তিন তালাক নিয়ে শুনানি হবে সাংবিধানিক বেঞ্চে

ভারত

কলকাতা প্রতিনিধি | ৩০ মার্চ ২০১৭, বৃহস্পতিবার
মুসলিমদের ‘তিন তালাক’ ইস্যুতে সাংবিধানিক বেঞ্চকেই সিদ্ধান্ত গ্রহণের দায়িত্ব দিয়েছে ভারতের সুপ্রিম কোর্ট। প্রধান বিচারপতি জেএস খেহরের বেঞ্চ বৃহস্পতিবার জানিয়ে দিয়েছে ‘তিন তালাক’ ইস্যু নিয়ে যাবতীয় কিছু শুনবে সাংবিধানিক বেঞ্চ। ‘তিন তালাক’, ‘বহু বিবাহ’ এবং ‘নিকাহ্ হালালা’ বৈধ কিনা, এ বিষয়ে যাবতীয় সিদ্ধান্ত নেবে সাংবিধানিক বেঞ্চই। আগামী ১১ই মে থেকে এই প্রথার আইনি বৈধতা নিয়ে প্রশ্ন তুলে এক গুচ্ছ আবেদন জমা পড়েছে আদালতে। অন্যতম প্রধান মামলাকারী হল মুসলিম মহিলাদের সংগঠন। সম্পূর্ণ ভাবে পুরুষের ইচ্ছার ওপর নির্ভরশীল এই বিবাহ বিচ্ছেদ প্রক্রিয়া আসলে নারীর অধিকারের অমর্যাদা, মনে করছেন মামলাকারীরা।
দেশের সর্বোচ্চ আদালতও মনে করছে, বিষয়টি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। তাই এত গুরুত্বপূর্ণ বিষয় ফেলে রাখা সম্ভব না বলেই আদালত জানিয়েছে। ফেসবুকে বা হোয়াটসঅ্যাপে তিন বার তালাক বলেও আজকাল কেউ কেউ স্ত্রীকে ছেড়ে দিচ্ছেন বলে অভিযোগ। কিন্তু সুপ্রিম কোর্ট জানিয়েছে, নির্দিষ্ট কয়েকটি ঘটনার বিচার নয়, বরং তিন তালাক এবং বহু বিবাহের প্রথাকে আদৌ আইনের চোখে বৈধ বলা যায় কি না, সে বিষয়েরই বিচার করা হবে। তিন তালাক, নিকাহ্ হালালা এবং চারটি করে বিয়ে করার যে প্রথা মুসলিমদের মধ্যে রয়েছে, ধর্মাচরণের অধিকারের নামে সে ধরনের প্রথা চলতে  দেয়া যায় কি না, সুপ্রিম কোর্ট সেই বিষয়টিই বিচার করবে। যদি সর্বোচ্চ আদালত মনে করে এই প্রথার অবসানের প্রয়োজন রয়েছে, তা হলে অভিন্ন দেওয়ানি বিধির প্রচলন ঘটিয়ে এই প্রথার অবসান ঘটানো হবে নাকি অন্য কোনো প্রক্রিয়ায়, তা আইনসভার উপরেই ছেড়ে দওয়া হবে বলে সুপ্রিম কোর্ট এদিন জানিয়েছে। কয়েকদিন আগেই অল ইন্ডিয়া মুসলিম পার্সোনাল বোর্ডের তরফ থেকে ভারতের সর্বোচ্চ আদালতের কাছে লিখিত ভাবে আর্জি জানানো হয়, যেন আদালত  ‘তিন তালাক’ ইস্যুকে গভীর দৃষ্টি দিয়ে বিবেচনা করেন। তাদের দাবি, ‘তিন তালাক’ বন্ধ করে দিলে ভারতীয় সমাজে বিপন্নতায় ভুগবে মুসলিম সম্প্রদায়, অবলুপ্তি হতে পারে ইসলাম সংস্কৃতির। উল্লেখ্য, গোটা ভারতে তিন তালাক নিয়ে অনেক মুসলিম মহিলাই সোচ্চার হয়েছেন। ২৪ ঘণ্টা আগেই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে লেখা তালাকপ্রাপ্ত এক গর্ভবতী মুসলিম মহিলার চিঠি ভারতে আলোড়ন তৈরি করেছে।

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন