হার্টের রিংয়ের দাম নির্ধারণ নিয়ে তুলকালাম

এক্সক্লুসিভ

স্টাফ রিপোর্টার | ২০ এপ্রিল ২০১৭, বৃহস্পতিবার
করোনারি স্ট্যান্ট’র (হার্টের রিং) দাম নির্ধারণ করায় সংশ্লিষ্ট ব্যবসারীরা অঘোষিত ধর্মঘট পালন করছে। এতে রোগীরা পড়েন চরম ভোগান্তিতে। গতকাল রাজধানীর জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউটসহ সারা দেশের সরকারি হাসপাতালে হৃদরোগীদের স্ট্যান্ট (করোনারি রিং) অস্ত্রোপচার কার্যক্রম বন্ধ হয়ে যায়। সমপ্রতি ওষুধ প্রশাসন অধিদপ্তরের এক সার্কুলারে স্ট্যান্টের মূল্য নির্ধারণ ও নিয়ন্ত্রণের প্রতিবাদে সরবরাহকারী কোম্পানিগুলো অঘোষিত ধর্মঘট অর্থাৎ স্ট্যান্ট সরবরাহ বন্ধ করে দেয় বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।  ফলে স্ট্যান্ট লাগানোর জন্য অপেক্ষমাণ হৃদরোগীরা বিপাকে পড়েছেন। জানা গেছে, জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউটের পাঁচটি ক্যাথল্যাব অপারেশন থিয়েটারে (ওটি) প্রতিদিন গড়ে ৩০টি স্ট্যান্ট লাগানো হলেও গতকাল সকাল থেকে সিরিয়ালে থাকা রোগীদের স্ট্যান্ট না লাগিয়ে ওটি থেকে ফিরিয়ে দেয়া হয়েছে। হাসপাতালের একাধিক রোগী ও চিকিৎসক গণমাধ্যমকে এ সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।
নাম প্রকাশ না করার শর্তে হৃদরোগ ইনস্টিটিউটের  কয়েকজন ডাক্তার জানান, সরকারিভাবে মূল্য নির্ধারণ করে দেয়ার প্রতিবাদে স্ট্যান্ট সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠানগুলো ধর্মঘট ডেকেছে। তারা সরকার নির্ধারিত মূল্যে স্ট্যান্ট সরবরাহ করবে না বলে সাফ জানিয়ে দিয়েছে। জানা গেছে, শুধু হৃদরোগ ইনস্টিটিউটেই নয়, সারা দেশের সরকারি হাসপাতালে স্ট্যান্ট ব্যবসায়ীদের অঘোষিত ধর্মঘট পালন করছে। এ পরিস্থিতিতে বুধবার সকালে ওষুধ প্রশাসন অধিদপ্তরে জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউটসহ বিভিন্ন সরকারি হাসপাতালের পরিচালকদের জরুরি বৈঠক করেছে। মঙ্গলবার ওষুধ প্রশাসন অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মোস্তাফিজুর রহমান এক সংবাদ সম্মেলনে জানান, স্ট্যান্ট আমদানির জন্য বর্তমানে দেশে ২২টি কোম্পানির বৈধ অনুমোদন রয়েছে। এ কোম্পানিগুলো মোট ৪৭ ধরনের স্ট্যান্ট আমদানি করে। তিনি জানান, এখন থেকে রেজিস্ট্রেশনপ্রাপ্ত সব স্ট্যান্ট সরবরাহকারী কোম্পানিকে তাদের কাছ থেকে মূল্য নির্ধারণ করে নিতে হবে। ১৭ সদস্যের বিশেষজ্ঞ কমিটি স্ট্যান্টের মূল্য নির্ধারণ করবে। এখন থেকে প্রতিটি কোম্পানিকে আমদানিকৃত স্ট্যান্টের গায়ে ড্রাগ অ্যাডমিনিস্ট্রেশন (ডিআর) রেজিস্ট্রেশন নম্বর, পণ্যটির মূল্য ও এর মেয়াদোত্তীর্ণের তারিখ উল্লেখ করতে হবে। তিনি আরও জানান, দেশের চারটি আমদানিকারক প্রতিষ্ঠান হৃদরোগের অর্থাৎ করোনারি স্ট্যান্টের প্রস্তাবিত মূল্য ওষুধ প্রশাসন অধিদপ্তরে দাখিল করে। প্রস্তাবনা অনুসারে বেয়ার মেটাল ও ডিইএস স্ট্যান্টের মূল্য ২৫ হাজার ও ড্রাগ ইলিওটিং স্ট্যান্টের মূল্য ৫০ হাজার টাকা প্রস্তাব করা হয়। কোম্পানিগুলো হলো- কার্ডিয়াক কেয়ার, ভাসটেক লিমিটেড, মেডিগ্রাফিক ট্রেডিং লিমিটেড ও ওরিয়েন্টর এক্সপোর্ট কোম্পানি লিমিটেড। দাম নির্ধারণের পর সকল আমদানিকারক ও বিক্রয়কারী প্রতিষ্ঠান নির্ধারিত দামে তা বিক্রি করতে বাধ্য থাকবে। একই সঙ্গে ডিভাইসের প্যাকেটে অবশ্যই উৎপাদন, মেয়াদকাল, দাম ও রেজিস্ট্রেশন নম্বর বাধ্যতামূলকভাবে উল্লেখ করতে হবে। অন্যথায় ওই ডিভাইস অবৈধ এবং আমদানিকারক প্রতিষ্ঠানকে শাস্তির আওতায় আনা হবে। পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতে একটি বেয়ার মেটাল স্ট্যান্টের দাম ৭ হাজার ২৬০ রুপি, বাংলাদেশি টাকায় যার দাম হয় ৮ হাজার ৯২৯ টাকা। অন্যদিকে ড্রাগ ইলিউটিং স্ট্যান্টের দাম ভারতে ২৯ হাজার ৬০০ টাকা, বাংলাদেশি টাকায় যার দাম হয় ৩৬ হাজার ৪০৮ টাকা। তবে দু’দেশের মধ্যে পার্থক্য হলো ভারতে ৬টি প্রতিষ্ঠান স্ট্যান্ট উৎপাদন ও বাজারজাত করে, অন্যদিকে বাংলাদেশ পুরোটাই আমদানি নির্ভর। দেশে বর্তমানে বার্ষিক ১৮ হাজার করোনারি স্ট্যান্টের প্রয়োজন পড়ে। অন্যদিকে ভারতের বার্ষিক চাহিদা ১০ লাখ।

 

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

Kazi

২০১৭-০৪-২০ ০০:১৩:৩২

Those who play with life of people they are inhuman cruel. Government should suspend the business license of those suppliers. Issue new license to new interested people with condition that they must abide by law.

আপনার মতামত দিন

বিএনপির সঙ্গে আলোচনার সম্ভাবনা রয়েছে, তবে...

বিমানে এরশাদ ফখরুল কুশল বিনিময়

ছিনতাইকারীর থাবায় প্রাণ গেল ৬ মাসের শিশুর

চলে গেলেন ওয়ালটনের প্রতিষ্ঠাতা

নিখোঁজ মেরিন প্রকৌশলীর লাশ উদ্ধার

ভোট উৎসবের অপেক্ষায় রংপুর

মানবপাচার রোধে তিন মন্ত্রণালয় একযোগে কাজ করছে

তুর্কি প্রধানমন্ত্রী ঢাকায়

২ শিশুর বুদ্ধিমত্তায় রক্ষা পেলো ট্রেন

প্রার্থীর ছড়াছড়ি

দুর্ঘটনার কবল থেকে ট্রেনটি রক্ষা করলো দুই শিশু

ঢাকায় তুরস্কের প্রধানমন্ত্রী

বৃদ্ধা মিলু গোমেজ হত্যায় কেয়ারটেকার গ্রেপ্তার

ষোড়শ সংশোধনীর রিভিউ শুনানিতে আন্তর্জাতিক আইনজীবী নিয়োগের আবেদন

শোকের উপর শোক, অসুস্থ হয়ে পড়লেন নওফেল

বিএনপি প্রার্থীকে প্রচারণায় বাধা দেয়ার অভিযোগ