মৃত্যুবার্ষিকীতে স্মরণ

যে কাউকে সহজেই আপন করে নিতেন দিতি

বিনোদন

মোশাররফ রুমী | ২০ মার্চ ২০১৭, সোমবার
পারভীন সুলতানা দিতি। দেশীয় শোবিজের বিনয়ী, দর্শকপ্রিয় এবং সর্বজন স্বীকৃত একজন ভালো মানুষ।  মোহনীয় হাসিতে মুগ্ধতা ছড়াতেন সব সময়। যে কাউকে সহজেই আপন করে নিতেন। মিডিয়ায় তার কাজও ছিল বেশ প্রশংসনীয়। ব্রেন টিউমারে আক্রান্ত হয়ে গেল বছরের এ দিনে পৃথিবীর মায়া কাটিয়ে পরপারে চলে যান তিনি। আজ তার প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী। বড় অসময়ে চলে যাওয়া তার। বয়স হয়েছিল ৫১। ১৯৬৫ সালের ৩১শে মার্চ নারায়ণগঞ্জ জেলার সোনারগাঁয়ে জন্ম নিয়েছিলেন দিতি। ১৯৮৪ সালে নতুন মুখের সন্ধানের মাধ্যমে দেশীয় চলচ্চিত্রে পদার্পণ করেছিলেন তিনি। তার অভিনীত প্রথম চলচ্চিত্র উদয়ন চৌধুরী পরিচালিত ‘ডাক দিয়ে যাই’। কিন্তু এটি শেষ পর্যন্ত আলোর মুখ দেখেনি। ছবিটি আজও মুক্তি পায়নি। দিতি অভিনীত মুক্তিপ্রাপ্ত প্রথম ছবি ‘আমিই ওস্তাদ’। ছবিটি পরিচালনা করেন আজমল হুদা মিঠু। এরপর ‘হীরামতি’, ‘দুই জীবন’, ‘ভাই বন্ধু’, ‘উছিলা’, ‘লেডি ইন্সপেক্টর’, ‘খুনের বদলা’, ‘আজকের হাঙ্গামা’, ‘স্নেহের প্রতিদান’, ‘শেষ উপহার’, ‘চরম আঘাত’, ‘কালিয়া’, ‘স্বামী-স্ত্রী’, ‘মেঘের কোলে রোদ’, ‘জোনাকির আলো’, ‘তবুও ভালোবাসি’, ‘পূর্ণদৈর্ঘ্য প্রেমকাহিনী’সহ প্রায় দুই শতাধিক ছবিতে অভিনয় করেন তিনি। তার অভিনীত সর্বশেষ মুক্তিপ্রাপ্ত ছবির নাম ‘সুইটহার্ট’। ছবিটি পরিচালনা করেছেন ওয়াজেদ আলী সুমন। সুভাষ দত্ত পরিচালিত ‘স্বামী স্ত্রী’ ছবিতে আলমগীরের স্ত্রীর চরিত্রে দারুণ অভিনয় নৈপুণ্য সুবাদে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারও অর্জন করেন তিনি। ছোট পর্দায়ও দিতি ছিলেন নিয়মিত। অনেক একক নাটক, টেলিছবি ও ধারাবাহিক নাটকে দেখা গেছে তাকে। অভিনয় এবং নির্মাণ দুটোই একসঙ্গে করতেন দিতি। অপূর্ব ও মোনালিসাকে নিয়ে রুম্মান রশীদের গল্পে দিতি প্রথম ‘ডিএলডি’ নামক নিজস্ব প্রযোজনা সংস্থা থেকে নির্মাণ করেন ‘খুনসুটিকে দিলাম ছুটি’ নাটকটি। এরপর বিশেষত মা দিবস এলেই তিনি ‘মা’ বিষয়ক গল্প নিয়ে বিশেষ বিশেষ নাটক নির্মাণ করতেন। তার সর্বশেষ অভিনীত ধারাবাহিক নাটক রুদ্র মাহফুজের রচনা ও সাখাওয়াত মানিকের পরিচালনায় ‘মেঘে ঢাকা শহর’। তার অভিনীত সর্বশেষ প্রচার চলতি ধারাবাহিক নাটক ছিল এটিএন বাংলায় রুদ্র মাহফুজ রচিত ও বিইউ শুভ পরিচালিত ‘লাইফ ইন এ মেট্রো’। দিতির প্রযোজনা সংস্থা ডিএলডি থেকে সর্বশেষ নির্মিত নাটক ছিল রাশেদ শামীম শ্যাম পরিচালিত ‘বৃষ্টির কান্না’। এতে দিতি অভিনয় করেন ২০১৫ সালের ২২শে জুলাই। আর ২৪শে জুলাই রাতে তিনি অসুস্থ হন এবং ২৫শে জুলাই তাকে চেন্নাই নেয়া হয় চিকিৎসার জন্য। মডেল হয়েও দিতি কাজ করেছেন অসংখ্য বিজ্ঞাপনে। একজন গায়িকা হিসেবেই ছোটবেলা থেকে নিজেকে গড়ার স্বপ্ন দেখেছিলেন দিতি। কিন্তু বড় হয়ে তিনি নায়িকা হন। নব্বইয়ের দশকের মাঝামাঝি সময়ে অনুপম রেকর্ডিং মিডিয়া থেকে তার প্রথম গানের একক অ্যালবাম বের হয়। সর্বশেষ লেজারভিশন থেকে তার গাওয়া গানের দ্বিতীয় একক অ্যালবাম ‘ফিরে যেন আসি’ বাজারে আসে প্রায় চার বছর আগে। এটিও বেশ শ্রোতাপ্রিয় হয়। এছাড়া রান্নাবিষয়ক অনুষ্ঠানও উপস্থাপনা করেছেন। এদিকে সম্প্রতি মুক্তি পায় দিতি অভিনীত ‘এই গল্পে ভালোবাসা নেই’ চলচ্চিত্রটি।

পরিবার ও চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির আয়োজন
আজ দিতির প্রথম মৃত্যুবার্ষিকীতে তার পরিবার এবং বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতি আলাদা আলাদাভাবে বিশেষ আয়োজনের উদ্যোগ নিয়েছে। দিতির মেয়ে লামিয়া চৌধুরী জানান, আজ ভোরেই তিনি নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁয়ে চলে যাবেন। সঙ্গে যাবেন তারই ছোট ভাই দীপ্ত চৌধুরী। লামিয়া বলেন, যেহেতু আম্মুকে গ্রামের বাড়িতেই কবর দেয়া হয়েছে, তাই ভোর থেকেই  সেখানে সময় দিতে চাই। দোয়া-দরূদটা কবরের খুব কাছাকাছি থেকেই পড়তে চাই। এছাড়া বাদ জোহর সোনারগাঁ জামে মসজিদে মিলাদ মাহফিল, দোয়া অনুষ্ঠিত হবে। পাশাপাশি অসহায়, এতিম, গরিব, স্কুল থেকে আগত বাচ্চাদের খাওয়ার ব্যবস্থা করা হয়েছে। সবাই আমার আম্মুর জন্য দোয়া করবেন যেন আল্লাহ তাকে বেহেশত নসিব করেন। এদিকে দিতির বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করে এবং তার স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির উদ্যোগে আজ মিলাদ মাহফিল ও স্মরণসভা অনুষ্ঠিত হবে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন সমিতির সাধারণ সম্পাদক অমিত হাসান। তিনি মানবজমিনকে বলেন, দিতি একজন গুণী অভিনয়শিল্পী ছিলেন। শিল্পীদের সঙ্গে তার সম্পর্ক ছিল অনেক মধুর। তার প্রথম মৃত্যুবার্ষিকীতে দোয়া মাহফিলের পাশাপাশি স্মরণসভা হবে। শিল্পী সমিতি প্রাঙ্গণে বাদ আসর এ স্মরণসভার আয়োজন করা হয়েছে। আশা করছি সব শিল্পী এতে উপস্থিত থাকবেন।


 
এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন