মোদীকে দেশছাড়ার হুমকি

অনলাইন

| ১০ জানুয়ারি ২০১৭, মঙ্গলবার, ৩:২৬ | সর্বশেষ আপডেট: ৩:২৬
নোট বাতিল এবং চিটফান্ড কেলেঙ্কারিতে তৃণমূল নেতাদের গ্রেন্তারি নিয়ে ফের বিস্ফোরক মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ সোমবার দুপুরে বর্ধমানে মাটি উত্সবের মঞ্চ থেকে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর বিরুদ্ধে উদ্দেশে মুখ্যমন্ত্রীর হুঙ্কার , ‘মোদীবাবু আপনি যেদিন ক্ষমতায় থাকবেন না , সেদিন ভারতের মানুষ আপনাকে কী করবে , আপনি সেটা নজরে রাখবেন৷ ’ প্রধানমন্ত্রীকে ‘চুনোপুটি ’ নেতা বলে সম্বোধন করে তাঁকে কার্যত দেশছাড়া করার হুমকি দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী৷ বিরোধিতার সুর চড়িয়ে মুখ্যমন্ত্রী বলেন , ‘দেশের মানুষ এদের একদিন ঘা .ড ধরে ক্ষমতা থেকে টেনে নামাবে৷ তখন ওরা কেউ লন্ডনে পালাবে , কেউ আমেরিকায় পালাবে৷ ’ দিল্লিতে অবশ্য তৃণমূল সাংসদদের বিক্ষোভে অতটা ঝাঁজ ছিল না৷ জঙ্গিপনা ছেড়ে দিয়ে দিনভর সাউথ অ্যাভিনিউয়ের সার্ভিস লেনের পাশে চেয়ারে বসে মোদী -বিরোধী স্লোগান দিয়ে গেলেন তৃণমূল সাংসদরা৷ সেটাও করলেন দিল্লি পুলিশকে আগাম চিঠি দিয়ে৷ এ দিন বর্ধমানের কালনা রোডে মাটিতীর্থ কৃষিকথা প্রাঙ্গণে আয়োজিত ‘মাটি উত্সব ’-এর উদ্বোধন অনুষ্ঠান মঞ্চে মমতা আরও একবার আশঙ্ক প্রকাশ করে বলেন , নোট বাতিলের জেরে আগামী দিনে রাজ্যে দুর্ভিক্ষ আসতে চলেছে৷ গত দু’মাসে রাজ্য সরকারের প্রায় ২৫ শতাংশ রাজস্ব আদায় কমেছে৷ ফলে আগামী দিনে সরকারি কর্মচারীরা মাস পয়লার বেতন পাবেন কি না , তা নিয়েও সন্দেহ প্রকাশ করেন৷ নোট ভোগান্তির মধ্যেই মুখ্যমন্ত্রীর এই মন্তব্যে সরকারি কর্মচারীদের কপালের ভাঁজ যে চও .ডা হবে , তাতে কোনও সন্দেহ নেই৷ কোনও রাখঢাক না -রেখেই প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে সরাসরি মুখ খোলার জন্য শিল্পপতিদের কাছে কাতর আর্জি জানিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় , যা একেবারেই নজিরবিহীন বলে মনে করছে রাজনৈতিক মহল৷ সেই তথ্য দিয়ে মাটি উত্সবে আমন্ত্রিত বিভিন্ন বণিকসভার প্রতিনিধিদের আস্থা অর্জনের চেষ্টা করেন মুখ্যমন্ত্রী৷ তাঁর এই লড়াইয়ের শরিক হওয়ার জন্য সরসরি শিল্পপতিদের আহ্বান জানান৷ মঞ্চে বসে থাকা বণিকসভার প্রতিনিধিদের অস্বস্তি বাড়িয়ে মুখ্যমন্ত্রী বলেন , ‘চেম্বাররা চুপচাপ বসে আছে কেন ? শিল্পকর্তারা কিছু বলছেন না কেন ? সিবআই করবে ? আইটি করবে৷ আমাদের করছে না৷ তাতে কী যায় আসে ? মোদীবাবু ভারতবর্ষে কত জেল তৈরি করতে পারে , একবার দেখতে চাই৷ ’নরেন্দ্র মোদীর বিরুদ্ধে মুখ্যমন্ত্রীর এই গরমাগরম ভাষণ অবশ্য এই প্রথম নয়৷ ঠিক আড়াই বছর আগে লোকসভা ভোটের মুখে মোদীকে কোমরে দড়ি পরিয়ে রাস্তায় ঘোরানোর হুমকি দিয়েছিলেন মমতা৷ সেই সময় মোদী ছিলেন প্রধানমন্ত্রী পদপ্রার্থী৷ পরবর্তিকালে এ রাজ্যে নির্বাচনী সফরে এসে মোদী ব্যঙ্গ করে বলেছিলেন , মোদীকে যে দড়ি পরিয়ে ঘোরানো হবে , তার টেন্ডার ডাকা হয়েছে তো? মমতার মম্তব্য প্রসঙ্গে বিজেপি নেতা রাহুল সিনহা বলেন , ‘মমতা কতদিন ক্ষমতায় থাকবে , সেটাই দেখার৷ ওঁর যে অবস্থা , তাতে ২০২১ পর্যন্ত সরকারটা টেনে নিয়ে যেতে পারবেন কি না , সন্দেহ আছে৷ মোদী কতদিন ক্ষমতায় থাকবেন , সেটা অনেক পরের ব্যাপার৷ ওঁর না ভাবলেও চলবে৷ ’ নোট বাতিলের ইস্যুতে তৃণমূল সরব হওয়াতেই যে , কেন্দ্রীয় সরকার সিবিআইকে দিয়ে তাঁর দলের নেতা -মন্ত্রীদের গ্রেপ্তার করছে , সে কথাও স্মরণ করিয়ে দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী৷ তা সত্ত্বেও মুখ্যমন্ত্রী কিংবা তাঁর দল নোট বাতিলের বিরোধিতার রাস্তা থেকে সরছে না বলে তিনি জানিয়ে দিয়েছেন৷ মমতা বলেন , ‘প্রতিবাদ করলেই সন্ত্রাস৷ চক্রান্তকারী দল৷ ‘কনস্পিরেসি ব্যুরো অফ ইনভেস্টিগেশন ’ (সিবিআই ) তৈরি করেছে৷ একটা ব্যাক অফিস তৈরি করেছে৷ কোনও তথ্য -প্রমাণ নেই৷ কিন্ত্ত জোর করে লিখিয়ে নিচ্ছে৷ ’দিল্লিতে প্রথম দু’দিন প্রধানমন্ত্রীর বাড়ি ও অফিসে বিক্ষোভ দেখানোর পর এখন তো ছোটখাট কোনও জায়গায় প্রতিবাদ দেখাতে যেতে পারেন না তৃণমূল সাংসদরা৷ সাধারণত , বিক্ষোভ ছোট থেকে ক্রমশ বড় আকার নেয়৷ কিন্ত্ত এখানে অন্তিম সিদ্ধান্তটা আগে নিয়ে নিয়েছেন তাঁরা৷ তাই আপাতত পুলিশি প্রহরায় সাউথ অ্যাভিনিউয়ের একপাশে বসে বিক্ষোভ দেখালেন তৃণমূল সাংসদরা৷ পরপর দু-বার বোকা হয়ে যাওয়ার পর দিল্লি পুলিশ এ দিন আগাগোড়া সতর্ক ছিল৷ তৃণমূল সাংসদদের এক মূহূর্তের জন্যও নজরছাড়া করেনি পুলিশ৷ কিন্ত্ত দীনেশ ত্রিবেদী , মুকুল নায় , ডেরেকরা পুলিশকে বোঝান , তাঁরা সারাদিন এখানেই বসে বিক্ষোভ দেখাবেন৷ অন্য কোথাও যাবেন না৷ তাই গুচ্ছের কর্মী , বাস সবকিছু থাকা সত্ত্বেও শেষ পর্যন্ত চুপচাপ দেখতে থেকেছে পুলিশ৷ আর পুরো বিক্ষোভ দু’জন পুলিশ ভিডিয়ো তুলে নিয়ে গিয়েছেন৷ তৃণমূল সাংসদ ডেরেক ও ’ব্রায়েন জানিয়েছেন , মঙ্গলবার সকাল দশটা থেকে ছ-টা পর্যন্ত তাঁরা ধর্না দেবেন৷ সাউথ অ্যাভিনিউয়ের রাস্তার পাশে পার্ক, তার পর বেশ চওড়া ফুটপাথ , তার পর সার্ভিস লেন , সেটার পর সাংসদদের ফ্ল্যাট৷ এখানেই পাশাপাশি ফ্ল্যাটে থাকেন অভিষেক , ডেরেক , মুনমুন , সন্ধ্যা রায়রা৷ মুকুল রায় কেবল একটা বাংলোয় থাকেন৷ মনুমুন সেনের ফ্ল্যাটের সামনের ফুটপাথে শুরু হল বিক্ষোভ৷ তিনি অবশ্য হাঁটুর ব্যথায় কাতর বলে ধর্নায় ছিলেন না৷

