ওয়ান-ইলেভেনের মতো একটি ষড়যন্ত্র চারদিকে ঘুরছে: গয়েশ্বর

দেশ বিদেশ

স্টাফ রিপোর্টার | ১২ জানুয়ারি ২০১৭, বৃহস্পতিবার
ওয়ান-ইলেভেনের মতো আরেকটি ষড়যন্ত্র ঘুরছে বলে দলের নেতাকর্মীদের সতর্ক করেছেন বিএনপি স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়। তিনি বলেন, ওয়ান-ইলেভেনের সময় বাংলাদেশের গণতান্ত্রিক এবং রাজনৈতিক ব্যবস্থা শূন্য করার ষড়যন্ত্র হয়েছিল। ওয়ান-ইলেভেনের মতো আরেকটি ষড়যন্ত্র বাংলাদেশের চারদিকে ঘুরছে। এই ষড়যন্ত্র কিন্তু অনেক শক্তিশালী। ষড়যন্ত্র থেকে বিএনপি নেতাকর্মীদেরকে সতর্ক থাকার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, কোনো ষড়যন্ত্রই বিএনপিকে নির্মূল করতে পারবে না। আপনারা সোচ্চার থাকুন।
গতকাল জাতীয় প্রেস ক্লাবে ডেমোক্রেটিক মুভমেন্ট আয়োজিত ‘ষড়যন্ত্র ও ওয়ান-ইলেভেনের সরকার’ শীর্ষক আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন। গয়েশ্বর রায় বলেন, ওয়ান-ইলেভেন সরকার ক্ষমতায় এসেই বাংলাদেশের দুই নেত্রীকে মাইনাস করতে চেয়েছিল। দুই নেত্রী কারাবরণও করেছেন। একপর্যায়ে তথাকথিত সেনাসমর্থিত সরকার পালানোর পথ পাচ্ছিল না। তখন আওয়ামী লীগের সঙ্গে সমঝোতা করে পালিয়ে যায়। এরপরই শেখ হাসিনা তখন গর্ব করে বলতেন, ওয়ান-ইলেভেনের সরকার ছিল তাদের আন্দোলনের ফসল। তাই আওয়ামী লীগ তাদের বেনিফিসিয়ারি। তিনি বলেন, ওয়ান-ইলেভেন সরকারের কুশীলবদের বিচার একদিন হবেই। আওয়ামী লীগ সরকার হচ্ছে তাদের বেনিফিসিয়ারি। তারা তাদের বিচার করবে না। কিন্তু এর মানে এই নয়, বিচার হবে না। বাংলার মাটিতে তাদের বিচার একদিন হবেই। মঙ্গলবার প্রধানমন্ত্রীর দেয়া বক্তব্যের প্রতিক্রিয়ায় গয়েশ্বর রায় বলেন, জনগণের আদালতে নাকি খালেদা জিয়ার বিচার হবে। তাহলে জনগণতো উল্টো তাদের বিচার করতে পারে। বিচার বিভাগ যদি নিয়ন্ত্রিত হয় তাহলে তো আইনের শাসন পাওয়া যাবে না। আর আইনের শাসন না থাকলে গণতন্ত্র বিকশিত হয় না। বিএনপি জনগণের অধিকার আদায়ের জন্যই লড়াই করছে। নির্বাচন কমিশন প্রসঙ্গে তিনি বলেন, স্বাধীন ও শক্তিশালী নির্বাচন কমিশন দরকার আছে ঠিকই। কিন্তু কমিশনে যারা থাকবেন তাদের যোগ্যতা, দক্ষতা এবং গ্রহণযোগ্যতার বিষয়টি বিবেচনা করতে হবে।
গোপালগঞ্জ হবে মুজিবনগর ঢাকা জিয়া সিটি: দুদু
 একই আলোচনা সভায় অংশ নিয়ে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদু আওয়ামী লীগকে উদ্দেশ্য  করে বলেন, আপনারা পিরোজপুর জেলার জিয়ানগর উপজেলার নাম পরিবর্তন করে ইন্দুরকানী করেছেন। ইন্দুরকানী কি জিয়াউর রহমানের চেয়ে বেশি সম্মানিত? আপনারা গোপালগঞ্জের নাম পরিবর্তন করে মুজিবনগর করছেন না কেন? বিএনপি ক্ষমতায় এলে গোপালগঞ্জের নাম পরিবর্তন করে মুজিবনগর করবো। তবে আপনাদের সঙ্গে আলোচনা করেই করবো। কারণ গোপালের চেয়ে মুজিবুর রহমান অনেক সম্মানিত। তিনি বলেন, আপনারা (আওয়ামী লীগ) শেখ মুজিবুর রহমানকে জাতির জনক বলেন, বঙ্গবন্ধু বলেন। অথচ তার জন্মস্থানের নাম রয়েছে গোপালের নামে। গোপালগঞ্জের নাম পরিবর্তন করে মুজিবনগর করার জন্য আপনাদেরকে আমরা প্রস্তাব দেবো। আলোচনা করে নাম পরিবর্তন করবো। একইভাবে ঢাকার নাম পরিবর্তন করে জিয়া সিটি করা হবে। যেসব স্থানে জিয়াউর রহমানের নাম মুছে ফেলা হয়েছে বিএনপি ক্ষমতায় এলে এসব নাম যথাযথভাবে প্রতিস্থাপন করা হবে। সংগঠনের সভাপতি শাহাদাৎ হোসেন সেলিমের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি অধ্যাপক ড. এমাজউদ্দিন আহমদ, বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদু, নির্বাহী কমিটির সদস্য আবু নাসের মুহাম্মদ রহমাতুল্লাহ, জাতীয় দলের চেয়ারম্যান ব্যারিস্টার এহসানুল হুদা বক্তব্য দেন।

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

দূষণের কারণে বিশ্বের সবচেয়ে বেশি মৃত্যু বাংলাদেশে

বাংলাদেশে রোহিঙ্গা শিশুদের অবস্থা শোচনীয়: ইউনিসেফ

চট্টগ্রামে ট্রাক ও কাভার্ডভ্যান চাপায় বাসের ২ যাত্রী নিহত

র‌্যাবের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে মাদকসম্রাট ফারুক নিহত

ব্রেক্সিট আলোচনা শুরুর তাগাদা দিলেন বৃটিশ প্রধানমন্ত্রী

নকলা উপজেলা চেয়ারম্যানের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

আফগানিস্তানে জঙ্গি হামলায় নিহত ৪৩

#MeToo কি পারবে নারী নিপীড়ন বন্ধ করতে?

‘প্রধান বিচারপতির বিরুদ্ধে তদন্তে কোনো বাধা নেই’

রাজধানীতে গৃহবধুর আত্মহত্যা

‘আমি ইউটিউবের ভিউ গণনায় বিশ্বাসী না’

আলোচনায় ফের ইভিএম

‘অভিযোগ কাল্পনিক ও বানোয়াট’

মইনকে আশ্বস্ত করেছিলেন প্রণব

ব্লু হোয়েল গেম জায়েজ নয়

শেখ হাসিনার অধীনে নির্বাচন চায় জেপি