মৌলভীবাজারে অপ্রতুল ত্রাণ

দেশ বিদেশ

স্টাফ রিপোর্টার, মৌলভীবাজার থেকে | ১ মে ২০১৭, সোমবার
বোরো ফসল ও মাছ হারানোর পর হাকালুকিসহ জেলার সবক’টি হাওর পাড়ের মানুষ এখন চরম অসহায়। সর্বত্র চলছে হাহাকার। হাওর এলাকায় বছরে একবার ফসল হয় আর এ ফসল তোলে পুরো বছরের খাবার ও অন্যান্য খরচ নির্বাহ করেন কৃষক। কিন্তু এবছর চৈত্র মাসে কয়েক দিনের টানা বর্ষণ ও উজানের পাহাড়ি ঢলে কৃষক ও জেলে পরিবারের সোনালী ফসলকে ঘিরে দেখা স্বপ্নের মৃত্যু ঘটেছে। খাওয়া- বাঁচার সব উপকরণ হারিয়ে এখন ঘরে ঘরে আহাজারি আর আর্তনাদ। তাদের সহযোগিতায় এগিয়ে এসেছে সরকার।
তবে যে ত্রাণ সহযোগিতা দেয়া হচ্ছে তা ক্ষতিগ্রস্তদের অনুপাতে একেবারে অপ্রতুল।  মৌলভীবাজার জেলার ৭টি উপজেলার লোকসান ও ক্ষয়ক্ষতি নিরুপণ করছে জেলা প্রশাসন। সংশ্লিষ্ট বিভাগগুলোর সহযোগিতায় প্রতিদিনই হালনাগাদ হচ্ছে ক্ষতিগ্রস্তদের পরিসংখ্যান। জেলা প্রশাসকের কার্যালয় সূত্রে জানা যায় এ পর্যন্ত জেলার ৬৭টি ইউনিয়নের মধ্যে কমবেশি ক্ষতিগ্রস্ত ইউনিয়নের সংখ্যা ৬০টি। সম্পূর্ণ ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের সংখ্যা ২৪,৮৭১টি ও আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত ৪৯,৭২৩টি পরিবার। সম্পূর্ণ ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের সংখ্যা ১,২১,৬০৬ জন ও আংশিক ২,৫৮,৩৪৮ জন। মোট ক্ষতিগ্রস্তের সংখ্যা ৩ লাখ ৭৯ হাজার ৯শ’ ৫৪ জন।  সম্পূর্ণ ভাবে ক্ষতিগ্রস্ত ঘরবাড়ি ৮৯১টি ও আংশিক ৫,৯১০টি। ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ১৮,৮৯৮ হেক্টর জমির  বোরো ফসল। মাছ মরেছে ২৫ টন। তবে  হাওরে  পোষা হাঁস, গবাদিপশু ও অন্যান্য জলজ প্রাণী মারা যাওয়ার পরিসংখ্যান এখনো নিরুপণ হয়নি। জেলা প্রশাসন জানিয়েছে, ফসল হারানো দুর্গত মানুষদের জন্য জিআর ২০০ টন চাল ও নগদ ১০ লাখ টাকা বরাদ্দ এসেছে। যা ইতিমধ্যে বিতরণ করা হয়েছে। এছাড়া ৩ মাস ৮ দিনের খাদ্য সহায়তা কর্মসূচির অংশ হিসেবে ১ হাজার ভিজিএফ কার্ডের অনুকূলে ৯৮ টন চাল ও ১৫ লাখ টাকা বরাদ্দ এসেছে। এই ১ হাজার কৃষক মাসে পাবেন ৩০ কেজি চাল আর নগদ ৫০০ টাকা। নতুন করে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকার জন্য বরাদ্দ চাওয়া হয়েছে ৫০০ টন চাল ও ১০ লাখ টাকা, ১০০০ বান্ডিল ঢেউটিন সহ ও আনুপাতিক হারে ক্ষতিগ্রস্ত ইউনিয়নে ওএমএস চালের অনুমোদন চেয়ে মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে। এদিকে জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে হাকালুকি হাওরের ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের মধ্যে ত্রাণ বিতরণ করা হলেও অনেকে এখনো ত্রাণ পাননি।
তবে হাওর তীরে ভুকশিমইল ইউনিয়নসহ ক্ষতিগ্রস্ত ইউনিয়ন চেয়ারম্যানগণ জানান এ পর্যন্ত সরকারি তরফে যে সহযোগিতা এসেছে তা ক্ষতিগ্রস্তদের তুলনায় একেবারেই কম। ক্ষতিগ্রস্ত এলাকায় দ্রুত পর্যাপ্ত ত্রাণ সহযোগিতা বাড়ানোর দাবি স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও সব হারানো কৃষকদের। তাছাড়া সরকারের পাশাপাশি বিভিন্ন সংগঠন ও ধনাঢ্য ব্যক্তিদের তাদের সহযোগিতায় এগিয়ে আসারও আহ্বান জানিয়েছেন দুর্ভোগগ্রস্ত হাওর পাড়ের বাসিন্দারা।


 

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

শিক্ষিকা-ছাত্রের যৌন সম্পর্ক, অতঃপর...

রাবি অপহৃত ছাত্রী ঢাকায় উদ্ধার

‘সমাবেশে জোর করে লোক আনা হয়েছে’

যুদ্ধাপরাধের ২৯তম রায়ের আপেক্ষা

ঈদে মিলাদুন্নবী নিয়ে চাঁদ দেখা কমিটির সভা কাল

সিরিয়া ইস্যুতে আবারো রাশিয়ার ভেটো

হারিরির সৌদি আরব ত্যাগ

ঢাকায় চীন-বাংলাদেশ বৈঠক শুরু

প্যারাডাইস পেপারসে শিল্পপতি মিন্টু ও তার পরিবারের নাম

ঝুঁকিপূর্ণ উপায়ে আসছে রোহিঙ্গারা, ইউএনএইচসিআরের উদ্বেগ

নৌকায় বসেই ভাষণ দেবেন শেখ হাসিনা

ইবিতে ছাত্রদল-ছাত্রলীগ সংঘর্ষ-ভাংচুর

নিজ দলে বিদ্রোহ, আজ মুগাবের পদত্যাগ দাবিতে বিক্ষোভ

ছাত্রদল সাধারণ সম্পাদক গ্রেপ্তার

ইরাক ও ইসরায়েল সুন্দরী একসঙ্গে সেলফি তুলে বিপাকে

‘বিএনপিকে দূরে রেখে নির্বাচনের ষড়যন্ত্র করা হচ্ছে’