সুত্রঃ এই সময়
এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

যুবলীগ নেতাকে অস্ত্রের মুখে অপহরন

ধুমপানে বাধা দেয়ায় দোকানিকে সিগারেটের ছ্যাঁকা

পারমাণবিক যুদ্ধের হিম আতঙ্ক

লেবার নেতা হিসেবে সাদিক খানকে দেখতে চান বৃটিশ ভোটাররা

রোহিঙ্গাদের সমর্থনে বোস্টনে প্রতিবাদ বিক্ষোভ

কর্ণফুলীতে বিএনপির তিন প্রার্থীর নির্বাচন বর্জন

মনিপুর থেকে ১০৭ ‘বাংলাদেশী’ পুশব্যাক

পূর্ব লন্ডনে এসিড হামলায় আহত ৬

সাদুল্যাপুরে ১১২ মেট্রিক টন চাল জব্দ, গুদাম সিলগালা

রোহিঙ্গা ইস্যুতে এবার বিমসটেকেও ছায়া পড়েছে

রাজধানীতে আগুনে পুড়ে নিহত ১

চতুর্থ দফা ক্ষমতার দিকে দৃষ্টি মার্কেলের

‘অযথা এসব গুঞ্জনের কোন মানে হয় না’

সন্তানের নাড়ি কাটার সময়ও পাননি হামিদা

সেনাবাহিনীর কার্যক্রম শুরু, ফিরছে শৃঙ্খলা

কাল থেকে গণশুনানি