কুবিতে ক্লাস-পরীক্ষা চালুর দাবিতে শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন

শিক্ষাঙ্গন

কুবি প্রতিনিধি | ২২ জানুয়ারি ২০১৭, রবিবার | সর্বশেষ আপডেট: ৫:২৬
কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ে (কুবি) শিক্ষকের বাসায় ডাকাতির ঘটনায় শিক্ষক সমিতির ক্লাস ও পরীক্ষা বর্জনের প্রতিবাদে মানববন্ধন করেছে বিশ্ববিদ্যালয় সাধারণ শিক্ষার্থী পরিষদ। রোববার সকাল ১১টায় বিশ্ববিদ্যলয়ের প্রধান ফটকের সামনে তারা এ মানববন্ধন করে। পরে তারা ২৩ জানুয়ারির মধ্যে ক্লাস পরীক্ষা চালুসহ ১১ দফা দাবি সম্বলিত উপাচার্য বরাবর  একটি স্মারকলিপি প্রদান করে। ২৩ জানুয়ারির মধ্যে ক্লাস ও পরীক্ষা চালু না হলে  লাগাতার কর্মসূচি দেয়ারও ঘোষণা দেয় শিক্ষার্থীরা।
ক্যাম্পাস সূত্রে জানা যায়, গত মঙ্গলবার ভোর ৪টার দিকে একাউন্টিং এন্ড ইনফরমেশন সিস্টেমস বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ও বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির কোষাধ্যক্ষ তারিক হোসেন এবং অর্থনীতি বিভাগের প্রভাষক মোছা. আশিখা  আক্তারের বাসায় ১০-১২ জনের  ডাকাতদল তাদের বাসার দরজা ভেঙ্গে ডাকাতির চেষ্টা করে। এ ঘটনায় পর দিন সকাল বেলা বিশ্ববিদ্যালয় উপাচার্য, ট্রেজারার, রেজিস্ট্রার প্রক্টরসহ বিশ্ববিদ্যলয় শিক্ষক নেতারা  এবং পুলিশ প্রশাসন ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। এই ঘটনায় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন মামলা না  করায় বিশ্ববিদ্যলয় শিক্ষক সমিতি রোববার থেকে লাগাতার ক্লাস ও পরীক্ষা বর্জন করে।
শিক্ষক সমিতির ক্লাস বর্জনের প্রতিবাদ ও ক্লাস পরীক্ষা চালুর দাবিতে রোববার ক্যাম্পাসের প্রধান ফটকের সামনে মানববন্ধন করেছে  বিশ্ববিদ্যলয় সাধারণ শিক্ষার্থীদের সংগঠন সাধারণ শিক্ষার্থী পরিষদ।
পরে তারা ২৩ জানুয়ারি থেকে ক্লাস পরীক্ষা চালু ও শিক্ষকের ওপর হামলার প্রতিবাদসহ ১১ দফা দাবিতে উপাচার্য বরাবর স্মারকলিপি প্রদান করে। স্মারক লিপিতে তারা উল্লেখ করে, শিক্ষকদের বাসায় যে  ডাকাতি হয়েছে আমরা তার তীব্র নিন্দা  ও সুষ্ঠ তদন্তের মাধ্যমে বিচারের দাবি জানাই। কিন্তু এই কারণে  যে আমাদের ক্লাস ও পরীক্ষা বন্ধ হয়ে আছে তা সম্পূর্ণ  অযৌক্তিক। তাই অনতি  বিলম্বে আমাদের ক্লাস ও পরীক্ষা চালু করার দাবি জানাচ্ছি।
জানতে চাওয়া হলে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. মোঃ আলী আশরাফ বলেন, শিক্ষকের বাসায় ডাকাতির ঘটনায় আমি কোন লিখিত অভিযোগ পাইনি। তারপরও ঘটনার পরেই আমি, ট্রেজারার, রেজিস্ট্রার ও প্রক্টর ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। সাথে সাথে পুলিশ প্রশাসনকে জানিয়েছি এবং দ্রুত ব্যবস্থা নিতে তাদের অনুরোধ করেছি। মামলার বিষয়ে আমরা পুলিশ প্রশাসনের সাথে কথা বলেছি তারা আমাদের জানিয়েছে যেহেতু এটা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাইরের ঘটনা সে ক্ষেত্রে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন নয় ভিকটিম নিজেই মামলা করতে হবে।
সাধারণ শিক্ষার্থীদের দাবির বিষয়ে তিনি বলেন, শিক্ষক সমিতির সাথে কথা বলে তাদেরকে ক্লাসে ফিরে আসার অনুরোধ করবো। কারণ শিক্ষক ও শিক্ষার্থীই ক্যাম্পাসের প্রাণ। এছাড়াও শিক্ষার্থীদের অন্য দাবিগুলোও ক্রমান্বয়ে পূরণ করা হবে।

 

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

শাওন

২০১৭-০১-২৩ ০০:৩৪:৫৭

আধুনিক যুগের শিক্ষকদের যুক্তি আর বিবেক দুইটাই অপ্রতুল।যা আছে তা বানিজ্যিক চিন্তাভাবনা।

আপনার মতামত দিন

যুদ্ধাপরাধের ২৯তম রায়ের আপেক্ষা

ঈদে মিলাদুন্নবী নিয়ে চাঁদ দেখা কমিটির সভা কাল

সিরিয়া ইস্যুতে আবারো রাশিয়ার ভেটো

হারিরির সৌদি আরব ত্যাগ

ঢাকায় চীন-বাংলাদেশ বৈঠক শুরু

প্যারাডাইস পেপারসে শিল্পপতি মিন্টু ও তার পরিবারের নাম

ঝুঁকিপূর্ণ উপায়ে আসছে রোহিঙ্গারা, ইউএনএইচসিআরের উদ্বেগ

নৌকায় বসেই ভাষণ দেবেন শেখ হাসিনা

‘নতুনরা সব সময় পরিবর্তন নিয়ে আসে’

নিজ দলে বিদ্রোহ, আজ মুগাবের পদত্যাগ দাবিতে বিক্ষোভ

ছোট্ট শিশুদের দুর্নীতির প্রশিক্ষণ

ছাত্রদল সাধারণ সম্পাদক গ্রেপ্তার

রাবিতে হলের সামনে থেকে ছাত্রী অপহৃত

সীমানা বিন্যাস আইন নিয়ে বিপাকে ইসি

সেনা অভ্যুত্থানের পর প্রথম জনসমক্ষে মুগাবে

ইরাক ও ইসরায়েল সুন্দরী একসঙ্গে সেলফি তুলে বিপাকে