খালেদার শাস্তি হবে

দেশ বিদেশ

স্টাফ রিপোর্টার, রংপুর থেকে | ১১ জানুয়ারি ২০১৭, বুধবার
জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ বলেছেন, অতীতে তার বিরুদ্ধে দায়েরকৃত বেজলেস মামলা প্রত্যাহার হোক আর না হোক এতে তার কিছুই যায় আসে না। তিনি বলেন, বিএনপি আমলে তৎকালীন খালেদা জিয়া তার বিরুদ্ধে বেজলেস মামলা করেছেন। জেলে দিয়েছেন, নির্যাতন করেছেন। অনেক অবিচার করেছেন। মিথ্যা মামলায় শাস্তি দিয়েছেন। আমার দলকে ধ্বংস করতে চেয়েছিলেন।
কিন্তু আজ সেই খালেদা জিয়া মামলার আওতায় আসছেন। মামলায় তার শাস্তি হবে, জেলে যাবেন। বিএনপি এখন আন্দোলন করতে পারছে না। দলের অস্তিত্ব বিলীনের পথে। একেই বলে ‘যেমন কর্ম তেমন ফল।’ তিনি পল্লীনিবাস বাসভবনে সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন। যেসব জনপ্রতিনিধি প্রটেকশন চান তাদের জনপ্রতিনিধি হওয়া উচিত হয়নি মন্তব্য করে এরশাদ বলেন, আনফরচুনেট, এমপি হত্যা ভালো কথা নয়। এই এমপি হত্যার ঘটনায় যুবলীগের কর্মী ধরা পড়েছে।  ভেতরের রহস্য কি তা আমি জানি না। এমপি হত্যার ঘটনায় অন্য এমপিরা নিরাপত্তা চান। এটা কেমন কথা। আমি জনপ্রতিনিধি, যদি জনগণ থেকে বিচ্ছিন্ন থাকি, প্রটেকশনের মধ্যে থাকি, পুলিশের নিরাপত্তার ভেতরে থাকি, তাহলে জনপ্রতিনিধি হলাম কেন। তিনি বলেন, জনপ্রতিনিধি হওয়ার অর্থ জনগণের কাছে যাওয়া। তাদের পাশে দাঁড়ানো। সুখে-দুঃখে একে অপরের পাশাপাশি থাকা। নির্বাচন কমিশন গঠন প্রসঙ্গে জাপা চেয়ারম্যান বলেন, নির্বাচন কমিশন গঠনের ব্যাপারে রাষ্ট্রপতির দেয়া সিদ্ধান্ত বিএনপি’র মানা না মানা নিয়ে কিছুই যায় আসে না। সরকার যে সিদ্ধান্ত দেবে সেই সিদ্ধান্ত আমরা সমর্থন দেবো। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী রাষ্ট্রপতিকে যা বলবেন রাষ্ট্রপতি তাই করবেন। যেটাতে দেশের শাসন ভালো হয়, সেটাই করার চেষ্টা চলছে। তিনি বর্তমান আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির বিষয়ে বলেন, বর্তমানে দেশের অবস্থা ভালো না। সরকারদলীয় এমপিকে ঘরে ঢুকে সন্ত্রাসীরা হত্যা করে চলে যায়। এটা বড়ই দুঃখজনক। আমরা এ অবস্থা থেকে পরিত্রাণ পেতে চাই। দেশের মানুষ আজ সুখে-শান্তিতে থাকতে চায়। অরাজকতা-হানাহানি পছন্দ করে না। তিনি আক্ষেপ করে বলেন, জাতীয় পার্টি সরকারের আমলে দেশের অবস্থা ছিল অনেক ভালো। খুন, ছিনতাই, ধর্ষণ তেমন ছিল না। সাধারণ মানুষ খেয়ে-পরে শান্তিতে ছিল। তারপরও তারা জাতীয় পার্টির বিরুদ্ধে আন্দোলন করেছে। এখন তারা বুঝতে পারছে জাতীয় পার্টির আমল কেমন ছিল। জানি না দেশের মানুষের শিক্ষা হয়েছে কি-না। এরপর তিনি রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ডের খোঁজখবর নেয়াসহ এক আলোচনা সভা করেন।

 

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন