ভারতের কেরালায় অন্তর্বাস খুলে পরীক্ষা দিতে হল এক ছাত্রীকে

রকমারি

| ১০ মে ২০১৭, বুধবার | সর্বশেষ আপডেট: ১২:১৫
ভারতে সদ্যসমাপ্ত জাতীয় মেডিকেল প্রবেশিকা পরীক্ষার দিন এক ছাত্রীকে অন্তর্বাস খুলে পরীক্ষা দিতে বাধ্য করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন তিনি।
রবিবার হওয়া ওই পরীক্ষায় প্রায় ১১ লক্ষ ছাত্রছাত্রী বসেছিল।
কানের দুল বা অন্য কোনও গয়না, পোশাকে বড় মাপের ধাতব বোতাম, পেন-পেন্সিল, জুতো, গাঢ় রঙের পোশাক, ফুল হাতা জামা - এসব ওই পরীক্ষার হলে নিষিদ্ধ। বিগত বছরগুলোতে মেডিকেল প্রবেশিকা পরীক্ষায় ব্যাপক হারে টোকাটুকির ঘটনার পর থেকে গত দুবছর এই নিষেধাজ্ঞা চালু হয়েছে।
আর ওই নিয়ম কার্যকর করতে গিয়ে এবছর সারা দেশ থেকেই অনেক অভিযোগ এসেছে। কাউকে ফুলহাতা জামা কেটে হাফ হাতা করে নিতে হয়েছে, কাউকে জুতো খুলে অভিভাবকের চপ্পল পায়ে দিয়ে যেতে হয়েছে।
কিন্তু দক্ষিণ ভারতের কেরালা রাজ্যে ওই ছাত্রীটি যে অভিযোগ করেছেন, সেটা মারাত্মক।
কান্নুর জেলার একটি কলেজে রবিবার পরীক্ষার সিট পড়েছিল ওই ছাত্রীর।পরে কয়েকজন সাংবাদিককে খবর দিয়ে পরীক্ষার হলের বাইরে দাঁড়িয়ে তিনি জানান যে যখন হলে ঢুকতে যাচ্ছিলেন, তখন মেটাল ডিটেক্টরে ধরা পড়ে যে তাঁর শরীরে কোনও ধাতব জিনিষ রয়েছে।
তিনি পরীক্ষা কেন্দ্রের তদারককারী কর্মীকে জানান যে ওটা তাঁর অন্তর্বাসের সঙ্গে থাকা ধাতব ক্লিপ।
তখনই তাকে অন্তর্বাস খুলে ফেলে ভেতরে যেতে বলা হয় বলে ওই ছাত্রীর অভিযোগ। সামনে কোনও টয়লেট না থাকায় এক নারী কর্মীর সামনেই তিনি তাড়াতাড়ি অন্তর্বাস খুলে নেন।
স্থানীয় সাংবাদিকদের ওই ছাত্রীর মা বলেছেন, "মেয়ে হলের ভেতরে যাওয়ার একটু পরেই দেখি বেরিয়ে এসেছে। তার অন্তর্বাস আমার হাতে দিয়ে আবারও সে হলে গেছে পরীক্ষা দিতে।"
ওই পরীক্ষা কেন্দ্রের সামনে উপস্থিত আরেক অভিভাবকও অভিযোগ করেছেন যে তাঁর মেয়ের জিনসের প্যান্টে বড় ধাতব বোতাম থাকায় একটা নতুন প্যান্ট কিনতে ছুটতে হয়েছিল তাকে।
অনেক পরীক্ষার্থী, যারা ফুলহাতা জামা পরে গিয়েছিলেন, তাদের দেখা গেছে তড়িঘড়ি কাঁচি দিয়ে জামার হাতা কেটে ফেলতে।
পরীক্ষার নিয়ামক, সেন্ট্রাল বোর্ড অফ সেকেন্ডারী এডুকেশন বা সিবিএসসি বলছে পরীক্ষার হলে কী কী নিয়ে যাওয়া যাবে, তার স্পষ্ট নির্দেশিকা দেওয়া হয়েছিল। শুধুমাত্র প্রয়োজনীয় পরিচয় পত্র ছাড়া আর কিছুই যাতে না রাখতে হয়, সেজন্য পেন-পেন্সিলও কর্তৃপক্ষই সরবরাহ করে।
কিন্তু কেরালার রাজনৈতিক নেতারা বলছেন সেই নিয়ম কার্যকর করতে গিয়ে একটি মেয়েকে অন্তর্বাস খুলে ফেলতে বলা হবে কেন?
রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী পিনারাই বিজয়ন বলছেন, এটা মানবাধিকার লঙ্ঘনের সামিল।
সরব হয়েছে রাজ্য মানবাধিকার কমিশনও। তারা সিবিএসসি-র কাছে কৈফিয়ত তলব করেছে।
স্কুল কর্তৃপক্ষ অবশ্য বলছে, ওই ছাত্রীটির ক্ষেত্রে কোনওরকম জোর করা হয় নি। মেটাল ডিকেক্টরের বীপ শব্দ শুনে সে নিজেই অন্তর্বাস খুলে ফেলে।
১০৩টি শহরের ১৯০০ কেন্দ্রে এই পরীক্ষা নেওয়া হয়েছে এবছর।
বহু জায়গা থেকেই অভিযোগ উঠেছে পোশাক-আশাক নিয়ে কড়াকড়ির।

সুত্রঃ বিবিসি বাংলা
এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

মধুপুরে রোহিঙ্গা সন্দেহে যুবক আটক

ম্যানচেস্টারে এবার মসজিদের বাইরে একজন ডাক্তারকে কুপিয়েছে দুর্বৃত্তরা

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে কলেরা সংক্রমণের আশঙ্কা বিশ্ব সাস্থ্য সংস্থার

স্বামীকে বেঁধে গৃহবধূকে ধর্ষণ, আটক ১

২৮ ‘হিন্দু’র খুনী কে!

ভেঙ্গে গেল স্পর্শিয়ার সংসার

নির্বাচিত মারকেল, ইসলামবিরোধী এএফডির উত্থান, কঠিন চ্যালেঞ্জ সামনে

মালিতে নিহত সার্জেন্ট আলতাফের বাড়িতে শোকের মাতম

বাংলাদেশী শান্তিরক্ষী নিহত হওয়ায় জাতিসংঘ মহাসচিবের শোক, নিন্দা

যুক্তরাষ্ট্রে ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞায় আরও তিন দেশ

‘যেভাবে ভাবি সেভাবে এখনো ক্যামেরার সামনে অভিনয় করতে পারিনি’

​ জার্মানির নির্বাচনে শেষ হাসি মার্কেলেরই

রোহিঙ্গাদের জন্য বাংলাদেশের ব্যাপক আন্তর্জাতিক সহযোগিতা প্রয়োজন: ইউএনএইচআরসি

মার্কেল?

ফের সীমান্তে রোহিঙ্গা স্রোত

ট্রাকচালক থেকে সপরিবারে ইয়াবা ব্যবসায়ী