জি-৭ সম্মেলন শুরু

লক্ষ্য রাশিয়াকে মিলিত বার্তা পাঠানো

বিশ্বজমিন

মানবজমিন ডেস্ক | ১১ এপ্রিল ২০১৭, মঙ্গলবার
বিশ্বের শীর্ষ সাত শিল্পোন্নত দেশের সংগঠন জি-৭ এর সম্মেলনে যোগ দিতে ইতালিতে জড়ো হয়েছেন দেশগুলোর পররাষ্ট্রমন্ত্রীরা। সিরিয়ায় সমপ্রতি রাসায়নিক হামলা ও যুক্তরাষ্ট্রের সামরিক প্রতিক্রিয়ার ফলে এই বৈঠক আলাদা গুরুত্ব পাচ্ছে। সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট বাশার আল আসাদের প্রতি সমর্থন প্রত্যাহার করতে রাশিয়াকে চাপ দেয়াই অংশগ্রহণকারী দেশগুলোর উদ্দেশ্য। এদিকে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রামেপর জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা এইচ আর ম্যাকমাস্টার তার প্রথম টেলিভিশন সাক্ষাৎকারে সিরিয়ার প্রতি সমর্থন প্রত্যাহারে রাশিয়াকে আহ্বান জানিয়েছেন। খবর দিয়েছে বার্তাসংস্থা এপি।
খবরে বলা হয়, গত সপ্তাহে বিদ্রোহী-নিয়ন্ত্রিত খান শেখুনে নার্ভ গ্যাস হামলায় ৮০ জনেরও বেশি নিহত হন। এ ঘটনার প্রতিক্রিয়ায় প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রামপ প্রথমবারের মতো আসাদ বাহিনীর ওপর হামলা চালানোর নির্দেশ দেন।
তার নির্দেশে মার্কিন যুদ্ধজাহাজ থেকে সিরিয়ার বিমানঘাঁটি উদ্দেশ্য করে ৫৯টি মিসাইল নিক্ষেপ করা হয়। যুক্তরাষ্ট্রের দাবি ওই বিমানঘাঁটি থেকে সিরিয়ার সরকার রাসায়নিক হামলা চালিয়েছে।
আয়োজক দেশ ইতালির পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যাঞ্জেলিনো আলফানো বলেছেন, সম্মেলনের আগে যুক্তরাষ্ট্রের ওই সামরিক হামলার প্রতি ইউরোপের সামগ্রিক সমর্থন দু’ পক্ষের মধ্যে নতুন করে ‘সৌহার্দ্য’ গড়ে উঠেছে। আলফানো বলেন, ‘আমাদের মনে করতে হবে, ১০ বছর আগে নয়, ১০০ বা ১২০ দিন আগেও ইউরোপে উদ্বেগ ছিল যে, যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপ ক্রমেই দূরে সরে যাচ্ছে। আমি এই নতুন সৌহার্দ্যকে স্বাগত জানাই।’ কর্মকর্তারা আশা করছেন, এই সম্মেলন থেকে ছয় বছর দীর্ঘ সিরিয়া গৃহযুদ্ধ সমাপ্তিতে নতুন কূটনৈতিক পদক্ষেপ বের করা যেতে পারে। এপি’র খবরে বলা হয়, এমন সময় এই বৈঠক অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে যখন উত্তর কোরিয়ার মিসাইল পরীক্ষার প্রেক্ষাপটে যুক্তরাষ্ট্র কোরিয়ান উপদ্বীপের দিকে রণতরী পাঠাচ্ছে। যুক্তরাষ্ট্র সিরিয়ায় জঙ্গিগোষ্ঠী ইসলামিক স্টেটের বিরুদ্ধে লড়াই করছে। কিন্তু এতদিন ধরে সরাসরি সিরিয়ার সরকারি বাহিনীর ওপর হামলা করা থেকে বিরত থেকেছে। কারণ, আশঙ্কা ছিল এর ফলে সিরিয়ার প্রধান মিত্র রাশিয়ার সঙ্গে বিরোধের সূত্রপাত হতে পারে। কিন্তু ওই রাসায়নিক হামলার পর মার্কিন সামরিক প্রতিক্রিয়ার ফলে সবকিছু পালটে গেছে। পশ্চিম ও রাশিয়ার সমপর্কে নতুন করে শীতলতা বিরাজ করছে। রাশিয়ার দাবি, সিরিয়ার বাহিনী ওই রাসায়নিক হামলা চালায়নি।
প্রসঙ্গত, জি-৭ গ্রুপে একসময় রাশিয়াও ছিল। তখন এ গ্রুপের নাম ছিল জি-৮। কিন্তু ২০১৪ সালে ইউক্রেনের ক্রিমিয়া অঞ্চল দখল করার পর রাশিয়াকে বের করা দেয়া হয়। এদিকে জি-৭ বৈঠকের আগে মস্কোতে রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠকে বসতে মস্কো সফরের কথা ছিল বৃটিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী বরিস জনসনের। কিন্তু তিনি ওই সফর বাতিল করেছেন একেবারে শেষ মুহূর্তে। এ বিষয়ে তিনি বলেছেন, সিরিয়ায় রাসায়নিক হামলা সব কিছু পাল্টে দিয়েছে। তিনি বরং যুক্তরাষ্ট্র ও জি-৭ ভুক্ত দেশগুলোর সঙ্গে একযোগে একটি অস্ত্রবিরতি ও রাজনৈতিক প্রক্রিয়া ত্বরান্বিত করতে সমন্বিত আন্তর্জাতিক সমর্থন গঠনে কাজ করবেন। জি-৭ বৈঠকের পর রাশিয়া যাওয়ার কথা রয়েছে মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী রেক্স টিলারসনের। জনসন বলেন, ওই সফরে টিলারসন জি-৭ভুক্ত দেশগুলোর পক্ষ থেকে রাশিয়ানদের প্রতি ঐক্যবদ্ধ ও সপষ্ট বার্তা দেবেন।
গতকালই জাতিসংঘে নিযুক্ত মার্কিন দূত নিকি হ্যালি পূর্বের অবস্থান থেকে সরে এসে বলেছেন, আসাদকে ক্ষমতাচ্যুত করাটা যুক্তরাষ্ট্রের অন্যতম অগ্রাধিকার। প্রেসিডেন্ট ট্রামপ পূর্বে আসাদ সরকারের প্রতি কিছুটা অনুকূল থাকলেও, রাসায়নিক হামলার পর তার দৃষ্টিভঙ্গিতে পরিবর্তন এসেছে বলে মন্তব্য করেন। রেক্স টিলারসন অবশ্য অত জোরালো অবস্থান নেননি। তিনি স্বীকার করেছেন যে, একটি জোট গঠনের চেষ্টা চলছে। তবে তার মন্তব্য, সিরিয়ায় আমেরিকার প্রধান অগ্রাধিকার হলো আইএসকে পরাজিত করা। ট্রামেপর জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা ম্যাকমাস্টার দুই অগ্রাধিকারের কথাই উল্লেখ করেছেন। মার্কিন মিত্রদেশগুলো অবশ্য আসাদকে ক্ষমতাচ্যুত করার ব্যাপারে আরো বেশি আগ্রহী।

 

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে চীনের প্রস্তাব, যা বললেন মুখপাত্র...

দুদকের মামলা থেকে অব্যাহতি পেলেন মেয়র সাক্কু

স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন টিটু রায়

আনসারুল্লাহ’র দুই জঙ্গি কলকাতায় গ্রেপ্তার

‘আওয়ামী লীগ ৪০টির বেশি আসন পাবে না’

মায়ের বুক থেকে চুরি হওয়া শিশুটি উদ্ধার

চট্টগ্রামে সাইকেল আরোহীর পা ভাঙায় বাসে আগুন

নাইজেরিয়ায় মসজিদে আত্মঘাতী বোমা হামলা, নিহত ৫০

উত্তর কোরিয়াকে সন্ত্রাসবাদের পৃষ্ঠপোষক বললেন ট্রাম্প

আ’লীগের দুই গ্রুপের সমাবেশ, ১৪৪ ধারা

‘নিজাম হাজারীর ক্যাডাররা খালেদার গাড়িবহরে হামলা করেছে’

যৌন কেলেঙ্কারির অভিযোগে বরখাস্ত মার্কিন এই টিভি উপস্থাপক

নিখোঁজের ৪ দিন পর বৃদ্ধের লাশ উদ্ধার

রোহিঙ্গা ইস্যুতে বাংলাদেশের সঙ্গে এ সপ্তাহেই চুক্তি হবে- সুচি

সাকিবকে গুনতে হচ্ছে জরিমানা

সশস্ত্র বাহিনী জাতির এক গর্বিত প্রতিষ্ঠান: খালেদা জিয়া