চিটফান্ড কেলেঙ্কারিতে তৃণমূল কংগ্রেসের লোকসভার দলনেতা গ্রেপ্তার

ভারত

পরিতোষ পাল, কলকাতা থেকে | ৪ জানুয়ারি ২০১৭, বুধবার | সর্বশেষ আপডেট: ১০:২০
চিটফান্ড কেলেঙ্কারিতে যুক্ত থাকার অভিযোগে চারদিনের ব্যবধানে আরেক তৃণমূল কংগ্রেস সাংসদকে গ্রেপ্তার করেছে সিবিআই। গত শুক্রবার গ্রেপ্তার করা হয়েছিল তৃণমূল কংগ্রেস সাংসদ ও অভিনেতা তাপস পালকে। আর মঙ্গলবার গ্রেপ্তার করা হয়েছে তৃণমূল কংগ্রেসের লোকসভার দলনেতা সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়কে। সুদীপের গ্রেপ্তারে তৃণমূল কংগ্রেসে প্রবল আলোড়ন ও ক্ষোভ তৈরি হয়েছে। গ্রেপ্তারের খবর জানা মাত্র তৃণমূল কংগ্রেসের সাংসদ ও বিধায়করা সিবিআই দপ্তরের সামনে চলে এসেছিলেন। তৃণমূল সমর্থক ও কর্মীরা বিক্ষোভও দেখিয়েছেন।
কয়েকজন সাংসদ অবশ্য সুদীপের সঙ্গে দেখা করেছেন। সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়ের গ্রেপ্তারের খবর পেয়েই তীব্র প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তৃণমূল কংগ্রেসের লোকসভার দলনেতাকে গ্রেপ্তারের প্রতিবাদে বুধবার থেকে লাগাতার আন্দোলন এবং ধরনা শুরু হচ্ছে বলে মমতা ঘোষণা করেছেন। লোকসভার সামনেও বিক্ষোভ করবেন তৃণমূল কংগ্রেসের সাংসদরা। মঙ্গলবার রাতেই সুদীপকে ভুবনেশ্বরে উড়িয়ে নিয়ে যাওয়া হবে বলে জানা গেছে। সেখানেই রোজভ্যালির আর্থিক জালিয়াতির মামলা চলছে। সেখানেই সুদীপকেও সিবিআইয়ের বিশেষ আদালতে হাজির করে আরো জেরার জন্য হেফাজতে নেয়া হবে বলে জানা গেছে। রোজভ্যালির অর্থ জালিয়াতিতে সিবিআই সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়কে তলব করে বেশ কয়েকবার নোটিশ পাঠিয়েছিল। তবে বেশ কয়েকবার টালবাহানার পর দলনেত্রীর নির্দেশে মঙ্গলবার সকাল ১১টা নাগাদ সল্টলেকের সিজিও কমপ্লেক্সের সিবিআই দপ্তরে হাজির হয়েছিলেন তিনি। তাঁকে দু দফায় চার ঘণ্টা জেরা করার পর বিকালে গ্রেপ্তার করা হয়েছে বলে সিবিআই সূত্রে জানানো হয়েছে। সিবিআই দপ্তরে পৌঁছে অবশ্য সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছিলেন, আমার বিরুদ্ধে কী অভিযোগ তা জানতে এসেছি। কিন্তু বেলা গড়াতেই স্পষ্ট হয়ে গিয়েছিল যে সিবিআই তাঁকে গ্রেপ্তার করতে চলেছে। দুটি প্রশ্ন তালিকা তৈরি করে তিনজন সিবিআই আধিকারিক মিলে সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়কে জেরা করেছেন। অভিযোগ, রোজভ্যালি ১৭ হাজার কোটি টাকা সাধারণ মানুষের কাছ থেকে সংগ্রহ করে তা তছরুপ  করেছে। আর সেই রোজভ্যালি কর্তা গৌতম কুণ্ডুকে ব্যবসা সমপ্রসারণে সাহায্য করেছিলেন সুদীপ ও তাঁর স্ত্রী নয়না বন্দ্যোপাধ্যায়। শুধু তাই নয়, সুদীপ-নয়না একাধিকবার বিদেশ ভ্রমণ করেছেন রোজভ্যালির টাকায়। সংস্থার কর্ণধার গৌতম কুণ্ডু এবং সংস্থার বেশ কয়েক জন পদস্থ কর্মচারীকে বিভিন্ন সময়ে জেরা করে সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে রোজভ্যালির ঘনিষ্ঠ যোগের তথ্য উঠে এসেছিল বলে সিবিআই সূত্রের খবর। রোজভ্যালির দপ্তর থেকে বাজেয়াপ্ত হওয়া বিভিন্ন নথিতেও সুদীপের নাম পাওয়া গিয়েছিল বলে জানা গিয়েছে। সে সবের ভিত্তিতেই সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়কে সিবিআই তলব করে। সিবিআইয়ের দাবি, রোজভ্যালির সঙ্গে একাধিকবার আর্থিক লেনদেন হয়েছে সুদীপের। তাঁর আত্মীয়কে রোজভ্যালিতে চাকরিও দিয়েছিলেন গৌতম কুণ্ডু। এই সব প্রসঙ্গে সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়কে জেরা করে কোনো  সদুত্তর না পেয়েই তাঁকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে বলে মনে করা হচ্ছে। চিটফান্ডের বিরুদ্ধে কেন্দ্রীয় নজরদারি সংস্থার আতশকাচ থেকে রোজভ্যালিকে আড়াল করতে সক্রিয় ছিলেন তিনি। দিল্লিতে নিজের ফ্ল্যাটে একাধিকবার গৌতম কুণ্ডুর সঙ্গে বৈঠক করেছিলেন সুদীপ, এমন তথ্যও পেয়েছে সিবিআই। অভিযোগ, রোজভ্যালির সঙ্গে তাঁর মোটা টাকার লেনদেন হয়েছিল। বিভিন্ন সময়ে রোজভ্যালির গাড়িও সুদীপ ব্যবহার করেছিলেন বলে অভিযোগ। এদিকে আগে গ্রেপ্তার হওয়া তাপস পালকে ভুবনেশ্বরে সিবিআই দিন দিন ধরে জেরা করে অনেক তথ্য পেয়েছে বলে দাবি করা হয়েছে। বেশ কয়েকজন প্রভাবশালী নেতা ও ব্যবসায়ীর নামও জানতে পেরেছে সিবিআই। যৌথ প্রযোজনার নামে বাংলাদেশের সিনেমা প্রযোজকদের মাধ্যমে রোজভ্যালির মোটা অঙ্কের টাকা বিদেশে পাচার হয়েছে বলে সিবিআইয়ের গোয়েন্দারা মনে করছেন। তবে শেষ দিকে তাপস পাল তার কিছু মনে পড়ছে না বলে জেরায় জানিয়েছেন। মঙ্গলবার তাঁকে ফের হেফাজতে নেয়ার জন্য আদালতে তোলা হলে বিচারক আরো তিনদিন সিবিআই হেফাজত মঞ্জুর করেছেন।
তবে সুদীপকে গ্রেপ্তারের পরই তৃণমূল কংগ্রেস পথে নেমে আন্দোলনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে।
এদিন রাতেই মমতা দলের সাংসদ ও বিধায়কদের সঙ্গে জরুরি বৈঠক করেছেন। নরেন্দ্র মোদির উদ্দেশে চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছেন, প্রতিবাদ করলেই সিবিআই, ইডি, আয়কর দপ্তরকে লাগিয়ে দিচ্ছে মোদি সরকার। মুখ্যমন্ত্রী হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেছেন, আপনার হাতে যেমন সরকার আছে, আমাদের হাতেও কিন্তু তেমনই সরকার আছে। পাল্টা গ্রেপ্তার আমিও করতে পারি। মুখ্যমন্ত্রী আরো বলেছেন, সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়কে গ্রেপ্তার করা হলে বাবুল সুপ্রিয়, রবীন দেব, মহম্মদ সেলিম, রূপা গঙ্গোপাধ্যায় এবং সুজন চক্রবর্তীকেও এবার গ্রেপ্তার করতে হবে। এদিন তৃণমূল কংগ্রেস সাংসদকে গ্রেপ্তারের প্রতিবাদে রাজ্য বিজেপির দপ্তরের সামনে বিক্ষোভ দেখিয়েছেন তৃণমূল কংগ্রেসে কর্মী ও সমর্থকরা।

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন