ভারতে সংখ্যালঘুদের মধ্যে ভয়ের আবহ তৈরি হয়েছে: অমর্ত্য সেন

ভারত

কলকাতা প্রতিনিধি | ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৭, শনিবার | সর্বশেষ আপডেট: ৩:২৫
ভারতে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর জমানায় সংখ্যালঘুদের মধ্যে একটি ভয় ও অনিশ্চয়তার বোধ দেখা দিয়েছে। আতঙ্কের ভাব ছড়িয়েছে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলিতেও। এই অভিমত ব্যক্ত করেছেন নোবেলজয়ী অর্থনীতিবিদ অমর্ত্য সেন। দিল্লিতে ‘ওপেন’ ম্যাগাজিনকে দেওয়া একটি সাক্ষাৎকারে নোবেলজয়ী অর্থনীতিবিদকে মোদি জমানার মূল্যায়ন করতে বলা হলে তিনটি বিষয়ের দিকে তিনি দৃষ্টি আকর্ষণ করেন। এক. শিক্ষা ও স্বাস্থ্য। অমর্ত্য সেন মনে করেন, আগের সরকারও এই জায়গাটিতে যথেষ্ট কাজ করে নি। বর্তমান সরকার তা সংশোধন করার বদলে সমস্যাটা আরও বাড়িয়েছে। এতে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে সরকারের সামাজিক ও অর্থনৈতিক নীতি। দ্বিতীয় বিষয়টি হলো ধর্মনিরপেক্ষতা। অমর্ত্য বলেন, নতুন একটা পরিভাষা চালু হয়েছে ‘ছদ্ম ধর্মনিরপেক্ষতা’। কিন্তু ঘটনা হল, সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের মধ্যে একটা ভয় ও অনিশ্চয়তার বোধ কাজ করছে। আগের সরকারের আমলে এটা ছিল না। এটা বিরাট ব্যর্থতা। ঘটনাচক্রে আমি হিন্দু পরিমন্ডল থেকে উঠে এসেছি। কিন্তু তার মানেই এই নয় যে, আমি হিন্দু আধিপত্য চাইব। বহু ধর্ম, সংস্কৃতি, জাতি বৈচিত্র্যের দেশ ভারত, স্মরণ করিয়ে দেন অমর্ত্য। তৃতীয় যে উদ্বেগের জায়গাটিতে অমর্ত্য সেন আলো ফেলেছেন তা হল, সরকারের চিন্তাভাবনায় খানিকটা বিভ্রান্তি দেখা দিয়েছে। তারা অনেক সময় মনে করছে, সরকার মানেই রাষ্ট্র। অমর্ত্য মনে করেন, বিশ্ববিদ্যালয়গুলির শিক্ষাগত স্বশাসন বিপুলভাবে কমে আসছে। একটা আতঙ্কের হাওয়া ছড়িয়ে গেছে বিশ্ববিদ্যালয় পরিমন্ডলে। জ্ঞানের চর্চায় মত প্রকাশের স্বাধীনতা একান্তই জরুরি। আপনি এমন কিছু বলতে পারবেন না, বা করতে পারবেন না, সরকারের মতে যা ‘ভুল’। কিছু বিষয় নিয়ে তো মুখ খোলা, বলাই উচিত হবে না। যেমন ‘কাশ্মীর’। ‘জাতীয়তাবিরোধী’ বলে অভিযোগ আনা হতে পারে। এমনকী রাষ্ট্রদ্রোহের অভিযোগও আনা হতে পারে। রাষ্ট্রদ্রোহ একটি গুরুতর বিষয়। ভয়ঙ্কর অপব্যবহার হচ্ছে এর।
এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন