বর্ষবরণে কলকাতায় প্রথম দুটি মঙ্গল শোভাযাত্রা

ভারত

কলকাতা প্রতিনিধি | ১৫ এপ্রিল ২০১৭, শনিবার | সর্বশেষ আপডেট: ৯:৫০
প্রতীকী ছবি
এবারই প্রথম বাংলাদেশের প্রেরণায় কলকাতায় বাংলা নববর্ষ উপলক্ষে মঙ্গল শোভাযাত্রা বের হয়েছিল। পর পর দু’দিনে বের হওয়া এই দুটি মঙ্গল শোভাযাত্রা নিয়ে মানুষের মধ্যে উদ্দীপনাও ছিল। কলকাতা তথা পশ্চিমবঙ্গে পুরনো ক্যালেন্ডার মতে বাংলাদেশের একদিন পরে নববর্ষ পালিত হয়। আর বাংলাদেশে পালিত হয় একদিন আগে। অবশ্য দুই বাংলায় একই দিনে নববর্ষ পালনের কথা বলেছেন অনেকেই। কলকাতায় এ যাবৎ কালের মধ্যে প্রথম মঙ্গল শোভা যাত্রাটি বেরিয়েছিল গত শুক্রবার বাংলাদেশ উপ-হাইকমিশনের তরফে। এদিন সুরাবর্দী এভিনিউয়ে অবস্থিত বাংলাদেশ উপ হাইকমিশনের নিজস্ব গ্রন্থাগারের সামনে থেকে বেরিয়ে শোভাযাত্রাটি শেষ হয়েছিল বাংলাদেশ উপ-হাইকমিশনে। নানা ধরণের লোকায়ত মুখোশ নিয়ে শোভাযাত্রায় সামিল হয়েছিলেন হাইকমিশনের কর্মী ও তাদের পরিবারের সকলে। যোগ দিয়েছিলেন বিশিষ্ট মানুষজনও। পরে উপহাইকমিশনের এক সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে গান, নাচ ও আবৃত্তি পরিবেশিত হয়। বর্ষবরণ উপলক্ষ্যে নানা ধরনের পিঠে, মুড়ি, বাতাসা, নকুলদানা আমন্ত্রিতদের পরিবেশন করা হয়েছে। ছিল নাগরদোলা ও পুরনো দিনের কলের গান। স্বাগত ভাষণে উপহাইকমিশনার বলেছেন, অসাম্প্রদায়িক এই উৎসবে জাতি, ধর্ম বর্ণ নির্বিশেষে সবাই মিলিত হয়ে বর্ষবরণ করেন। এখানেও চালু হল এই বর্ষবরণ। কলকাতায় এই প্রথম উপহাইকমিশনের উদ্যোগে মঙ্গল শোভাযাত্রা বের হয়েছে বলে তিনি দাবি করেন। এদিকে শনিবার এপারের বর্ষবরণ উপলক্ষ্যে কলকাতার দক্ষিণ প্রান্তের গাঙ্গুলি বাগান থেকে সকালে বের হয়েছিল মঙ্গল শোভাযাত্রা, শেষ হয় যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে। সেখানে দুই বাংলার শিল্পী সমন্বয়ে অনুষ্ঠিত হয় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। ঢাকার প্রেরণায় আয়োজিত এই মঙ্গল শোভাযাত্রার পথ ছিল আলপনায় শোভিত। শোভাযাত্রায় ছিল কাঠি নাচ, সাঁওতালি নাচ, রণপা নাচ, ছৌ নাচ। বাউল, ফকির আর লোকগীতিতে মুখরিত হয়ে উঠেছিল এই শোভাযাত্রা। অংশ নিয়েছিলেন কলকাতার সাধারণ মানুষের পাশাপাশি বিশিষ্টজনেরা।  শোভাযাত্রার উদ্বোধন করেছেন বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ পবিত্র সরকার। ঢাকার লোকজ সংস্কৃৃতির্চ্চা বিকাশ কেন্দ্রের সহযোগিতায় কলকাতার বাংলা নববর্ষ উদযাপন পরিষদ এই প্রথম মঙ্গল শোভাযাত্রার আয়োজন করেছিল। মঙ্গল শোভাযাত্রা উপলক্ষ্যে তৈরি হয়েছিল বাঘ, প্যাঁচার  নানা ধরণের মুখোশ ও লোকজ প্রতীক। এজন্য ঢাকা থেকে এসেছিলেন একদল শিল্পী। তারা কয়েকদিন ধরে তৈরি করেছিলেন নানা ধরণের মুখোশ ও লোকজ প্রতীক। কলকাতার বাংলা নববর্ষ উদযাপন পরিষদের আহ্বায়ক অধ্যাপক সিদ্ধার্থ দত্ত বলেছেন, এবারের এই মঙ্গল শোভাযাত্রা কলকাতার সংস্কৃতি অঙ্গনে নতুন মাত্রা যোগ করেছে। আয়োজকরা অবশ্য এই মঙ্গল শোভাযাত্রার ভাবনাকে আগামীতে গোটা পশ্চিমবঙ্গে ছড়িয়ে দেবার কথা ভাবছেন। তবে প্রথম আয়োজিত এবারের মঙ্গল শোভাযাত্রায় অবশ্য এক ডজনের বেশি সংগঠন যোগ দিয়েছিল। 
এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘটে ইসি কর্মকর্তা-কর্মচারীরা

মধুপুরে রোহিঙ্গা সন্দেহে যুবক আটক

ম্যানচেস্টারে এবার মসজিদের বাইরে একজন ডাক্তারকে কুপিয়েছে দুর্বৃত্তরা

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে কলেরা সংক্রমণের আশঙ্কা বিশ্ব সাস্থ্য সংস্থার

স্বামীকে বেঁধে গৃহবধূকে ধর্ষণ, আটক ১

২৮ ‘হিন্দু’র খুনী কে!

ভেঙ্গে গেল স্পর্শিয়ার সংসার

নির্বাচিত মারকেল, ইসলামবিরোধী এএফডির উত্থান, কঠিন চ্যালেঞ্জ সামনে

মালিতে নিহত সার্জেন্ট আলতাফের বাড়িতে শোকের মাতম

বাংলাদেশী শান্তিরক্ষী নিহত হওয়ায় জাতিসংঘ মহাসচিবের শোক, নিন্দা

যুক্তরাষ্ট্রে ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞায় আরও তিন দেশ

‘যেভাবে ভাবি সেভাবে এখনো ক্যামেরার সামনে অভিনয় করতে পারিনি’

​ জার্মানির নির্বাচনে শেষ হাসি মার্কেলেরই

রোহিঙ্গাদের জন্য বাংলাদেশের ব্যাপক আন্তর্জাতিক সহযোগিতা প্রয়োজন: ইউএনএইচআরসি

মার্কেল?

ফের সীমান্তে রোহিঙ্গা স্রোত