আয়কর নথি ফাঁস, ১০ কোটি ডলার লোকসান দেখিয়েছেন ট্রাম্প

বিশ্বজমিন

মানবজমিন ডেস্ক | ১৫ মার্চ ২০১৭, বুধবার
যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্পের বহুল আলোচিত ২০০৫ সালের আয়কর নথি ফাঁস হয়ে গেছে। এতে দেখা যায়, ট্রাম্প তার ব্যবসায় ১০ কোটি ডলার লোকসান দেখিয়েছেন। নির্বাচনের সময় তা বিরুদ্ধে আয়কর ফাঁকি দেয়ার যে অভিযোগ করেছিল ডেমোক্রেটরা তা নতুন করে সামনে চলে এসেছে। তিনি আয়কর ফাঁকি দিয়েছেনÑ এ অভিযোগটিই প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের প্রচারণাকালে জোরালোভাবে তুলে ধরেছিল ডেমোক্রেটরা। তারা তার আয়কর বিবরণী প্রকাশেরও দাবি জানিয়েছিল। বলেছিল, ট্রাম্প আয়কর ফাঁকি দিয়েছেন বলে বিবরণী প্রকাশ করছেন না।
তবে শেষ পর্যন্ত ওই বিবরণী প্রকাশ হয়ে পড়ায় ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া দেখিয়েছে হোয়াইট হাউজ। এ খবর দিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স ও অনলাইন বিবিসি। এতে বলা হয়, ২০০৫ সালে ১০ কোটি ডলার লোকসান দেখিয়ে ট্রাম্প কার্যত শতকরা ২৫ ভাগ হারে ফেডারেল আয়কর দিয়েছেন। উল্লেখ্য, যুক্তরাষ্ট্রে যার যত বেশি অর্থ তার তত বেশি আয়কর। উচ্চ আয়ের লোকেরা শতকরা ২৭.৪ ভাগ হারেও আয়কর দিয়ে থাকেন। সেক্ষেত্রে ট্রাম্পের আয়কর শতকরা ২৫ ভাগ। ট্রাম্পের আয়করের এ নথির দু’টি পৃষ্ঠা হাতে পেয়েছে এমএসএনবিসি নেটওয়ার্ক। এ নেটওয়ার্কের উপস্থাপক র‌্যাচেল ম্যাডো বলেছেন, সাংবাদিক ডেভিড কে জনস্টোনের কাছ থেকে তিনি ওই নথিটি পেয়েছেন। আবার জনস্টোন তা পেয়েছেন মেইলে। মঙ্গলবার এর জবাবে হোয়াইট হাউজ বলেছে, ২০০৫ সালে ট্রাম্পের আয়ের পরিমাণ ছিল ১৫ কোটি ডলারেও বেশি। তার ভিত্তিতে তিনি ৩ কোটি ৮০ লাখ ডলার আয়কর দিয়েছেন। তবে অবকাঠামোখাবে বড় রকম মন্দার বিষয়টি দেখিয়েছেন ট্রাম্প। এমএসএনবিসি তার হাতে পাওয়া আয়কর নিজেদের ওয়েব সাইটে প্রকাশ করেছে। উল্লেখ্য, গত বছর যুক্তরাষ্ট্রে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের প্রচারণা চলাকালে আয়কর বিবরণী প্রকাশ না করার কারণে প্রচ- সমালোচনার মুখে পড়েন যুক্তরাষ্ট্রের বর্তমান প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্প। তা সত্ত্বেও তিনি আয়কর রিটার্ন বা বিবরণী প্রকাশ করতে অস্বীকৃতি জানান। এর ফলে তার রাজনৈতিক প্রতিপক্ষ ধরে নেয় যে, তিনি আয়করের ক্ষেত্রে কিছু লুকাচ্ছেন। ওদিকে অক্টোবরে নিউ ইয়র্ক টাইমস এক প্রতিবেদনে জানায়, নিউ ইয়র্কের রিয়েল এস্টেট ব্যবসায়ী ট্রাম্প ১৯৯৫ সালের আয়কর রিটার্নে ৯১ কোটি ৬০ লাখ ডলার লোকসান দেখিয়েছেন। এতে বলা হয়, এ কারণে তিনি ১৮ বছর পর্যন্ত আয়কর মওকুফ পেয়ে থাকতে পারেন। কিন্তু মঙ্গলবার এমএসএনবিসি যে রিটার্ন প্রকাশ করেছে তাতে দেখা যায় তিনি ২০০৫ সালে আয়কর দিয়েছেন। তবে তিনি অন্য বছরগুলোতে আয়কর দিয়েছেন কিনা সে ইঙ্গিত নেই তাতে। দিয়ে থাকলে কত দিয়েছেন তাও জানা যায নি। গত বছর ওয়াশিংটন পোস্ট এক রিপোর্টে উল্লেখ করে যে, ১৯৭০ এর দশকের শেষের দিকে কমপক্ষে দু’বছর ফেডারেল কোনো আয়করই দেন নি ট্রাম্প। ওদিকে মঙ্গলবার হোয়াইট হাউজ থেকে এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ডনাল্ড ট্রাম্প তার ট্রাম্প অর্গানাইজেশনের প্রধান। আইন অনুযায়ী যতটা দেয়ার কথা তার চেয়ে বেশি আয়কর দেয়ার বাধ্যবাধকতা ছিল না তার ওপর। উল্লেখ্য, যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্টরা ও এ পদের প্রার্থীরা সবাই নিয়মিতভাবে তাদের আয়কর রিটার্ন প্রকাশ করেছেন। এক্ষেত্রে ব্যতিক্রম ট্রাম্প। তিনি যুক্তি দেখিয়েছেন, তার আয়কর রিটার্ন ইন্টারনাল রেভিন্যু সার্ভিস অডিট করছে এ জন্য তিনি তা প্রকাশ করেন নি। তবে বিশেষজ্ঞরা বলেন, ইন্টারনাল রেভিনিউ সার্ভিসের অডিটের কারণে কারো আয়কর রিটার্ন প্রকাশ করতে কোনো বাধা নেই। তাই প্রেসিডেন্ট নির্বাচনী বিতর্কের সময় ডেমোক্রেট দলের প্রার্থী হিলারি ক্লিনটন ট্রাম্পের সমালোচনা করেন আয়কর না দেয়ার জন্য। জবাবে ট্রাম্প বলেছিলেন, এটাই আমাকে স্মার্ট বানিয়েছে। ওদিকে শপথ গ্রহণ করে দায়িত্ব শুরু করার পর থেকেই মিডিয়ার সঙ্গে দ্বন্দ্বে জড়িয়ে পড়েছেন ট্রাম্প। কখনো কখনো তিনি খবরকে ‘মিথ্যা’ বলে আখ্যায়িত করেছেন। তাই মঙ্গলবার হোয়াইট হাউজ বলেছে, অসৎ মিডিয়া তাদের প্রচারণার অংশ হিসেবে কর্মকা- চালিয়ে যেতে পারে অব্যাহতভাবে। তবে প্রেসিডেন্ট তার নিজের কাজে মন দেবেন। এর আওতায় আয়কর রিটার্নে সংস্কারের বিষয় আছে। এতে সুবিধা পাবেন সব মার্কিনি। বিবিসি লিখেছে, সংবাদদাতারা জানাচ্ছেন,  ট্রাম্পের আয়কর নথির দুই পাতা ফাঁস হবার বিষয়টি বেশ তাৎপর্যপূর্ণ। কারণ, তার আয় সম্পর্কে এতদিন খুব কমই জানা গেছে। আয়কর নথি ফাঁস হবার ফলে সম্পদের বিবরণ প্রকাশের জন্য  ট্রাম্পের উপর চাপ বাড়বে বলে ধারণা করা হচ্ছে। আমেরিকার আইন অনুযায়ী কোন ব্যক্তির ফেডারেল আয়কর বিবরণী ফাঁস করা একটি অপরাধ। কিন্তু যে টেলিভিশন নেটওয়ার্ক এ কাজটি করেছে তারা বলছে জনস্বার্থে তারা এটি  প্রকাশ করেছে। যে সাংবাদিক এ কাজ করেছেন তিনি বলেছেন, তিনি একটি অজ্ঞাত সূত্র থেকে খামে ভরা  ট্রাম্পের দুই পাতার আয়কর বিবরণী পেয়ে়ছেন। হোয়াইট হাউজ এক বিবৃতিতে জানিয়ে়ছে, টেলিভিশন চ্যানেলটি নিজেদের খবরের প্রতি মানুষের দৃষ্টি আকর্ষণ করতে বেপরোয়া হয়ে় গেছে। নিজেদের খবরের কাটতি বাড়াতে টেলিভিশন চ্যানেলটি আইনের তোয়াক্কা করছেন না বলেও হোয়াইট হাউজ মন্তব্য করেছে। সেজন্য তারা এক দশক পুরনো আয়কর বিবরণীর দুই পাতা প্রকাশ করেছে বলে উল্লেখ করে হোয়াইট হাউজ।

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

‘অভিযোগ কাল্পনিক ও বানোয়াট’

মইনকে আশ্বস্ত করেছিলেন প্রণব

ব্লু হোয়েল গেম জায়েজ নয়

শেখ হাসিনার অধীনে নির্বাচন চায় জেপি

রোহিঙ্গাদের দেখতে আসছেন জর্ডানের রানী

পেপ্যাল ‘জুম’ সার্ভিস বাংলাদেশে

হাওরে সরকারি প্রকল্পে লুটপাট হয়েছে

প্রার্থী নিয়ে নির্ভার আওয়ামী লীগ-বিএনপি

গণমাধ্যম-সশস্ত্র বাহিনীর সম্পর্ক নিয়ে সেমিনার

সিলেটে ছাত্রলীগের কমিটি বিলুপ্ত, সেক্রেটারিসহ ১০ জনের বিরুদ্ধে মামলা

খালেদা জিয়ার পুরো জবানবন্দি

বরিশালে বিচারকের ভূমিকায় বেঞ্চ সহকারী, তোলপাড়

গাজীপুরে প্রাক্তন তিন সেনা সদস্যসহ ৪জন গ্রেপ্তার

খান আতা ইস্যুতে এফডিসিতে চলচ্চিত্র পরিবারের সংবাদ সম্মেলন

আদালত অঙ্গনে খালেদার আইনজীবীদের হাতাহাতি

বন্যায় ৩০ শতাংশ ধান উৎপাদন কম হতে পারে