ভিনগ্রহী, অবতার আখ্যা দিয়ে বিরল রোগে আক্রান্ত সদ্যোজাতকে দেখতে ভিড়

রকমারি

| ২৫ মার্চ ২০১৭, শনিবার
তাকে দেখে ভয় পেয়ে গিয়েছিলেন মা। চিৎকার করে নার্সদের বলছিলেন, “আমার চোখের সামনে থেকে সরিয়ে নিয়ে যাও।” নিজের সন্তানকে দেখে এতটাই চমকে গিয়েছিলেন ৩৫ বছরের খালেদা বেগম।

গত সোমবার রাতে পুত্র সন্তানের জন্ম দিয়েছেন বিহারের কাটিহারের বাসিন্দা খালেদা। চিকিৎসকরা জানাচ্ছেন, জন্মের পর থেকেই খালেদার সন্তান হার্লিকুইন ইচথয়োসিস নামক বিরল রোগে আক্রান্ত। আর এই রোগের কারণেই ‘অদ্ভুত দর্শন’ এই শিশু। অত্যন্ত মোটা ত্বক, ছোট মাথা আর বিস্ফারিত চোখের জন্য তাকে দেখতে সাধারণ শিশুদের থেকে অনেকটাই আলাদা। তবে শুধু হার্লিকুইন ইচথয়োসিস-ই নয়, শিশুটির মধ্যে অ্যানেনসেফালির লক্ষণও দেখা গিয়েছে।
অ্যানেনসেফালিতে আক্রান্তদের মস্তিষ্কের বিকাশ ঠিকমতো হয় না।সেন্টার ফর ডিজিজ কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশন জানাচ্ছে, দেখা গিয়েছে ১০ হাজার সদ্যজাতের মধ্যে তিন জন অ্যানেনসেফালিতে আক্রান্ত হয়। আমেরিকায় প্রতি বছর হার্লিকুইন ইচথয়োসিস রোগে আক্রান্ত পাঁচ জন শিশুর জন্ম হয়। এক্ষেত্রে শিশুর শরীরের অন্যান্য অংশ পরিণত হলেও মস্তিষ্ক অপরিণত থেকে যায়।

হাসপাতাল থেকে বাড়ি ফেরার পর থেকেই স্থানীয় বাসিন্দাদের ভিড়ে উপচে পড়ছে খালেদাদের বাড়ি। কেউ বলছেন ওই শিশু হনুমানজির অবতার। কারও মতে নবজাতক সাধারণ মানুষ নয়, ভিনগ্রহী। সদ্যোজাতকে দেখতে দূর-দূরান্ত থেকেও পাড়ি জমাচ্ছেন উৎসাহীরা।

সুত্রঃ আনন্দবাজার পত্রিকা

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

জনগণের দেয়া রায় মেনে নেবে বিএনপি: ফখরুল

দুই নারীর একজন স্বামী, অন্যজন স্ত্রী

আ’লীগের দু’গ্রুপের সংঘর্ষ, আহত ১৫

নওগাঁয় যুবককে কুপিয়ে হত্যা

গার্মেন্টে যৌন নির্যাতনের অভিযোগ তদন্ত করছে এইচ অ্যান্ড এম

নাশকতার অভিযোগে ২০ শিবিরকর্মী আটক

বিএনপির বিজয় র‌্যালিতে যুবলীগ-ছাত্রলীগের হামলা

বিজয় উৎসব পালন করতে গিয়ে সড়ক দুর্ঘটনায় ৮ মুক্তিযোদ্ধাসহ আহত ৯

আমৃত্যু এক যোদ্ধার কথা

ছাত্রদলের পুষ্পস্তবক ছিঁড়লো ছাত্রলীগ

ইন্দোনেশিয়ায় ভূমিকম্পে নিহত ২

‘স্বাধীনতার ৪৬ বছরে জাতির প্রত্যাশা অনেকটাই পূরণ হয়েছে’

বঙ্গবন্ধুর গৃহবন্দি পরিবারকে যেভাবে উদ্ধার করেছিলেন কর্নেল তারা

মিয়ানমারে আটক দু’সাংবাদিককের মুক্তি দাবি জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রও

জাতীয় স্মৃতিসৌধে শহীদদের প্রতি খালেদার শ্রদ্ধা

ভারতে তিন তালাক বিরোধী খসড়া আইনে সরকারের অনুমোদন