দীর্ঘ রাজনৈতিক সংগ্রামের মুখে তুরস্কের বিরোধীরা

বিশ্বজমিন

লিসা ওঁলাদে | ১৮ এপ্রিল ২০১৭, মঙ্গলবার | সর্বশেষ আপডেট: ৩:৫৫
তুরস্কের বিরোধী রাজনীতিকরা দীর্ঘ এক সংগ্রামের মুখোমুখি। তাদের নির্বাচনী ভেনু বাতিল করে দেয়া হয়েছিল। নির্বাচনী সঙ্গীত নিষিদ্ধ করা হয়েছিল। প্রেসিডেন্ট রিসেপ তায়্যিপ এরদোগানের জয়ে এখন গণতন্ত্রের জন্য তাদেরকে কড়া সংগ্রাম করতে হবে। তাই বিরোধী দলগুলো সেই লড়াইয়ের জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছে। তারা গণভোটে হেরে গেছেন।
কিন্তু ভিন্নভাবে দেখলে এ ফল তাদের বিজয়। তারা বলেছিলেন, রাষ্ট্র তাদের প্রচারণায় প্রচণ্ড চাপ সৃষ্টি করেছে। বিরোধী এইচডিপি কুর্দিশ পার্টি বলেছে, ক্ষমতাসীন একে পার্টি দেশের দক্ষিণ-পূর্বে তাদের নির্বাচনী সঙ্গীত পর্যন্ত নিষিদ্ধ করেছিল। তবে তারা অন্য একটি বিষয়ে স্বস্তি পাচ্ছেন। তাহলো তুরস্কের বড় বড় শহরগুলোতে প্রেসিডেন্ট এরদোগান শতকরা ৫০ ভাগের বেশি ভোট পেতে ব্যর্থ হয়েছেন। এমনকি তিনি যে ইস্তাম্বুলে বসবাস করেন সেখানেও তিনি বিজয়ী হতে ব্যর্থ হয়েছেন। এটা তার জন্য অবমাননাকর। বিরোধীরা আতঙ্কে ছিল যে, ক্ষমতাসীন যে পরিমাণ ভোট পেয়েছে তার চেয়ে কমপক্ষে শতকরা ১০ ভাগ ভোট বেশি পাবে। ‘হ্যাঁ’ ভোটে সমর্থন দেয় নি ন্যাশনালিস্ট মুভমেন্ট পার্টি। তারা বলেছে, তাদের প্রচারণা ভেনু বাতিল করে দেয়া হয়েছিল। অনেক শহর ও গ্রামে ‘হ্যাঁ’ ভোটের জন্য স্থানীয় মেয়র ও নির্বাচনী কর্মকর্তাদের ওপর প্রচন্ড চাপ সৃষ্টি করেছিল একে পার্টি। দলীয় অন্য অনেকের মতো এইচডিপি দলের নেতা সেলাহাতিন দেমিরতাসও জেলে রয়েছেন। অন্যদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে। না হয় তাদেরকে প্রচারণায় নামতে দেয়া হয় নি। গণভোট বিষয়ে তাদের ব্যানার কেড়ে নেয়া হয়েছে। বিরোধী সিএইচপি ব্যালটে অনিয়ম নিয়ে অভিযোগ করবে। তারা বলেছে, সরকারের সব নিয়ন্ত্রক যন্ত্র ও একে পার্টি পুরোটাই নিয়ন্ত্রণ করেছে। তবে একে পার্টির প্রধান কার্যালয়ে রাতভর চলছিল উল্লাস। নির্বাচনে তারা অল্পের জন্য জিতেছে। কিন্তু বিজয় তো বিজয়ই। এখন প্রেসিডেন্ট এরদোগান দেশের নিরাপত্তার নামে যা খুশি তা-ই করতে পারবেন। গত জুলাইয়ের সামরিক ব্যর্থ অভ্যুত্থানের পর হাজারো মানুষকে গ্রেপ্তার করে জেলে রাখা হয়েছে। এসব মানুষের পরিবারে এখন এক গভীর আতঙ্ক। ( প্রেসিডেন্ট এরদোগান এর আগেই প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন তিনি দেশে মৃত্যুদণ্ড পুনর্বহালের জন্য গণভোট দেবেন। সেই ভোট দেয়া এখন তার একক সিদ্ধান্তের বিষয়। এমন গণভোটেও যদি তিনি জিতে যান তাহলে এসব মানুষের পরিণতি কি হতে পারে তা সহজেই অনুমেয়)।
(লিসা ওঁলাদ, স্কাই নিউজের সিনিয়র নিউজ করেসপন্ডেন্ট। অনলাইন স্কাই নিউজে প্রকাশিত লেখার অনুবাদ)

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

S.M.Nazrul Islam

২০১৭-০৪-১৮ ১০:৫০:২২

চরম উত্থান চরম পতনের কারন।এরদগানের পরিনতি এর চেয়ে ভিন্ন হবেনা।

আপনার মতামত দিন

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে মার্কিন প্রতিনিধি দল

৭৯ দিন পর বাড়ি ফিরলেন অনিরুদ্ধ রায়

প্যারাডাইস পেপারসে মিন্টু পরিবারের নাম

ফেসবুকে বন্ধুতা, প্রেম ব্ল্যাকমেইল

মাথা ন্যাড়ার শর্তে এসএসসির ফরম পূরণ!

একজন পেশকার মুচিরাম গুড়

চীন কারো পক্ষ নেবে না

হেয়ার স্কুলের দ্বিশতবার্ষিকীতে সম্মানিত জিয়া

অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন অনুষ্ঠানের তাগিদ

নির্বাচনী ডামাডোলে নানা প্রশ্ন

কামাল হোসেন মনে করেন এটা শুভ লক্ষণ

বারী সিদ্দিকী লাইফ সাপোর্টে

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে যাচ্ছেন না চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী

সড়ক দুর্ঘটনায় গুরুতর আহত এমপি গোলাম মোস্তফা আহমেদ

বিশ্ব সুন্দরীর মুকুট মানসী চিল্লার-এর

তবুও কুমিল্লার কাছে হারলো রংপুর