এরদোগান-মারকেল উত্তপ্ত বাক্য বিনিময়

বিশ্বজমিন

মানবজমিন ডেস্ক | ১৪ মার্চ ২০১৭, মঙ্গলবার
তুরস্ক ও জার্মানির মধ্যে উত্তপ্ত বাক্য বিনিময় চলছে। দেশ দুটির মধ্যে দেখা দিয়েছে কূটনৈতিক উত্তেজনা। জার্মানি, বিশেষ করে চ্যান্সেলর অ্যাঙ্গেলা মারকেল সন্ত্রাসীদের সমর্থন দিচ্ছেন এমন অভিযোগ করেছেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়্যিপ এরদোগান। এর কড়া জবাব দিয়েছেন মারকেল। তার এক মুখপাত্র বলেছেন, প্ররোচিত হয়ে বিদ্বেষের মাঠে নামার কোনো মানসিকতা নেই মারকেলের। এরদোগান যে অভিযোগ করেছেন তা পুরোপুরি উদ্ভট। উল্লেখ্য, সোমবার তুরস্কের প্রেসিডেন্ট এরদোগান অভিযোগ করেন, আঙ্কারা বার্লিন কর্তৃপক্ষের কাছে সন্দেহভাজন সাড়ে চার হাজার সন্ত্রাসীর তালিকা দিয়েছে। সে বিষয়ে কোনো সাড়া নেই বার্লিনের পক্ষ থেকে। এ-হাবার টেলিভিশনে এরদোগান বলেন, মিসেস মারকেল আপনি কেন আপনার দেশে সন্ত্রাসীদের লুকিয়ে রেখেছেন? কেন আপনি তাদের বিষয়ে কিছুই করছেন না? মিসেস মারকেল আপনি সন্ত্রাসীদের সমর্থন দিচ্ছেন।
দীর্ঘদিন ধরেই জার্মানির বিরুদ্ধে তুরস্কের অভিযোগ তারা কুর্দি বিদ্রোহীদের আশ্রয় দিচ্ছে। গত বছর ১৫ই জুলাই যে ব্যর্থ অভ্যুত্থান ঘটে তাতে জড়িত অনেকে অবস্থান করছে জার্মানিতে। তাদেরকে ফেরত চায় তুরস্ক। ওদিকে তুরস্কের দু’মন্ত্রীকে নেদারল্যান্ডে অবতরণ করে র‌্যালি করতে দেয় নি নেদারল্যান্ডস। এ নিয়ে নেদারল্যান্ডের সঙ্গে তুরস্কের উত্তেজনা তুঙ্গে উঠেছে। এক্ষেত্রে নেদারল্যান্ডসের প্রধানমন্ত্রী মার্ক রুত্তিকে সমর্থন করেন অ্যাঙ্গেলা মারকেল। এর পরই মারকেলের বিরুদ্ধে সমালোচনার তীর ছোড়েন এরদোগান। আগামী ১৬ই এপ্রিল তুরস্কে গণভোট।  প্রেসিডেন্ট এরদোগানকে অসীম ক্ষমতা দেয়া সংক্রান্ত ওই গণভোটের পক্ষে প্রচারণা চালাতে তুর্কি সরকারের পদস্থ লোকজন ইউরোপে র‌্যালি করার চেষ্টা করছেন। এক্ষেত্রে তারা শুধু ফ্রান্সে সফল হয়েছেন। কিন্তু জার্মানি, নেদারল্যান্ডসে তারা ব্যর্থ হয়েছেন। এ দেশগুলোতে তাদেরকে র‌্যালি করতে দেয়া হয় নি। এর ফলে তাদেরকে নাৎসী হিসেবে আখ্যায়িত করেন এরদোগান। ওদিকে তুরস্ক সফরের ক্ষেত্রে ভ্রমণ সতর্কতা আপডেট করেছে জার্মানি ও নেদারল্যান্ডস।
এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন