‘নির্বাচনকালীন সরকারের প্রধান থাকবেন শেখ হাসিনা’

অনলাইন

স্টাফ রিপোর্টার | ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৭, শুক্রবার, ৬:৩২
আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, বিশ্বের অন্যান্য সংসদীয় গণতান্ত্রিক দেশের মত বাংলাদেশেও জাতীয় সংসদ নির্বাচনকালীন সরকারের প্রধান থাকবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আর নির্বাচন কমিশন (ইসি)’র অধীনে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। বিশ্বের অন্যান্য সংসদীয় গণতান্ত্রিক দেশে যেভাবে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় আমাদের দেশেও সেভাবেই নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।
শুক্রবার রাজধানীর সেগুনবাগিচাস্থ শিল্পকলা একাডেমীর মহড়া কক্ষে বিশিষ্ট পরমানু বিজ্ঞানী ড. ওয়াজেদ মিয়ার ৭৫ তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটের উদ্যোগে আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। জোটের কার্যকরি সভাপতি সৈয়দ হাসান ইমামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহে আলম মুরাদ, ওয়ার্ল্ড ইউনিভার্সিটির ভিসি অধ্যাপক ড. আব্দুল মান্নান চৌধুরী, বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটের সহ-সভাপতি ড. ইনামুল হক, শিল্পকলা একাডেমীর মহাপরিচালক লিয়াকত আলী লাকী ও আওয়ামী লীগ নেতা এডভোকেট বলরাম পোদ্দার। বন ও পরিবেশ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি ড. হাছান মাহমুদ বলেন, গত জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশগ্রহণের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিএনপি নেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে আহবান জানিয়েছিলেন। কিন্তু বিএনপি-জামায়াত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আহবান প্রত্যাখ্যান করে নির্বাচন প্রতিহত করার পথ বেছে নিয়েছিলেন।
তিনি বলেন, বিএনপির এ ভুল রাজনীতির জন্য তারা জনগণ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছেন। আগামী নির্বাচনে বিএনপি আর এ ধরনের আত্মহননের পথ বেছে নেবেন না বলে মনে হয়।
তিনি বলেন, গত জাতীয় সংসদ নির্বাচন যেমন কারো জন্য থেমে ছিল না তেমনি আগামী জাতীয় নির্বাচনও কারও জন্য বসে থাকবে না। নির্ধারিত সময় শেষেই আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। বেগম খালেদা জিয়াকে জেলে পাঠানোর কোন ইচ্ছা সরকারের নেই- উল্লেখ করে তিনি বলেন, তাকে (বেগম জিয়া) জেলে পাঠানোর কোন ইচ্ছা সরকারের নেই। আদালত এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবে। এ বিষয়ে তিনি বলেন, বেগম খালেদা জিয়া দুর্নীতি করে থাকলে তার বিচার হবে। আর তা না করলে খালাস পাবে। এ বিষয়ে সরকারের কোন এখতিয়ার নেই। আদালতের রায়ই চূড়ান্ত। ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) ব্যবহারে বিএনপির বক্তব্যের জবাবে ড. হাছান বলেন, বেগম খালেদা জিয়া তার জ্ঞানের স্বল্পতার জন্য ইভিএম ব্যবহারের বিষয়ে শঙ্কা প্রকাশ করেছেন। কারণ ইভিএম একটি আধুনিক পদ্ধতি। প্রযুক্তিগত এ পদ্ধতি সম্পর্কে জানার জন্য শিক্ষাগত যোগ্যতা থাকা আবশ্যক। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আগামী নির্বাচনে ইভিএম পদ্ধতি ব্যবহারের বিষয়ে মতামত ব্যক্ত করেছেন। আর নির্বাচন কমিশন (ইসি) এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেবেন।
ড. হাছান বলেন, বিদেশে তথ্য পাচার হয়ে যাওয়ার ভয়ে বিএনপি সরকার সাবমেরিন ক্যাবল স্থাপন করেনি। কিন্তু বর্তমান সরকার ক্ষমতায় থাকার সময়ে সাবমেরিন ক্যাবল স্থাপনের সিদ্ধান্ত নিলেও কোন তথ্য বিদেশে পাচার হয়ে যায়নি।


 

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

shibli

২০১৭-০২-১৭ ১১:০১:২১

"প্রযুক্তিগত এ পদ্ধতি সম্পর্কে জানার জন্য শিক্ষাগত যোগ্যতা থাকা আবশ্যক।" তাহলে বাংলাদেশের অনেক ভোটার ইভিএম পদ্ধতিতে ভোট দিতে পারবে না!

a-z

২০১৭-০২-১৭ ০৭:০৬:৫০

Who gave you authority to anaunce this?

আপনার মতামত দিন

লিভারপুলকে সেভিয়ার চমক

ক্যাচ মিসের খেসারত দিলো ঢাকা

মুগাবের পদত্যাগ, জিম্বাবুয়েজুড়ে উল্লাস

রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে চীনের প্রস্তাব, যা বললেন মুখপাত্র...

তিন বাহিনীকে আধুনিক করতে সবই করবে সরকার

নিজেদের কার্যালয়ে এজাহার দায়েরের ক্ষমতা চায় দুদক

জাতিসংঘের সম্পৃক্ততায় আপত্তি মিয়ানমারের

চলতি সপ্তাহেই সমঝোতার আশা সুচির

বিচারক রেফারি মাত্র

বাংলাদেশে বসবাসকারী রোহিঙ্গা নেতা নিখোঁজ

অভিশংসনের মুখে মুগাবে

মাঠ গোছাতে ব্যস্ত প্রার্থীরা

নিজাম হাজারীর লোকজন খালেদা জিয়ার গাড়িবহরে হামলা করে

মোবাইল ব্যাংকিংয়ের নামে লুটপাট চলছে

দুদকের মামলা থেকে অব্যাহতি পেলেন মেয়র সাক্কু

স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন টিটু রায়