ফের ‘বাস বিড়ম্বনায়’ ডর্টমুন্ড

খেলা

স্পোর্টস ডেস্ক | ২১ এপ্রিল ২০১৭, শুক্রবার
গত সপ্তাহে ভয়াবহ এক অভিজ্ঞতার মুখোমুখি হয় বরুসিয়া ডর্টমুন্ডের খেলোয়াড়রা। ইউয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লীগে কোয়ার্টার ফাইনালের প্রথম লেগে মোনাকোকে স্বাগত জানায় তারা। খেলার জন্য মাঠে যাওয়ার আগে ভয়াবহ বোমা হামলার শিকার হয় ডর্টমুন্ডের খেলোয়াড়দের বহনকারী বাস। ওই ঘটনায় মার্ক বারত্রা আহত হন। নিজেদের মাঠে প্রথম লেগে তারা হারে ৩-২ গোলে। বুধবার ফিরতি লেগে খেলার জন্য মোনাকোর মাঠে সফর করে তারা।
কিন্তু এখানেও ‘বাস বিড়ম্বনা’র শিকার হলেন ডর্টমুন্ডের খেলোয়াড়রা। এতে এদিন নির্ধারিত সময়ের পাঁচ মিনিট পর খেলা শুরু হয়। কারণ- ডর্টমুন্ডের খেলোয়াড় অনেক দেরিতে মাঠে পৌঁছান। খেলা শুরু হওয়ার দেড় ঘণ্টা আগে হোটেল থেকে ছাড়ে ডর্টমুন্ডের খেলোয়াড়দের বহনকারী বাস। কিন্তু পথিমধ্যে তাদেরকে থামিয়ে দেয় পুলিশ। নিরাপত্তারক্ষাকারী কর্মীরা বাসটি দীর্ঘক্ষণ একই জায়গায় থামিয়ে ঘিরে রাখেন। পুলিশদের কাছে বাস থামিয়ে রাখার কারণ জানতে চান ডর্টমুন্ডের কোচ টমাস টাচেল। তিনি বলেন, ‘আমরা ঠিক সময় হোটেল থেকে বের হই। কিন্তু পথিমধ্যে পুলিশ আমাদের অনেকক্ষণ থামিয়ে রাখে। কারণ জানতে চাইলে তারা জানায়, নিরাপত্তার কারণে থামিয়ে রাখা হয়েছে। সেখানে প্রায় ১৬-১৭ মিনিট আমাদের থামিয়ে রাখা হয়। তাই মাঠে পৌঁছাতে দেরি হয়। বোমা হামলার শিকার হওয়ার আটদিন পরে আরো একবার এমন ঘটনার মুখোমুখি হওয়াটা ছিল খুবই বিরক্তিকর। দুই ম্যাচের আগেই আমাদের মন ভেঙে যায়। খেলোয়াড়রা খেলার প্রতি মনোযোগ হারায়। বিষয়টি আমাদের জন্য খুবই হতাশাকর।’
কোচের এই হতাশার বিষয়টি মাঠে প্রতিফলিত হয়। মোনাকোর কাছে ফিরতি লেগে ডর্টমুন্ড হেরে যায় ৩-১ গোলে। এতে দুই লেগে ৬-৩ গোলে জিতে সেমিফাইনালের টিকিট কাটে ফ্রান্সের ক্লাব মোনাকো। ১৩ বছর পর তারা ইউরোপ সেরা এ আসরের শেষ চারে উঠলো। এর আগে তারা সর্বশেষ সেমিফাইনালে ওঠে ২০০৪ সালে। অন্যদিকে চ্যাম্পিয়ন্স লীগে সর্বশেষ ১২ ম্যাচে নবম হার দেখে বরুসিয়া ডর্টমুন্ড। এদিন ম্যাচের তৃতীয় মিনিটেই স্বাগতিক মোনাকোকে এগিয়ে দেন এমবাপে লনিট। ১৮ বছর বয়সী ফরাসি এ ফরোয়ার্ড এই নিয়ে নকআউট পর্বে টানা চার ম্যাচে গোল করলেন। শেষ ষোলোয় ম্যানচেস্টার সিটির বিপক্ষের দুই লেগেই গোল করেন তিনি। আর ডর্টমুন্ডের বিপক্ষে প্রথম লেগে জোড়া গোলের পর ফিরতি লেগে করলেন এক গোল। চ্যাম্পিয়ন্স লীগের নকআউট পর্বের ইতিহাসে প্রথম খেলোয়াড় হিসেবে নিজের প্রথম চার ম্যাচেই গোল করলেন এমবাপে। আর মোট মিলিয়ে ষষ্ঠ খেলোয়াড় হিসেবে নিজের প্রথম চার ম্যাচে গোল করলেন তিনি। এর আগে সর্বশেষ এই কৃতিত্ব দেখান দিয়েগো কস্তা (২০১৪)। এমবাপের রেকর্ডের পর ১৭ মিনিটে মোনাকোর ব্যবধান বাড়ান রাদামেল ফ্যালকাও। তবে ৪৮ মিনিটে ডর্টমুন্ডের ব্যবধান কমান মার্কো রিউস। কিন্তু ৮১ মিনিটে জার্মেই’র গোলে ৩-১ ব্যবধানের জয় নিশ্চিত করে মোনাকো।

 

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন