খাতায় প্রেমপত্র লিখে শাস্তির মুখে ১০ ছাত্র

রকমারি

| ১১ ফেব্রুয়ারি ২০১৭, শনিবার | সর্বশেষ আপডেট: ৩:২১
উত্তরপত্রে হিন্দি গানের কলি ও প্রেমপত্র লিখে আসা বালুরঘাট আইন কলেজের ১০ পরীক্ষার্থীর রেজিস্ট্রেশন বাতিলের সুপারিশ করল গৌড়বঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয়ের পরীক্ষা নিয়ামক কমিটি। ১৮ ফেব্রুয়ারি বিশ্ববিদ্যালয়ের এক্সিকিউটিভ কাউন্সিলের সভায় ওই সুপারিশ করা হবে। তার আগে সংশ্লিষ্ট পরীক্ষার্থীদের ডেকে কোনও কৈফিয়ত তলব করতে রাজি নয় পরীক্ষা নিয়ামক কমিটি।

তাঁদের সাফ কথা, ওই পরীক্ষার্থীরা পরীক্ষাপত্রে কী কী লিখেছে তার প্রমাণ রয়েছে। তবে ইসির সদস্যরা যদি ওই পরীক্ষার্থীদের ডেকে বক্তব্য শুনতে চায়, তা শুনতেই পারে। এ দিকে, বালুরঘাট আইন কলেজের দ্বিতীয় ও চতুর্থ সেমেস্টারের পরীক্ষার ফলাফলও হতাশাজনক। দু’টি পরীক্ষাতেই অর্ধেক পরীক্ষার্থী ফেল করেছে। বাকিদের অধিকাংশই কয়েকটি বিষয়ে পাশ করে কোনওরকমে যোগ্যতামান বজায় রেখেছে।

গত মাসের শেষে বালুরঘাট আইন কলেজের দ্বিতীয় ও চতুর্থ সেমেস্টারের পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশিত হয়। গৌড়বঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা গিয়েছে, দ্বিতীয় সেমেস্টারে ১৮২ ছাত্রছাত্রী পরীক্ষা দিয়েছিলেন। তাঁদের মধ্যে সব বিষয়ে পাশ করেছে মাত্র ২৫ জন। ৪৪ জন একটি বিষয়ে ও ২২ জন দু’টি বিষয়ে ফেল করে যোগ্যতামান বজায় রাখে। বাকি ৯১ জনই পরীক্ষায় অকৃতকার্য হন। চতুর্থ সেমেস্টারে ৭২ জন পরীক্ষা দিয়েছিলেন। মাত্র এক
জনই সমস্ত বিষয়ে পাশ করে। ৩৬ জন কোনও রকমে যোগ্যতামান বজায় রাখে।

কিন্তু সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য ঘটনা হল, দ্বিতীয় সেমেস্টারের ১০ পরীক্ষার্থীর উত্তরপত্র দেখতে গিয়ে গৌড়বঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপকদের চোখ কপালে চড়কে ওঠে। তাঁরা জানান, চার পরীক্ষার্থী পরীক্ষার খাতার ছত্রে ছত্রে প্রেমপত্র লিখে এসেছেন। দু’জন প্রেমপত্রের পাশাপাশি কিশোর কুমারের গাওয়া হিন্দি গানের কলিও লিখেছেন। দু’জন আবার পরীক্ষার দিনের ঘটনাবলী নিয়ে গল্প লিখেছেন। কিছু আপত্তিকর ভাষাও কয়েক জন ব্যবহার করেন বলে তাঁদের অভিযোগ।

কিন্তু, পাশ করানোর দাবিতে গত ২৭ জানুয়ারি ওই পরীক্ষার্থীরাই বালুরঘাট আইন কলেজে বিক্ষোভে সামিল হয়েছিলেন। তা নিয়ে বিভিন্নমহলে নিন্দার ঝড় ওঠে। শাসকদলের ছাত্র সংগঠনও দলের নির্দেশে ওই পরীক্ষার্থীদের পাশ থেকে সরে দাঁড়ায়। এমনকী বালুরঘাটের সাংসদ অর্পিতা ঘোষও কড়া মনোভাব দেখান। এ বার গৌড়বঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষও ওই পরীক্ষার্থীদের বিরুদ্ধে কড়া পদক্ষেপ করতে চলেছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের পরীক্ষাসমূহের নিয়ামক সনাতন দাস বলেন, ‘‘বালুরঘাট আইন কলেজের ওই ১০ জন পরীক্ষার্থীর রেজিস্ট্রেশন বাতিলের জন্য আমরা  ইসির কাছে সুপারিশ করছি। ইসির সদস্যরাই চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবেন। সুপারিশ করার ব্যাপারে পরীক্ষা কমিটি প্রাথমিকভাবে সিদ্ধান্ত নিয়ে রেখেছে। তবুও ১৮ তারিখের ইসি সভার আগে কমিটির ১১ জন সদস্য আমরা বসে নেব। এ সব বরদাস্ত করা হবে না।’’

সুত্রঃ আনন্দবাজার পত্রিকা
এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন