বাহুতে জন্মানো কৃত্রিম কান প্রতিস্থাপন

রকমারি

মানবজমিন ডেস্ক | ৩ এপ্রিল ২০১৭, সোমবার | সর্বশেষ আপডেট: ৯:০৮
চীনের এক ডাক্তার তার রোগির বাহু ওপর তৈরি করলেন কৃত্রিম একটি কান। তা আবার ওই রোগির আগের কানের স্থানে তা প্রতিস্থাপন করলেন সফলতার সঙ্গে। চীনে প্লাস্টিক সার্জন হিসেবে খুবই পরিচিত ডাক্তার গুও শুঝোং। তিনি ওই রোগির বাহুর ওপর থেকে কৃত্রিম কানটি তুলে নিয়ে ঘন্টাব্যাপী অপারেশনে তা বসিয়ে দিলেন তার রোগির আগের কানের স্থানে। এ খবর দিয়েছে লন্ডনের অনলাইন দ্য ইন্ডিপেন্ডেন্ট। এতে বলা হয়েছে, ওই রোগির নাম শুধু ‘জি’ হিসেবে প্রকাশ করা হয়েছে। এক্ষেত্রে তার পুরো নাম ও বয়স প্রকাশ করা হয় নি। ‘জি’ ২০১৫ সালে এক দুর্ঘটনায় তার একটি কান হারান। এ ছাড়া মুখের ডান দিকে বড় ক্ষত হয়। তিনি নিজের এমন চেহারা কিছুতেই মেনে নিতে পারছিলেন না। তাই ধরনা দেন ডাক্তারের কাছে। তার বেশ কিছু অপারেশন করানো হয় মুখ ঠিক করানোর জন্য। চামড়ায় ফেসিয়াল করানো হয়। কিন্তু কোনো চিকিৎসকই তার হারানো কানের বিষয়ে কোনো সমাধান দিতে পারছিলেন না। শেষ পর্যন্ত এগিয়ে আসেন ডাক্তার শুঝোং। তিনি সিয়ান জিয়াওটোং ইউনিভার্সিটিতে কাজ করেন। তিনিই সাহস দেখালেন ‘জি’কে। ‘জি’র বাহুর চামড়া টেনে লম্বা করেন। এক্ষেত্রে চামড়া বড় করার একটি মেডিকেল পদ্ধতি অবলম্বন করেন শুঝোং। তারপর ‘জি’র পাঁজর থেকে কিছু কার্টিলেজ বা তরুণাস্থি কেটে নেন। এই তরুণাস্থিকে কানের আকৃতি দেন। পরে তা বসিয়ে দেন ‘জি’র বাহুর বর্ধিত চামড়ার নিচে। ধীরে ধীরে তা কানের আকৃতি ধারণ করে। তাতে রক্ত সঞ্চালন হতে থাকে। পুরো কার্যক্ষম হওয়ার পর অপারেশনে যান ডাক্তার শুঝোং। তিনি এক ঘন্টার অপারেশনে ‘জি’র বাহু থেকে কেটে নেন ওই কৃত্রিম কান। তা বসিয়ে দেন তার হারানো কানের স্থানে। তাতে দিব্যি রক্ত সঞ্চালন শুরু হয়েছে বলে জানিয়েছেন ডাক্তার শুঝোং। এর ফলে অল্প কিছুদিনের মধ্যেই সুস্থ হয়ে উঠবেন জি। তবে তাকে দু’সপ্তাহের মতো অবস্থান করতে হবে হাসপাতালে পর্যবেক্ষনের জন্য। উল্লেখ্য, ২০০৬ সালে চীনে প্রথম মুখ প্রতিস্থাপন করেন ডাক্তার শুঝোং।
 
এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন