‘ধোনি অধিনায়ক নয় বলে যুবরাজ দলে’

খেলা

স্পোর্টস ডেস্ক | ১২ জানুয়ারি ২০১৭, বৃহস্পতিবার | সর্বশেষ আপডেট: ২:০২
যুবরাজ সিংয়ের বাবা যোগজার সিং ফের মহেন্দ্র সিং ধোনির সমালোচনা করলেন। ধোনি ভারতের অধিনায়ক নয় বলে তার ছেলে ফের ভারতীয় দলে ডাক পেয়েছে বলে মন্তব্য করলেন তিনি। ২০১৫ সালের বিশ্বকাপে ভারতীয় দলে ছিলেন না যুবরাজ সিং। তখন ধোনিকে দুষেছিলেন যোগরাজ। বলেছিলেন, ‘ধোনির কারণেই যুবরাজ বিশ্বকাপ দলে নেই। সে খুবই অহঙ্কারী ও একগুয়ে। রাবণের মতো অহঙ্কারী। একদিন এটা তাকে ভোগাবে। রাবণের অহঙ্কার যেমন একদিন পতন হয়েছিল ধোনিরও ঠিক তেমন পতন হবে। তখন তাকে মানুষের দ্বারেদ্বারে ঘুরতে হবে।’ কয়েকদিন আগে ভারতের ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি দলের নেতৃত্ব ছেড়েছেন মহেন্দ্র সিং ধোনি। তারপরই ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি দল ঘোষণা করে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড। বিরাট কোহলির নেতৃত্বের ওই দুই দলেই রাখা হয় যুবরাজ সিংকে। ২০১৩ সালের পর ওয়ানডে ও ২০১৬ সালের মার্চের পর দেশের হয়ে টি-টোয়েন্টি খেলবেন তিনি। যুবরাজের এই দলে ফেরার পেছনে মহেন্দ্র সিং ধোনির অধিনায়ক না থাকা বলে মনে করেন যোগরাজ সিং। যুবরাজের বাবা বলেন, ‘ধোনি ভারতের অধিনায়ক নয় বলে দলে ফিরেছে যুবরাজ। আমি দুই বছর আগেই বলেছিলাম, ধোনি যদি অধিনায়ক না থাকে তাহলে যুবরাজ দলে ফিরবে। আমার কথাই এখন সত্যি হলো।’ তবে বাবার কথাকে তেমন গুরুত্ব দিচ্ছেন না যুবরাজ সিং। যোগরাজ সিংয়ের ওই মন্তব্যের দিন তিনি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছোট্ট একটি ভিডিও ছাড়েন। সেখানে ধোনির কাঁধের ওপর হাত রেখে যুবরাজ বলছেন, ‘অধিনায়ক হিসেবে দারুণ করেছ ধোনি। তিনটি বড় শিরোপা ও দু’টি বিশ্বকাপ জিতেছ। পুরোনো ধোনিকে সময় কখনো ভুলে যাবে না।’
এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

গুরুতর অসুস্থ ডিপজলকে নিয়ে সিঙ্গাপুর রওনা দিয়েছে এয়ার অ্যাম্বুলেন্স

‘মেডিকেল ও ডেন্টাল ভর্তি পরীক্ষার মান সমুন্নত রাখতে কোনো আপোষ করা হবে না’

ডিসেম্বরের মধ্যে চালু হচ্ছে ফোরজি

অসহায় মায়ের পাশে প্রশাসন

রোহিঙ্গাদের ছড়িয়ে পড়া ঠেকাতে কক্সবাজারে ২৫ চেকপোস্ট

অস্ত্র ও মাদকসহ যুবলীগ নেতা গ্রেপ্তার

রোহিঙ্গা শরণার্থীদের সাহায্য করতে সেনাবাহিনীকে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ

নির্বাচন কমিশনের হাতে পূর্ণ ক্ষমতা রাখার দাবি গণফোরামের

সরকার নিজেই চালের সংকট সৃষ্টি করেছে: ফখরুল

মুন্সীগঞ্জে টেক্সটাইল ফ্যাক্টরিতে অগ্নিকাণ্ডে নিহত ৬

ভারতের দিকে তাকিয়ে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গা হিন্দুরা