শিশু রাকিব হত্যা মামলার আপিল শুনানি শুরু

দেশ বিদেশ

স্টাফ রিপোর্টার | ১১ জানুয়ারি ২০১৭, বুধবার
খুলনার আলোচিত শিশু রাকিব হাওলাদার হত্যা মামলার ডেথ রেফারেন্স (মৃত্যুদণ্ড অনুমোদন) আসামিদের আপিল শুনানি হাইকোর্টে শুরু হয়েছে। গতকাল বিচারপতি জাহাঙ্গীর হোসেন ও বিচারপতি মো. জাহাঙ্গীর হোসেনের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চে এ শুনানি শুরু হয়। শুনানির শুরুতে রাষ্ট্রপক্ষে পেপারবুক উপস্থাপন করেন সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল আতিকুল হক সেলিম ও বিলকিস ফাতেমা। আসামিপক্ষে ছিলেন আইনজীবী গোলাম মো. চৌধুরী আলাল। এ মামলার পেপারবুক প্রস্তুত করার পর ২০১৫ সালের ১০ই  নভেম্বর তা হাইকোর্টে আসে। একই সঙ্গে বিচারিক আদালতের ফাঁসির রায়ের বিরুদ্ধে আসামিরা হাইকোর্টে আপিল করেন।
২০১৫ সালের ৩রা আগস্ট খুলনা নগরীর টুটপাড়া কবরখানা মোড়ে শরীফের ওয়ার্কশপে মোটরসাইকেলে হাওয়া দেয়ার কমপ্রেসার মেশিনের মাধ্যমে ১২ বছর বয়সী রাকিবের মলদ্বারে হাওয়া ঢুকিয়ে হত্যা করা হয়। পরদিন রাকিবের বাবা মো. নুরুল আলম বাদী হয়ে শরীফ, শরীফের সহযোগী মিন্টু খান ও মা বিউটি বেগমের বিরুদ্ধে সদর থানায় মামলা দায়ের করেন। নৃশংস ওই হত্যার পর সারা দেশে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়। একই সঙ্গে আসামিদের দ্রুত বিচারের মাধ্যমে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি উঠে। শিশু রাকিবকে হত্যার অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় ২০১৫ সালের ৮ই নভেম্বর আসামি শরীফ ও মিন্টুকে ফাঁসির দণ্ডাদেশ দেন খুলনা মহানগর দায়রা জজ আদালতের ভারপ্রাপ্ত বিচারক দিলরুবা সুলতানা। মামলার অপর আসামি শরীফের (মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত) মা বিউটি বেগমের বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় তাকে খালাস দেন আদালত।

 

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

সাবেক প্রক্টর কারাগারে, প্রতিবাদে অবরুদ্ধ চবি

আপন জুয়েলার্সের তিন মালিকের জামিন স্থগিত

এবারে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রশ্নপত্র ফাঁস

‘বিএনপি গণতন্ত্রে বিশ্বাস করেনা’

লেবাননে বৃটিশ কূটনীতিককে শ্বাসরোধ করে হত্যা

বিমানে দেখা এরশাদ-ফখরুলের

হলফনামার তথ্য গ্রহণযোগ্য নয়: সুজন

ছিনতাইকারীর টানাটানিতে মায়ের কোল থেকে পড়ে শিশুর মৃত্যু

গুজরাট ও হিমাচলে বিজেপিই জিততে চলেছে

আরো ৪০ রোহিঙ্গা গ্রাম ভস্মীভূত:  এইচআরডব্লিউ

ভর্তি জালিয়াতি সন্দেহে রাবির দুই ছাত্রলীগ নেতা আটক

‘এটাও কিন্তু একটা চ্যালেঞ্জের বিষয়’

সৌদিই ব্যতিক্রম

তাদের কি বিবেক বলে কিছু নেই

ঢাকা উত্তরের উপনির্বাচন ফেব্রুয়ারিতে

‘উন্নয়ন কথামালায়, মানুষ কষ্টে আছে’