সম্পর্ক

৫০ বছরের মধ্যে জাপানে কানাডার প্রথম সাবমেরিন

ছিচকে চোর থেকে মাদক সম্রাট!

বোতলে ভরা চিঠি সমুদ্র ফিরিয়ে দিল ২৯ বছর পর!

কার সমালোচনা করলেন বুশ, ওবামা!

জুমের মাধ্যমে পেমেন্ট নিতে পারবেনা বাংলাদেশের ফ্রিল্যান্সাররা