কারিগরি শিক্ষকদের জন্য আন্তর্জাতিক মানের ট্রেনিং সেন্টার

শেষের পাতা

স্টাফ রিপোর্টার | ২০ মার্চ ২০১৭, সোমবার
 কারিগরি শিক্ষার মান উন্নয়নে কক্সবাজারে আন্তর্জাতিক মানের টেকনিক্যাল টিচার্চ লিডারশিপ ট্রেনিং সেন্টার (টিটিএলটিসি) নির্মাণের উদ্যোগ নিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। কক্সবাজারস্থ রুমালিয়াছড়ায় ১০ তলাবিশিষ্ট এই সেন্টার নির্মাণে সম্ভাব্য ব্যয় ধরা হয়েছে দেড় শ’ কোটি টাকা। এই সেন্টার নির্মাণের জন্য গত ১৬ই ফেব্রুয়ারি শিক্ষা মন্ত্রণালয় একটি কমিটি গঠন করে দিয়েছে। কমিটিকে ৩০ কর্ম দিবসের মধ্যে বাস্তবমুখী কর্মপরিকল্পনা ও ডিটেইল প্রকল্প পরিকল্পনা (ডিপিপি) তৈরির জন্য নির্দেশ দেয়া হয়েছে। মন্ত্রণালয়ের কারিগরি বিভাগের যুগ্ম সচিব (পরিকল্পনা)কে আহ্বায়ক করে গঠন করা কমিটির সদস্যরা হলেন- শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তরের প্রধান প্রকৌশলীর প্রতিনিধি, উপ-প্রধান (পরিকল্পনা), কারিগরি অধিদপ্তরের মহাপরিচালক, কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান। কারিগরি বিভাগের উপ-সচিব (কারিগরি-২)কে কমিটির সদস্য সচিব করা হয়েছে। কমিটিকে পরবর্তী ৩০ কর্ম দিবসের মধ্যে টিটিএলটিসি নির্মাণের জন্য সরজমিন পরিদর্শন করে প্রয়োজনীয় তথ্য উপাত্তযোগে কর্ম পরিকল্পনা ও ডিপিপি তৈরি করে মন্ত্রণালয়ে দাখিল করতে নির্দেশ দেয়া হয়। ইতিমধ্যে কমিটি দুই দফা বৈঠক করেছে।
কমিটির একজন সদস্য জানান, কক্সবাজার রুমালিয়াছড়া সড়কে অবস্থিত কক্সবাজার টিএসসি প্রায় ৪ একর জমির ওপর স্থাপিত। প্রতিষ্ঠানটির দক্ষিণ পাশে প্রায় ১ দশমিক ৫ একর জমিতে প্রাক্তন সুপার কোয়ার্টার, স্টাফ কোয়ার্টার ও ছাত্রাবাস রয়েছে। বর্তমানে এ ভবনগুলোর সবই পরিত্যক্ত। পরিত্যক্ত এ জমিতেই এই ট্রেনিং সেন্টার নির্মাণ করার ব্যাপারে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হয়েছে। তিনি জানান, ১০ তলাবিশিষ্ট ভবনের প্রথম তলায় থাকবে গাড়ি পার্কিং। দ্বিতীয় থেকে অষ্টম তলা পর্যন্ত আন্তর্জাতিক মানের আধুনিক ল্যাব, ক্লাসরুম, গবেষণাগারসহ অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা থাকবে। নবম তলায় অডিটরিয়াম ও ১০ম তলায় থাকবে আবাসিক সুবিধা। কারিগরির শিক্ষকদের প্রশিক্ষণ দেয়ার জন্য টিটিএলটিসি নির্মাণ করা হলেও এখানে শিক্ষা মন্ত্রণালয়সহ সরকারি-বেসরকারি যেকোনো প্রশিক্ষণের সুযোগ থাকবে।
কারিগরি বিভাগের কর্মকর্তারা বলছেন, এই সেন্টারের নির্মাণ ব্যয়ের জন্য সরকারি অর্থায়ন অথবা কারিগরিতে পরিচালিত বিভিন্ন প্রকল্পের মাধ্যমে অর্থায়ন করা হবে। তবে সরকারিভাবে ব্যয়ভার বহন করতে সমস্যা হলে কারিগরি শিক্ষা অধিদপ্তরের আওতাধীন স্কিলস্‌ অ্যান্ড ট্রেনিং এনহান্সমেন্ট প্রজেক্ট (স্টেপ) থেকে এটা স্থাপনের ব্যয় নির্বাহ করা হতে পারে। এই সেন্টারের মাধ্যমে যেসব বিষয়ে প্রশিক্ষণ দেয়া হবে তার মধ্যে রয়েছে হোটেল ম্যানেজমেন্ট অ্যান্ড ট্যুরিজম, ফুড অ্যান্ড নিউট্রিশনস, ইলেকট্রিক্যাল ইনস্টলেশন অ্যান্ড মেইনটেন্যান্স (সিভিল কনস্ট্রাকশন), প্ল্যাম্বিং, মোটরসাইকেল সার্ভিসিং, ব্লক-বাটিক অ্যান্ড স্ক্রিন প্রিন্টিং, সুইং মেশিন অপারেশন, টেইলারিং অ্যান্ড ড্রেস মেকিংসহ আরো নানা বিষয়।
বিষয়টি নিশ্চিত করে শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ বলেন, কারিগরি শিক্ষা নিয়ে মহাপরিকল্পনার অংশ হিসেবে এই সেন্টার করা হচ্ছে। এ জন্য একটি কমিটি গঠন করে দিয়েছি। তারা কাজও শুরু করেছে। তিনি জানান, সরকার ইতিমধ্যে কারিগরি শিক্ষায় শিক্ষার্থী ভর্তির হার এক শতাংশ থেকে ১৪ শতাংশের উপরে নিয়ে গেছে। এই বিশাল সুযোগ কাজে লাগিয়ে শিক্ষার্থীদের প্রযুক্তিনির্ভর গড়ে তোলার জন্য দক্ষ শিক্ষকের প্রয়োজন। এ জন্যই এ উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। কারিগরিই হবে শিক্ষার মূলধারা। 
এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন