স্টার প্লাস, স্টার জলসা ও জি বাংলার পক্ষে আইনজীবী নিয়োগ

শেষের পাতা

স্টাফ রিপোর্টার | ১২ জানুয়ারি ২০১৭, বৃহস্পতিবার | সর্বশেষ আপডেট: ১২:৫৪
ভারতীয় তিন চ্যানেল স্টার জলসা, স্টার প্লাস ও জি বাংলার বাংলাদেশে সম্প্রচারের বৈধতা নিয়ে হাইকোর্টের জারি করা রুলের শুনানি গতকাল চতুর্থ দিনের মতো অনুষ্ঠিত হয়েছে। এ বিষয়ে পরবর্তী শুনানির জন্য আগামী ১৯শে জানুয়ারি দিন ধার্য করেছেন আদালত। বিচারপতি মইনুল ইসলাম চৌধুরী ও বিচারপতি জে বি এম হাসানের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চে এ বিষয়ে শুনানি হচ্ছে। গতকাল রুলের শুনানিতে আইনি লড়াইয়ের জন্য আইনজীবী নিয়োগ করেছে ভারতীয় টিভি চ্যানেল স্টার জলসা, স্টার প্লাস ও জি বাংলা চ্যানেলগুলোর বাংলাদেশে প্রদর্শনকারী প্রতিষ্ঠান। স্টার জলসা ও স্টার প্লাসের পক্ষে তাদের এদেশিয় প্রদর্শনকারী প্রতিষ্ঠান ডিজি যাদু ব্রডব্যান্ড লিমিটেড সিনিয়র আইনজীবী আবদুল মতিন খসরুকে এবং জি বাংলার এদেশিয় প্রদর্শনকারী প্রতিষ্ঠান ন্যাশন ওয়াইড মিডিয়া লিমিটেড ব্যারিস্টার সামসুল হাসানকে আইনি লড়াইয়ের জন্য নিয়োগ দেয়।
এর আগে গত ৮, ৯ ও ১০ই জানুয়ারি হাইকোর্টের ওই বেঞ্চে রিটের পক্ষে তিন কার্যদিবসে শুনানি করেন আইনজীবী একলাছ উদ্দিন ভূঁইয়া। গতকালও তিনি শুনানিতে অংশ নেন।
পরে তিন ভারতীয় চ্যানেলের পক্ষে শুনানি করেন আবদুল মতিন খসরু ও সামসুল হাসান। রাষ্ট্রপক্ষে শুনানি করেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল মোতাহার হোসেন সাজু।
রিটকারীর আইনজীবী একলাছ উদ্দিন ভূঁইয়া মানবজমিনকে বলেন, ২০০৬ সালের ক্যাবল টেলিভিশন নেটওয়ার্ক পরিচালনা আইনের ১৯ ধারা অনুযায়ী কোনো চ্যানেল ওই আইনের পরিপন্থি কোনো কার্যক্রম করতে পারবে না। যদি করে তাহলে সংশ্লিষ্ট চ্যানেলের সম্প্রচার তথ্য মন্ত্রণালয় সাময়িকভাবে সম্প্রচার বন্ধ করতে পারে। তিনি বলেন, বিবাদীপক্ষ আদালতে দাবি করেছে তারা লাইসেন্স নিয়ে বৈধভাবে এদেশে চ্যানেলের সম্প্রচার কার্যক্রম চালাচ্ছে। কিন্তু ভারতের ওই তিন চ্যানেল আইনের লঙ্ঘন করে বিভিন্ন অনুষ্ঠান প্রচার করে চলেছে। বিষয়টি আমি আদালতে যুক্তি উপস্থাপনে উল্লেখ করেছি। আজ (গতকাল) বিবাদী পক্ষ ও রাষ্ট্রপক্ষ তাদের যুক্তি উপস্থাপন করেছে। পরবর্তী শুনানির জন্য ১৯শে জানুয়ারি দিন ধার্য করেছেন আদালত। মামলার বিবরণে জানা যায়, ২০১৪ সালের জুলাইয়ে রোজার ঈদের আগে স্টার জলসায় প্রদর্শিত ‘বোঝে না সে বোঝে না’ সিরিয়ালে পাখি চরিত্রের পোশাক কিনতে না পেরে আত্মহত্যার ঘটনা ঘটে। পরে জনস্বার্থে ভারতীয় টিভি চ্যানেল স্টার জলসা, স্টার প্লাস ও জি বাংলা সম্প্রচার বন্ধ চেয়ে ২০১৪ সালের ৭ই আগস্ট সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী সৈয়দা শাহীন আরা লাইলি হাইকোর্টে একটি রিট আবেদন দাখিল করেন। রিটের প্রাথমিক শুনানি শেষে একই বছরের ১৯শে অক্টোবর ভারতীয় এই তিনটি টিভি চ্যানেল সম্প্রচার বন্ধে কেন নির্দেশ দেয়া হবে না- তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেন হাইকোর্টের একটি বেঞ্চ। রুলে তথ্য সচিব, স্বরাষ্ট্র সচিব, বিটিআরসি চেয়ারম্যান, বাংলাদেশ টেলিভিশনের মহাপরিচালকসহ সংশ্লিষ্ট বিবাদীদের জবাব দিতে বলা হয়। হাইকোর্টের জারি করা ওই রুলের চূড়ান্ত শুনানি এখন চলছে।
 

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

কাজী সামসুজ্জামান

২০১৭-০১-১১ ২০:৪৭:১০

জনস্বার্থেই ভারতীয় চ্যানেলগুলোর সম্প্রচার বন্ধ করা উচিত। প্রচলিত আইনে সম্ভব না হলে প্রয়োজনে আইন সংশোধনের ব্যবস্থা গ্রহন করা হোক।

alamgir

২০১৭-০১-১১ ১৭:৪৮:৩৮

বিদেশী সিরিয়াল বন্ধের জন্য এত আন্দোলন!! অথচ বিদেশী চ্যানেল বন্ধের জন্য আন্দোলন কই?? দাদারা কি মুখে স্কচটেপ মেরে দিয়েছে??

আপনার মতামত দিন

মুগাবের পদত্যাগ, জিম্বাবুয়েজুড়ে উল্লাস

রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে চীনের প্রস্তাব, যা বললেন মুখপাত্র...

তিন বাহিনীকে আধুনিক করতে সবই করবে সরকার

নিজেদের কার্যালয়ে এজাহার দায়েরের ক্ষমতা চায় দুদক

জাতিসংঘের সম্পৃক্ততায় আপত্তি মিয়ানমারের

চলতি সপ্তাহেই সমঝোতার আশা সুচির

বিচারক রেফারি মাত্র

বাংলাদেশে বসবাসকারী রোহিঙ্গা নেতা নিখোঁজ

অভিশংসনের মুখে মুগাবে

মাঠ গোছাতে ব্যস্ত প্রার্থীরা

নিজাম হাজারীর লোকজন খালেদা জিয়ার গাড়িবহরে হামলা করে

মোবাইল ব্যাংকিংয়ের নামে লুটপাট চলছে

দুদকের মামলা থেকে অব্যাহতি পেলেন মেয়র সাক্কু

স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন টিটু রায়

আনসারুল্লাহ’র দুই জঙ্গি কলকাতায় গ্রেপ্তার

‘আওয়ামী লীগ ৪০টির বেশি আসন পাবে না’