চৌদ্দগ্রাম উপজেলা প্রশাসনের সরকারি ওয়েব সাইটে আপডেট নেই

বাংলারজমিন

চৌদ্দগ্রাম প্রতিনিধি | ২২ এপ্রিল ২০১৭, শনিবার | সর্বশেষ আপডেট: ৯:৩৫
 কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামে জনগণের ভোটে নির্বাচিত এবং প্রজ্ঞাপন জারি হলেও সরকারি ওয়েবসাইটে নেই ২০১৬ সালের ৭ই মে নির্বাচিত ইউপি চেয়ারম্যান ও ২০১৫ সালের ৩০শে ডিসেম্বর নির্বাচিত পৌর কাউন্সিলরদের নাম। আছে এর পাঁচ বছর আগে নির্বাচিত ইউপি চেয়ারম্যান ও পৌর কাউন্সিলরদের নাম। এছাড়া ওয়েব সাইটে নেই সম্প্রতি উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে উপনির্বাচনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় বিজয়ী এবিএমএ বাহারের নাম। চৌদ্দগ্রামের এমপি ও রেলমন্ত্রী মুজিবুল হক, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান রাশেদা আখতার ও পৌর মেয়র মিজানুর রহমানের তথ্য ঠিক থাকলেও তাদের অফিসিয়াল ছবি দেয়া হয়নি। জনপ্রতিনিধিদের তালিকায় নাম নেই দুইবারের নির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যান আবদুস সোবহান ভূঁইয়া হাসানের নাম। এ নিয়ে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মী ও প্রবাসী চৌদ্দগ্রামবাসীরা ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। প্রবাসীরা অভিযোগ করেন, তথ্য-প্রযুক্তির এই যুগেও চৌদ্দগ্রাম উপজেলা প্রশাসনের সরকারি ওয়েব সাইটে তথ্যের আপডেট নেই। এজন্য প্রবাসীরা তাদের বিভিন্ন সমস্যায় স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের মোবাইল নাম্বার সংগ্রহ করতে ভোগান্তি পোহাতে হয়।  জানা গেছে, ২০১৬ সালের ৭ মে শনিবার চৌদ্দগ্রামের ১১ ইউপিতে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। নির্বাচনে ১১ ইউপিতেই আওয়ামী লীগ প্রার্থীরা নির্বাচিত হয়েছেন। এর আগে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় অন্য দুই ইউপিতে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। ওই নির্বাচনে সরকারিভাবে ঘোষণা করা চেয়ারম্যানরা হলেন; ১নং কাশিনগর ইউনিয়নে মো. মোশারেফ হোসেন, ২নং উজিরপুর ইউনিয়নে জয়নাল আবেদীন খোরশেদ, ৩নং কালিকাপুরে মাহবুব হোসেন মজুমদার, ৪নং শ্রীপুর ইউনিয়নে শাহজালাল মজুমদার, ৫নং শুভপুর ইউনিয়নে খলিলুর রহমান মজুমদার, ৬নং ঘোলপাশা ইউনিয়নে কাজী জাফর আহাম্মদ, ৮নং মুন্সিরহাট ইউনিয়নে মাহফুজ আলম, ৯নং কনকাপৈত ইউনিয়নে জাফর ইকবাল, ১০নং বাতিসা ইউনিয়নে জাহিদ হোসেন টিপু, ১১নং চিওড়া ইউনিয়নে একরামুল হক, ১২নং গুণবতী ইউনিয়নে সৈয়দ আহম্মদ খোকন, ১৩নং জগন্নাথদীঘি ইউনিয়নে জানে আলম ভূঁইয়া, ১৪নং আলকরা ইউনিয়নে গোলাম ফারুক হেলাল। কিন্তু চৌদ্দগ্রাম উপজেলা প্রশাসনের ওয়েব সাইটে চেয়ারম্যান হিসেবে তাদের নাম নেই। সরকারি ওয়েব সাইটে চেয়ারম্যান হিসেবে নাম রয়েছে ২০১১ সালের ১৫ই জুন অনুষ্ঠিত ইউপি নির্বাচনে বিজয়ী চেয়ারম্যানদের। এরা হলেন; উজিরপুর ইউনিয়নে মমিনুল ইসলাম, কনকাপৈত ইউনিয়নে বেলাল হোসনে, কালিকাপুর ইউনিয়নে সালাহ উদ্দিন মজুমদার লিঙ্কন, গুণবতী ইউনিয়নের আনোয়ার হোসেন, ঘোলপাশা ইউনিয়নে ওয়াজী উল্যাহ ভূঁইয়া খোকন, চিওড়া ইউনিয়নের আবু তাহের, মুন্সিরহাট ইউনিয়নে মাহফুজ আলম, শুভপুর ইউনিয়নে আলমগীর কবির মজুমদারের নাম উল্লেখ রয়েছে। এরমধ্যে শুধু সংশোধন করা হয়েছে ৯নং কনকাপৈত ইউপি চেয়ারম্যান ইকবাল হোসেন মজুমদারের পরিবর্তে পুর্ণনির্বাচনে বিজয়ী বেলাল হোসেনের নাম। আবার দেখা গেছে, ওয়েব সাইটে ইউপি চেয়ারম্যানদের মধ্যে শুধু বেলাল হোসেনের ছবি রয়েছে। আর কারো ছবি নেই। চৌদ্দগ্রাম উপজেলা প্রশাসনের সরকারি ওয়েব সাইট (লিঙ্ক : http://Chauddagram.comilla.gov.bd/leader-জনপ্রতিনিধিদের-তালিকা) ভিজিট করলে এমনটিই দেখা যাচ্ছে। একই ঘটনা ঘটেছে চৌদ্দগ্রাম পৌরসভার নির্বাচিত কাউন্সিলরদের ক্ষেত্রে। সরকারি ওয়েব সাইট (লিঙ্ক : http://Chauddagram.comilla.gov.bd/node/352331 কাউন্সিলরগন) ভিজিট করলে দেখা যাচ্ছে সর্বশেষ ২০১৫ সালের ৩০শে ডিসেম্বর বুধবার চৌদ্দগ্রাম পৌরসভার নির্বাচনে বিজয়ী কাউন্সিলদের নাম নেই।

ওই নির্বাচনে বিজয়ী কাউন্সিলররা হলেন; ১নং ওয়ার্ড (নবগ্রাম-সোনাকাটিয়া) মোখলেছ মিয়া, ২নং ওয়ার্ড (পাঁচরা-কমলপুর) সাইফুল ইসলাম পাটোয়ারী, ৩নং ওয়ার্ড (শ্রীপুর) ইউনুস, ৪নং ওয়ার্ড (কিং শ্রীপুর ও পূর্ব চাঁন্দিশকরা) আবদুল হালিম, ৫নং ওয়ার্ড (মধ্যম ও পশ্চিম চাঁন্দিশকরা) ফরিদ উদ্দিন বাদশা, ৬নং ওয়ার্ড (ফালগুনকরা, পশ্চিম ধনমুড়ি ও চাটিতলা) মফিজুর রহমান, ৭নং ওয়ার্ড (জয়ন্তিনগর, চন্ডিপুর, লক্ষীপুর, সেনেরখিল, বৈদ্দেরখিল ও পূর্ব ধনমুড়ি) সাইফুল ইসলাম শাহীন, ৮নং ওয়ার্ডে কাজী বাবুল(বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায়), ৯নং ওয়ার্ড (নাটাপাড়া, নোয়াপাড়া, রামচন্দ্রপুর, ঘিলাতলী ও বালুজুড়ি) কাজী নজরুল ইসলাম কামাল, সংরক্ষিত ১নং মহিলা ওয়ার্ডে নাছিমা খানম মজুমদার, সংরক্ষিত ২নং ওয়ার্ডে ফিরোজা বেগম(বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায়), সংরক্ষিত ৩নং মহিলা ওয়ার্ডে আমেনা বেগম। এরমধ্যে শুধু দ্বিতীয়বার নির্বাচিত ১নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মোখলেছ মিয়া, ৬নং ওয়ার্ডের মফিজুর রহমান ও ৮নং ওয়ার্ডে কাজী বাবুলের নাম রয়েছে। বাকিদের নাম ওয়েব সাইটে দেখা যাচ্ছে না। সাইটে স্থান পেয়েছে ২০১১ সালের ১৮ই জানুয়ারি মঙ্গলবার অনুষ্ঠিত নির্বাচনে বিজয়ী কাউন্সিরদের নাম। এরা হচ্ছেন; ১নং ওয়ার্ডে মোখলেছ মিয়া, ২নং ওয়ার্ডে সেলিম মিয়া, ৩নং ওয়ার্ডে হারুনুর রশিদ মজুমদার, ৪নং ওয়ার্ডে ভিপি জাহাঙ্গীর, ৫নং ওয়ার্ডে ইমাম হোসেন পাটোয়ারী (এনাম), ৬নং ওয়ার্ডে মফিজুর রহমান, ৭নং আবদুল মতিন মজুমদার, ৮নং ওয়ার্ডে কাজী বাবুল, ৯নং আবদুর রাজ্জাক। সংরক্ষিত ১, ২, ৩নং মহিলা ওয়ার্ডে মরিয়ম আক্তার, ৪, ৫, ৬নং ওয়ার্ডে ফিরোজা বেগম, ৭, ৮, ৯নং ওয়ার্ডে লাকী বেগম।
এ ব্যাপারে চৌদ্দগ্রাম পৌরসভার প্যানেল মেয়র ও পৌরসভা স্বেচ্ছাসেবকলীগের সভাপতি কাজী নজরুল ইসলাম কামাল বলেন, বর্তমান ডিজিটাল যুগে প্রশাসনের এটা উদাসীনতা। তিনি শিগগিরই পৌরসভা ও ইউপি সংক্রান্ত বিভিন্ন তথ্য আপডেটের দাবি জানান।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ সাঈদুর রহমান বলেন, ‘এ সম্পর্কে আমি কিছুই জানি না। টেকনেশিয়ান থেকে জেনে নিই- কেন আপডেট তথ্য দেয়নি’।



 
এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন