খুলনায় মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় গ্রেপ্তার ৯

দেশ বিদেশ

স্টাফ রিপোর্টার, খুলনা থেকে | ২২ এপ্রিল ২০১৭, শনিবার
মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় খুলনার ডুমুরিয়া থানা ও ঢাকা থেকে ৯ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এদের মধ্যে ৭ জনকে খুলনা থেকে ও ২ জনকে ঢাকা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এ মামলায় মোট ১১ জন আসামি রয়েছে। বৃহস্পতিবার রাত থেকে শুক্রবার সকাল পর্যন্ত খুলনা ও ঢাকায় অভিযান চালিয়ে পুলিশ তাদের গ্রেপ্তার করে। ডুমুরিয়া থানার মামলা নং-৭৫, মামলার তারিখ ১/১/১৭। গ্রেপ্তারকৃতরা হলো আব্দুর রহিম (৬৮), শামসুর রহমান (৭৫), জাহান আলী বিশ্বাস (৬৭), মো. শাজাহান (৬৮), করিম শেখ (৬৮), আবু বকর (৬৭ ) ও রওশন আলী গাজি (৭২)।
এদের সকলের বাড়ি ডুমুরিয়া উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে। ঢাকায় গ্রেপ্তারকৃতরা হলো নাজের আলী ফকির ও সোহরাব হোসেন সরদার। মামলার আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের তদন্ত কর্মকর্তা হেলাল উদ্দিন বলেন, গ্রেপ্তারকৃত আসামিরা ১৯৭১ সালের ১৮ই মে খুলনার ডুমুরিয়া উপজেলার খর্ণিয়া গ্রাম থেকে মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে থাকা আনু মোল্লা ওরফে আজিজ শেখ, মজিদ বিশ্বাস, সাহেব আলী, শামসুল মোল্লা, ইমাম শেখ, আমজাদ সরদার, আব্দুল লতিফ মোড়ল ও কাওসার শেখসহ নয়জনকে ধরে নির্যাতন করতে করতে রানাই এলাকার বকুলতলা এলাকায় নিয়ে যায়। সেখানে তাদের গুলি করে হত্যার পর লাশ নদীতে ফেলে দেয়। সেখান থেকে জীবন নিয়ে একজন পালিয়ে আসতে সক্ষম হন। এ ঘটনায় খর্ণিয়া গ্রামের লিয়াকত আলী গাজী বাদি হয়ে ডুমুরিয়া থানায় মামলা দায়ের করেন। মামলার তদন্তে প্রাথমিকভাবে ঘটনার সত্যতা মিলেছে।
তদন্ত কর্মকর্তা আরো বলেন, হত্যা মামলার তদন্তকালে হত্যাকারীদের বিরুদ্ধে আরো ৪/৫টি অভিযোগ পাওয়া গেছে। যা তদন্ত করা হচ্ছে।
খুলনা জেলা গোয়েন্দা পুলিশের ইনচার্জ শিকদার আক্কাস আলী জানান, আন্তর্জাতিক অপরাধ দমন ট্রাইব্যুনাল আইন ১৯৭৩-এর ৮ ধারার তদন্ত সংস্কার কমপ্লেইন রেজিস্টার ক্রম নং-৭৫, ১ জানুয়ারি ২০১৭-এ এদের নাম রয়েছে। যা আন্তর্জাতিক অপরাধ দমন ট্রাইব্যুনালের অতিরিক্ত এসপি হেলাল উদ্দিন তদন্ত করছেন। তারই রিকুইজিশনের ভিত্তিতে গোয়েন্দা পুলিশ অভিযান চালিয়ে এদের গ্রেপ্তার করে। অভিযানে খুলনার ডুমুরিয়া, ফুলতলা ও মহানগর পুলিশ সহযোগিতা করে। গোয়েন্দা পুলিশের নেতৃত্বে ৫টি টিম পৃথকভাবে অভিযান পরিচালনা করে।
তিনি আরো জানান, গ্রেপ্তারের পর তাদের জেলা গোয়েন্দা পুলিশের কার্যালয়ে আনা হয়। এখান থেকে প্রয়োজনীয় আইনি প্রক্রিয়া সম্পন্ন করে শুক্রবার দুপুরে সবাইকে খুলনার আদালতে সোপর্দ করা হয়। গ্রেপ্তারকৃতদের নামে থানায় নাশকতার অভিযোগেও মামলা রয়েছে।
তিনি বলেন, বৃহস্পতিবার রাত থেকে শুক্রবার সকাল পর্যন্ত ডুমুরিয়ার খর্ণিয়া ও রানাই এবং মহানগরীর গল্লামারী এলাকা থেকে খুলনার ৭ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এই মামলায় নাজের আলী ফকির ও সোহরাব হোসেন সরদারকে ঢাকা থেকে একই সময়ের মধ্যে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। মামলায় মোট ১১ জন আসামির মধ্যে ৯ জনকে গ্রেপ্তার করা হলো।

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

‘অনুপ্রবেশকারীদের ৫০০০ পাওয়ারের বাতি জ্বালিয়েও খুঁজে পাওয়া যাবে না’

‘ক্ষমতা থাকলে সরকারকে টেনে-হিচড়ে নামান’

আগামীকাল আদালতে যাবেন খালেদা জিয়া

‘তদন্তের স্বার্থেই তনুর পরিবারকে ডাকা হয়েছে’

জিম্বাবুয়ের নতুন প্রেসিডেন্ট হচ্ছেন ‘কুমির মানুষ’

আশ্রয়শিবিরে সংক্রমণযুক্ত পানির বিষয়ে ইউনিসেফের সতর্কতা

চীন, উত্তর কোরিয়ার ১৩ প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রের অবরোধ

রোহিঙ্গা সঙ্কট: উচ্চ আশা নিয়ে বাংলাদেশ-মিয়ানমার বৈঠক শুরু

ঘোড়ামারা আজিজসহ ছয় জনের মৃত্যুদণ্ড

নিবিড় পর্যবেক্ষণে মহিউদ্দিন চৌধুরী

হাফ ডজন গোলে দ্বিতীয় রাউন্ডে রিয়াল মাদ্রিদ

আফ্রিকার স্বৈরাচারদের মেরুদণ্ডে শিহরণ

সাভার আর মানিকগঞ্জে মাটির নিচে পানির 'খনি'

বরুশিয়ার আশা শেষ করলো টটেনহ্যাম

রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে চীনের প্রস্তাব, যা বললেন মুখপাত্র...

দুদকের মামলা থেকে অব্যাহতি পেলেন মেয়র সাক্কু