১৮ বছর পর নতুন নেতৃত্ব আসছে কৃষক দলে

শেষের পাতা

কাফি কামাল | ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৭, শনিবার | সর্বশেষ আপডেট: ৯:৫৬
১৯৯৮ থেকে ২০১৭। পেরিয়ে গেছে ১৮ বছর। নেতৃত্বের পরিবর্তন ঘটেনি বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী কৃষক দলের। নেতৃত্ব প্রত্যাশীদের কেউ হতাশা থেকে নিষ্ক্রিয়, কেউ বা জড়িয়ে পড়েছেন সমআদর্শের অন্যান্য সংগঠনে। সংগঠনটির সভাপতি ও সিনিয়র সহ-সভাপতির মৃত্যুর পর দ্বিতীয় সহ-সভাপতিও ভারপ্রাপ্তের দায়িত্ব পালন করেছেন ১০ বছর। তিনিও পদ ছেড়েছেন ১১ মাস আগে। দলের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী কমিটির মেয়াদ দুই বছর হলেও বারবার উপেক্ষিত হয়েছে সে বিধি। ফলে নতুন নেতৃত্ব যেমন গড়ে ওঠেনি, তেমনি গতিহীন হয়ে পড়েছে সংগঠন। সরকারবিরোধী রাজপথের আন্দোলন কিংবা কৃষকের অধিকার আদায়ের আন্দোলন কোথাও সক্রিয় ভূমিকা নেই সংগঠনটির। দীর্ঘ দেড় যুগ পর অবশেষে নতুন নেতৃত্ব আসছে কৃষক দলে। আগামী ২৭শে ফেব্রুয়ারি চতুর্থ কাউন্সিলের আয়োজন করেছে সংগঠনটি। কাউন্সিল উপলক্ষে রাজধানী ঢাকার পাশাপাশি বিভাগীয় শহরগুলোতেও চলছে প্রস্তুতি সভা। নতুন করে আশায় বুক বাঁধছেন কৃষক দলের নেতাকর্মীরা। আসন্ন কাউন্সিলেই আসছে পরিবর্তন। নতুন নেতৃত্ব পাচ্ছে কৃষক দল।
সূত্র মতে কৃষক দল গঠনের পর আহ্বায়ক কমিটির মাধ্যমে কয়েক বছর সংগঠনটির কার্যক্রম পরিচালিত হয়। বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা শহীদ জিয়াউর রহমানের মৃত্যুর পর একেবারে নিষ্ক্রিয় পড়ে সংগঠনটি। ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি শামসুজ্জামান দুদু ১৯৮৮ সালে কিছুদিনের জন্য আহ্বায়কের দায়িত্ব পেলেও কেন্দ্রীয়ভাবে সক্রিয় ছিল না কৃষকদলের রাজনীতি। ১৯৯২ সালে দলের দ্বিতীয় জাতীয় সম্মেলনে আবদুল মান্নান ভূঁইয়া সভাপতি ও শামসুজ্জামান দুদু সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পান। ১৯৯৬ সালে মান্নান ভূঁইয়া বিএনপির মহাসচিবের দায়িত্ব পেলে ফের নিষ্ক্রিয় হয়ে পড়ে কৃষক দলের রাজনীতি। সর্বশেষ ১৯৯৮ সালের ১৬ই মে অনুষ্ঠিত হয়েছিল কৃষক দলের তৃতীয় জাতীয় সম্মেলন। সেবার মাহবুবুল আলম তারাকে সভাপতি ও শামসুজ্জামান  দুদুকে সাধারণ সম্পাদক করে গঠিত হয় ১০১ সদস্য বিশিষ্ট পূর্ণাঙ্গ কমিটি। দীর্ঘ ১০ বছর সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন মাহবুবুল আলম তারা। ২০০৮ সালের অষ্টম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মনোনয়ন বঞ্চিত হলে রাগে-ক্ষোভে তিনি যোগ দেন আওয়ামী লীগে। সিনিয়র সহ-সভাপতি মজিবুর রহমান মোল্লা ভারপ্রাপ্ত সভাপতির দায়িত্ব পান। ওয়ান ইলেভেনের সময় বিএনপির তৎকালীন মহাসচিব আবদুল মান্নান ভূঁইয়ার নেতৃত্বে দলের সংস্কারপন্থিদের সঙ্গে জড়িয়ে পড়েন তিনি। সে সময় কার্যত নেতৃত্বশূন্য একটি অবস্থা তৈরি হয় কৃষক দলে। ২০০৭ সালে মজিবুর রহমান মোল্লার মৃত্যুর পর ভারপ্রাপ্ত সভাপতির দায়িত্ব পান কৃষক দলের তৎকালীন দ্বিতীয় সহ-সভাপতি ও বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। ২০১৬ সালের ১৯শে মার্চ বিএনপির ষষ্ঠ জাতীয় কাউন্সিলে দলের গঠনতন্ত্র পরিবর্তনের মাধ্যমে ‘এক নেতা এক পদ’ বিধি যুক্ত করার পর কৃষক দলের ভারপ্রাপ্ত সভাপতির পদ ছেড়ে দেন তিনি। কৃষক দল সূত্র জানায়, মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সভাপতির পদ থেকে অব্যাহতি চেয়ে চিঠি দিলেও এখন পর্যন্ত সেটা অনুমোদন পায়নি। সম্মেলনেই আনুষ্ঠানিকভাবে তিনি দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি পাবেন। সভাপতি পদে তিন নেতার নেতৃত্ব পেলেও সাধারণ সম্পাদকের পরিবর্তন ঘটেনি। সদস্য সচিব ও সাধারণ সম্পাদক মিলিয়ে দীর্ঘ ৩০ বছর ধরেই সংগঠনটির দ্বিতীয় প্রধান ব্যক্তি শামসুজ্জামান দুদু। চারজন সভাপতির অধীনে এ দায়িত্ব পালন করেছেন তিনি। অন্যদিকে ঢাকা মহানগর কৃষক দলের কমিটি হয়েছিল ২০০৬ সালে। নাসির হায়দারকে আহ্বায়ক এবং লুৎফর রহমান (এল রহমান)কে সদস্য সচিব করে গঠিত সে কমিটিও দৃশ্যত নিষ্ক্রিয়। কৃষক দলের নেতাকর্মীরা আক্ষেপ করে বলেন, এক সময় বিএনপির আন্দোলন-সংগ্রামে কৃষক দলের ভূমিকা ছিল অগ্রগামী। এখন তা কেবল ইতিহাস। দীর্ঘ ১৬ বছর ধরে মেয়াদোত্তীর্ণ কমিটিতে কেউ কারও নেতৃত্ব মানেন না। ফলে আন্দোলনে নেতাকর্মীদের মধ্যে কোনো জবাবদিহিতা নেই।
কাউন্সিলকে কেন্দ্র করে ইতিমধ্যে চট্টগ্রাম, ঢাকা, বরিশাল, সিলেট ও কুমিল্লা বিভাগের প্রস্তুতি সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। শনিবার বগুড়ায় ডাকা হয়েছে রংপুর ও রাজশাহী বিভাগের প্রস্তুতি সভা। সব শেষে হবে খুলনা বিভাগের প্রস্তুতি সভা। বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ও কৃষক দলের সাধারণ সম্পাদক শামসুজ্জামান দুদু জানান, ২৭শে ফেব্রুয়ারি রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশনে সম্মেলনের সর্বাত্মক প্রস্তুতি চলছে। কাউন্সিলে ১৬০০ কাউন্সিলর ও ৪০০ ডেলিগেট অংশ নেবেন। সম্মেলনে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া প্রধান অতিথি ও বিএনপি মহাসচিব এবং কৃষক দলের সভাপতি মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর প্রধান বক্তা থাকবেন। আমরা পুলিশ প্রশাসনের কাছে আনুষ্ঠানিক আবেদনও করেছি, কিন্তু এখন পর্যন্ত সম্মেলনের অনুমতি মেলেনি। দীর্ঘদিন ধরে কৃষক দলের কমিটি পুনর্গঠন না হওয়ার বিষয়টি স্বীকার করে বর্তমান সাধারণ সম্পাদক শামসুজ্জামান দুদু বলেন, ১৯৯৮ সালে কমিটি গঠনের ৮ বছরের মাথায় ২০০৬ সালে কাউন্সিল আয়োজনের উদ্যোগ নেয়া হয়েছিল। দেশের তৎকালীন রাজনৈতিক উত্তপ্ত পরিস্থিতি ও পরে ওয়ান ইলেভেন সরকারের কারণে সেটা সম্ভব হয়নি। সে দুঃসময়ে সভাপতির দায়িত্ব পান মির্জা আলমগীর। ২০১০ সালে আরেকবার সম্মেলনের উদ্যোগ নিয়েও নানা প্রতিকূল পরিস্থিতির কারণে তা করা সম্ভব হয়নি। পরে আমরা একটি বর্ধিত সভা করে নানা বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিয়েছি। কেন্দ্রীয় কমিটি পুনর্গঠন করা না গেলেও আমাদের জেলা কমিটিগুলোর ৯০ ভাগই হালনাগাদ।
কাউন্সিলকে কেন্দ্র করে কৃষক দলের নতুন নেতৃত্বে কারা আসছেন এ নিয়ে নানা গুঞ্জন চলছে সংগঠনটির অভ্যন্তরে। সংগঠনের একাংশ চাইছে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান পদের পাশাপাশি কৃষক দলের সভাপতি হিসেবে শামসুজ্জামান দুদুকে দায়িত্ব দেয়া হোক। অভিজ্ঞ ও কর্মীবান্ধব হওয়ায় অনেকেই তাকে নতুন কমিটির সভাপতি পদে দেখতে চান। তবে বিএনপির ‘এক নেতা এক পদ নীতি’র বাস্তবায়ন প্রত্যাশী নেতাকর্মীরা নতুন কাউকে চাইছেন। সেটা বাস্তবায়নে বিএনপির শীর্ষ নেতৃত্ব দৃঢ় প্রতিজ্ঞ হলে দুদুর পুনরায় কৃষক দলে আসার সম্ভাবনা ক্ষীণ। পরিবর্তনকামীরা বলছেন, ছাত্রদলের সাবেক কেন্দ্রীয় নেতাদের মধ্যে যারা বিএনপি বা অন্যান্য অঙ্গসংগঠনে পদ-পদবি পাননি কিন্তু সংগঠক হিসেবে দক্ষ তাদের নেতৃত্ব দিলেই সংগঠনে গতি ফিরে আসবে। দীর্ঘদিন ধরে মেয়াদোত্তীর্ণ কমিটির কারণে এ সংগঠনের সভাপতি হিসেবে কাজ করতে প্রকাশ্যে তেমন আগ্রহ প্রকাশ করেনি বিএনপির কোনো কেন্দ্রীয় নেতা। ফলে কৃষক দলের সভাপতি পদে উল্লেখযোগ্যভাবে অন্য কারও নাম আলোচনা নেই। যদিও নেতাকর্মীদের কেউ কেউ আলাপকালে বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আবুল খায়ের ভূঁইয়া ও দলের নির্বাহী কমিটির সদস্য নাজিমউদ্দিন আলমের নাম সম্ভাব্য হিসেবে উল্লেখ করেন। সাধারণ সম্পাদক পদে আলোচনায় রয়েছেন বর্তমান সহসভাপতি এমএ তাহের, উপদেষ্টা নাজমুল আলম লাল, যুগ্ম-সম্পাদক তকদির হোসেন মো. জসিম ও সহ-সম্পাদক জামাল উদ্দিন খান মিলন। বিএনপির একাধিক দায়িত্বশীল নেতা জানান, কৃষক দলের নতুন কমিটিতে এমন কিছু নেতা আসতে পারেন যারা এখন আলোচনায় নেই। এমনকি ঢাকার বাইরে থেকেও অনেকেই আসতে পারে। অন্যদিকে ঢাকা মহানগর কমিটির আহ্বায়ক নাসির হায়দার ও এল রহমান নতুন কমিটিতে গুরুত্বপূর্ণ পদ প্রত্যাশী। বিকেন্দ্রীকরণের মাধ্যমে নেতৃত্ব গতিশীল করতে ঢাকা মহানগর কমিটিতে উত্তর-দক্ষিণ দুইভাগ করার আলোচনাও রয়েছে কৃষক দলে। সম্ভাব্য ঢাকা মহানগর উত্তরের শীর্ষ দুই পদে রামপুরার আছাদুল হারিছ ডল, বাড্ডার মোরশেদ আলম, কাফরুলের মো. সোহেল ও মিরপুরের এসএমজে মাসুুদের শোনা যাচ্ছে। একইভাবে সম্ভাব্য ঢাকা মহানগর দক্ষিণে শাহবাগের জাহাঙ্গীর আলম,  কদমতলীর ইয়ার হোসেন ববি, মুগদার হারুন শিকদার, কামরাঙ্গীরচরের কামাল হোসেন, বংশালের আবদুল রাজী ও লালবাগের মোয়াজ্জেম হোসেন বাদশার নাম আলোচনায় রয়েছে। দলের নতুন নেতৃত্ব নিয়ে শামসুজ্জামান দুদু বলেন, কৃষি এখনও বাংলাদেশের প্রাণ। কৃষক দলের রাজনীতি তাই গতিশীল এবং সক্রিয় হওয়াই বাঞ্ছনীয়। সংগঠনকে শক্তিশালী ও নেতৃত্বের বিকাশেই জাতীয় সম্মেলন আয়োজন করা হয়েছে। আমি ব্যক্তিগতভাবে মনে করি সংগঠনে তরুণ নেতৃত্বের প্রয়োজন। কৃষক দলের বর্তমান নেতৃবৃন্দের পাশাপাশি কৃষির সঙ্গে যারা সম্পৃক্ত, কৃষি বিষয়ে যারা একাডেমিকভাবে উচ্চশিক্ষিত কিংবা কৃষির ব্যাপারে উৎসাহী এবং ছাত্রদল-যুবদল ও অন্য অঙ্গসংগঠনের দায়িত্ব পালন করা নেতৃবৃন্দ যারা কৃষক দলে কাজ করতে আগ্রহী তাদের মধ্য থেকেই নতুন নেতৃত্ব আসবে। আমার বিশ্বাস নতুন কমিটিতে অন্তত ৭০ভাগ নতুন নেতৃত্ব আসবে। নিজে সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালনে আগ্রহী কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ছাত্রদল ও কৃষক দলের পাশাপাশি দীর্ঘদিন ধরে বিএনপির কেন্দ্রীয় রাজনীতিতে নানা পদে দায়িত্ব পালন করে আসছি। এখানে আমাকে ওই পদে দিতে হবে তেমন কোন দাবি বা আগ্রহ আমার নেই। এছাড়া বিএনপিতে ‘এক নেতা এক পদ নীতি’র যে সংযোজন করা হয়েছে সে সিদ্ধান্তটিও গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়। সবকিছু বিবেচনা করে আমাদের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া যে সিদ্ধান্ত নেবেন সেটাই মেনে নেবো। কৃষক দলের দায়িত্ব দিলে সেখানে কাজ করবো, নইলে বিএনপিতে আরো বেশি সক্রিয় হবো। সেক্ষেত্রে নতুন যে নেতৃত্ব এলে স্বাগত জানাবো।

 

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

যুদ্ধ নয় আলোচনায় সমাধান

সিইসি’র বক্তব্য কৌশল হতে পারে

আড়াই ঘণ্টা আলোচনার পর হঠাৎ সংলাপ বয়কট

বর্মী সেনা কর্মকর্তাদের ওপর ইইউ’র নিষেধাজ্ঞা

বাংলাদেশ পরিস্থিতির দিকে নজর রাখছে দিল্লি

কাল ফিরছেন খালেদা ব্যাপক শোডাউনের প্রস্তুতি

সিলেটে সেক্রেটারি গ্রুপের হাতে ছাত্রলীগ কর্মী নিহত

চট্টগ্রাম ও গাজীপুরের দুই শিক্ষার্থী ফাঁদে

‘আসিয়ানে চাপ বাড়ালেই রোহিঙ্গাদের ফেরানো সম্ভব’

এক দিনেই ঢুকলো ২০ হাজার রোহিঙ্গা

ডাকসু’র খোঁজ নিলেন প্রেসিডেন্ট

হেয়ার রোডে ১২ দিন

রাশিয়ায় আইপিইউ সম্মেলনে এমার্জেন্সি আইটেম রোহিঙ্গা ইস্যু

রাধিকাপুর চেকপোস্ট সাময়িক বন্ধ

হাত কেটে তিমি আঁকার 'ভিডিও উদ্ধার'

ঢাকনাযুক্ত যানে রাতের বেলায় বর্জ্য অপসারণের নির্দেশ