বাড়িতে একা কিশোরী, জীবন্ত হয়ে উঠল খেলার সঙ্গী

রকমারি

এবেলা.ইন | ১৩ জানুয়ারি ২০১৭, শুক্রবার | সর্বশেষ আপডেট: ৪:৩৮
ফাঁকা বাড়িতে বসে নিজের মনে খেলছিল বাচ্চা মেয়েটি। অদূরেই রাখা ছিল পুতুলটি। বসানো অবস্থায়। তার পরই ঘটল সেই অবিশ্বাস্য ঘটনা। অশরীরী আত্মার অস্তিত্বে আপনার বিশ্বাস থাকতে পারে, না-ও পারে। কিন্তু পৃথিবীতে এমন অনেক কিছু ঘটে, যা ভূতে অবিশ্বাসীদেরও নতুন করে ভাবায়। সম্প্রতি তেমনই এক ঘটনার ভিডিও ভাইরাল হয়েছে নেট-দুনিয়ায়। 
ঘটনাটি এই দেশের নয়। এক জনপ্রিয় স্প্যানিশ পেজে সর্বপ্রথম এই ঘটনাটি প্রকাশ্যে আনা হয়। পেজটি অশরীরী, প্রেতলোক সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে গবেষণা করে। সম্প্রতি যে ভিডিওটি ছাড়া হয়েছে পেজের তরফ থেকে, তা আসলে একটি বাড়ির ভিতরকার সিসিটিভি ক্যামেরা ফুটেজ। ওই বাড়ির সব চেয়ে ছোট সদস্য একটি বছর দশেকের মেয়ে। জানা গিয়েছে, সে তার বাবাকে দীর্ঘ দিন ধরেই বলছিল, বড়দের অনুপস্থিতিতে ফাঁকা ঘরে কিছু একটা তাঁকে বিব্রত করে। প্রথমে মেয়ের কথা মজার ছলেই নিয়েছিলেন বাবা। কিন্তু মেয়েটি একই কথা বার বার বলতে থাকায় অবশেষে কৌতূহলবশত বাবা  বাড়ির সর্বত্র সিসিটিভি ক্যামেরা বসান। এই ক্যামেরার ভিডিও ফুটেজ দেখেই চোখ কপালে উঠেছে প্যারানরমালবিদদের।
ভিডিও-ও দু’টি ঘটনা তুলে ধরা হয়েছে। প্রথম ঘটনায় দেখা যাচ্ছে, মেয়েটি ফাঁকা ঘরে বসে একমনে খেলছে। তার অদূরেই রাখা রয়েছে একটি পুতুল। বসানো অবস্থায়। প্রথমটায় পুরো বিষয়টা স্বাভাবিক লাগলেও একটু পরেই দেখা যায় অদূরে থাকা পুতুলটি ঘাড় নাড়াচ্ছে। মেয়েটির অবশ্য সে দিকে নজর নেই।
দ্বিতীয় ঘটনাটি আরও বিস্ময়কর। মেয়েটি ছবি আঁকছিল পেনসিল জাতীয় কিছু দিয়ে। তার পাশেই রাখা ছিল অনেকগুলো সাদা ড্রইং পেজ। বন্ধ ঘরে আচমকা ড্রইং পেজগুলো হাওয়ায় উড়তে থাকে। মেয়েটি ভয় পেয়ে ঘর থেকে চলে যায়, এবং খানিক বাদেই আবার ঘরে ফিরে আসে। তার সামনেই এ বার টেবিলে থাকা জিনিসগুলো পড়ে যায় মাটিতে। ঠিক যেন অদৃশ্য কেউ শক্তি প্রয়োগ করে ফেলে দিচ্ছে।
ভিডিওটি প্রচার হওয়ার পর থেকেই তর্ক-বিতর্ক শুরু হয়েছে। অনেকেই মন্তব্য করেছেন, জনপ্রিয়তা পাওয়ার জন্য এটি এক ধরনের কারসাজি। খুব সূক্ষ্ম কোনও দড়ি জাতীয় কিছু দিয়ে টেনে পুতুলের ঘাড় নাড়ানো হয়েছে প্রথম ঘটনায়। দ্বিতীয় ঘটনার ক্ষেত্রে আবার অন্য কোনও কারচুপি করা হয়েছে। আবার ভিডিও দেখে ভয় পেয়েছেন— এমন মানুষের সংখ্যাও কম নয়। সব মিলিয়ে জলঘোলা হচ্ছে এই ঘটনাটি নিয়ে।
এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন