দেশের মানুষ দুর্ভোগ পোহাচ্ছে: রিজভী

দেশ বিদেশ

স্টাফ রিপোর্টার | ২০ মার্চ ২০১৭, সোমবার
প্রধানমন্ত্রীকে ভুল তথ্য দিয়ে একটি মহল বিচার বিভাগের সঙ্গে প্রশাসন বা নির্বাহী বিভাগের দূরত্ব তৈরি করছে বলে প্রধান বিচারপতি যে অভিযোগ করেছেন তার সঙ্গে একমত পোষণ করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রিজভী আহমেদ। তিনি বলেছেন, আমি প্রধান বিচারপতির যৌক্তিক এই বক্তব্যের সঙ্গে দ্বিমত পোষণ করতে পারছি না। প্রধান বিচারপতির অভিযোগের বিষয়টি এখন সর্বমহলে আলোচিত হচ্ছে। দেশের প্রধান বিচারপতি যখন এই ধরনের অভিযোগ উত্থাপন করেন, তখন তা জনমনে যৌক্তিক ভিত্তি পায়। বুঝতে হবে, কী পরিমাণ ভুক্তভোগী হলে স্বয়ং প্রধান বিচারপতিও ক্ষুব্ধ হয়ে নির্বাহী হস্তক্ষেপের বিষয়ে অভিযোগ তুলেন। গতকাল বিএনপির নয়াপল্টন কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি প্রধান বিচারপতির অভিযোগের প্রতি সমর্থন জানান। রিজভী আহমেদ বলেন, আমার মনে হয়, এদেশের মানুষ দুর্ভোগ পোহাচ্ছে। আজকে রাষ্ট্রশক্তি যেভাবে ভয়ানক হয়ে উঠেছে, এখানে শেষ আশ্রয়স্থল আদালত। রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ আইন সংবিধান যে দায়িত্বটি দিয়েছে বিচার বিভাগকে, তার যে স্বাধীনতা, সেই স্বাধীনতায় যদি হস্তক্ষেপ হতে থাকে, তাহলে মানুষের শেষ আশ্রয়স্থল সেটি বিপন্ন হবে। মানুষ হতাশাগ্রস্ত হবে। আর কেবল গণতন্ত্র থাকলেই আইনের শাসন নিশ্চিত হবে এটিই প্রধান বিচারপতির বক্তব্যে প্রতিধ্বনিত হয়েছে। রিজভী বলেন, বর্তমান ক্ষমতাসীন দলের নেতা-মন্ত্রীদের কথাবার্তা, উগ্রতা, অহমিকা ও দম্ভের প্রকাশ ঘটে সবসময়। তারা রাষ্ট্রের অন্য কোনো স্বাধীন অঙ্গের অস্তিত্ব স্বীকার করে না। একদলীয় শাসনব্যবস্থা আনুষ্ঠানিক রূপ লাভ করেছে বলেই আজকে বিচার বিভাগের ওপর সরকারের হস্তক্ষেপ সর্বত্র দৃশ্যমান। রিজভী বলেন, বিচার বিভাগ রাষ্ট্রের একটি স্বাধীন অঙ্গ। সেখানে নির্বাহী বিভাগের অবিরত হস্তক্ষেপ চলতে থাকলে রাষ্ট্র ক্ষমতার ‘চেক অ্যান্ড ব্যালেন্স’ নষ্ট হয়ে যায়। ক্ষমতাধর ব্যক্তির অমানবিক আচরণে সংক্ষুব্ধ ব্যক্তির আদালতে শরণাপন্ন হওয়ার শেষ আশ্রয়টুকু থাকে না নির্বাহী বিভাগের হিংস্রয়ী হয়ে দানবীয় রূপ লাভ করে। তিনি বলেন, নির্বাহী বিভাগের হস্তক্ষেপ নিয়ে প্রধান বিচারপতির পর্যবেক্ষণ প্রধানমন্ত্রী আমলে নেবেন কিনা জানি না। তবে প্রধানমন্ত্রী যদি বিভ্রান্তকারীদের ভুল তথ্যের প্রভাব থেকে বেরিয়ে গণতন্ত্রের পথে হাঁটতেন, গণ-ইচ্ছাকে সম্মান দিতেন, তাহলে রাষ্ট্রের অঙ্গগুলো, রাষ্ট্রের সংবিধান প্রদত্ত ক্ষমতা বলে স্বাধীন সত্তা নিয়ে কাজ করতে পারতো। সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ড. এজেডএম জাহিদ হোসেন ও চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আতাউর রহমান ঢালী উপস্থিত ছিলেন।  

 
এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন