১১ ‘স্বামী’কে প্রতারিত করে পুলিশের জালে সুন্দরী

রকমারি

| ১৮ ডিসেম্বর ২০১৬, রোববার
একটা, দু’টো নয়, একেবারে ১১ জনকে বিয়ে করে তাঁদের টাকাপয়সা, গয়না হাতিয়ে পালাত ২৩ বছরের সুদর্শনা মেঘা। বেশ কয়েকটি অভিযোগ পাওয়ার পর এই ‘সুন্দরী পাখি’ ধরতে জাল পাতে পুলিশ। কিন্তু তিনি এতটাই ধুরন্দর যে দুঁদে পুলিশ অফিসারদেরও নাকানি চোবানি খেতে হয়েছে মেঘার কাছে।

সোনম কপূরের অভিনীত ‘ডলি কি ডোলি’ ছবিটা মনে আছে তো? ঠিক সে রকমই ফিল্মি কায়দায় অসহায় পুরুষদের শিকার বানানোর জন্য ফাঁদ পাতত মেঘা।

নয়ডার বাসিন্দা মেঘনা ভার্গব। থাকে দিদি আর জামাইবাবুর সঙ্গে। সেখান থেকে পাড়ি দেয় কেরলে। শিকারের খোঁজে নেমে পড়ে সে।
পুলিশ জানিয়েছে, তাকে এই কাজে সাহায্য করত মহেন্দ্র নামে এক যুবক। সে খুঁজে খুঁজে সেই পুরুষের খবর দিত মেঘনাকে যাঁদের বয়স হয়ে গিয়েছে, অথচ বিয়ে হয়নি, ডিভোর্সি পাত্র। আবার যাঁদের গায়ের রং কালো, ভাল পাত্রী পাচ্ছেন না। এমনকী শারীরিক ভাবে অক্ষম পুরুষদের কাছে নিজের রূপের ললনায় মন ভুলিয়ে বিয়ের প্রস্তাব দিত। তবে খেয়াল রাখত এরা সবাই বিত্তবান কিনা! সেই বুঝেই সে দিকে পা বাড়াত মেঘনা।

প্রথমে তাঁদের সঙ্গে আলাপ জমাত, তার পর বিয়ের প্রস্তাব। বিয়ে করার পরই সুযোগ খুঁজত গয়না কী ভাবে হাতানো যায়। ঝোপ বুঝে কোপ, তার পরই পাখি ফুড়ুত্। মেঘনার রূপের জাল বিস্তার ছিল নয়ডা থেকে কেরল পর্যন্ত। এক এক করে ১১ জনকে তাঁর রূপের ফাঁদে ফেলে হাতিয়ে নেয় লাখ লাখ টাকা আর গয়না।এ রকমই কেরলের এক ব্যক্তি লরেন জাস্টিনকে ফাঁদে ফেলে মেঘনা। বিয়ের কয়েক দিনের মধ্যে ১৫ লক্ষ টাকার গয়না নিয়ে উধাও হয়ে যায় সে। জাস্টিন পুলিশে অভিযোগ দায়ের করেন। কেরলে এ রকম বেশ কয়েকটি অভিযোগ আগেই পুলিশের কাছে জমা পড়েছিল। কিন্তু নাগালে পাচ্ছিল না অপরাধীকে। খোঁজ নিয়ে পুলিশ জানতে পারে নয়ডাতেও এ রকম কয়েকটি ঘটনা ঘটেছে। আর প্রতিটি ঘটনার সঙ্গে মিল রয়েছে। কেরল পুলিশ নয়ডা পুলিশের সঙ্গে যোগাযোগ করে। শুরু হয় যৌথ তল্লাশি। তল্লাশি অভিযানে নেমে পুলিশের হাতে মহেন্দ্র নামে এক যুবকের নাম। তাঁর খোঁজ নিয়ে গতিবিধির উপর নজর রাখতে শুরু করে পুলিশ। সুযোগ বুঝে তাঁকে ফাঁদে ফেলে গ্রেফতার করা হয়। মেঘনার ডান হাত গ্রেফতার হতেই আসল গল্প বেরিয়ে আসে। পুলিশ জানিয়েছে, জেরায় মহেন্দ্র তাদের জানায় সে-ই নাকি মেঘনার জন্য বিত্তবান অসহায় পুরুষদের খুঁজে দিত। বিয়ের পর মেঘনা পানীয়ের সঙ্গে মাদক মিশিয়ে তাঁর ‘স্বামী’দের খাওয়াত। তার পরই সব কিছু হাতিয়ে পগারপার।

এই মহেন্দ্রকেই জেরা করে মেঘনার খোঁজ পায় পুলিশ। তার নয়ডার ফ্ল্যাটে হানা দিয়ে মেঘনাকে গ্রেফতার করে পুলিশ। গ্রেফতার করা হয় তার দিদি-জামাইবাবুকেও। জেরায় মেঘনা জানিয়েছে, সে চার জনকে বিয়ে করেছে। তবে বাকি বিয়ের কথা অস্বীকার করে। তার দাবি, কাউকে প্রতারিক করেনি সে। বিয়ের পরই ‘স্বামী’দের সঙ্গে সম্পর্কের অবনতি হওয়ায় তাঁদের ছেড়ে চলে আসেন।

সুত্রঃ আনন্দবাজার পত্রিকা

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

দু’বছরের মধ্যে জেরুজালেমে দূতাবাস খুলবে যুক্তরাষ্ট্র

শিক্ষামন্ত্রণালয়ের দুই কর্মচারী ও লেকহেড স্কুলের মালিকের বিরুদ্ধে মামলা

প্রেসিডেন্ট পদে নির্বাচন ১৯শে ফেব্রুয়ারি

ফেরত পাঠালে রোহিঙ্গারা ঝুঁকিতে পড়বে

একই রাতে মা ও ছেলের মৃত্যু

ধনী ১ শতাংশ মানুষের হাতে বিশ্বের ৮২ শতাংশ সম্পদ

‘ছবিটিতে অন্যতম আকর্ষণীয় চরিত্রের নাম বন্দনা’

শিক্ষার ঘুষের হাটের কারবারি

অভিযোগের পাহাড়, অসহায় ইউজিসি

প্রত্যাবাসন শুরু হচ্ছে না আজ

মৈত্রী এক্সপ্রেসে শ্লীলতাহানির শিকার বাংলাদেশি নারী

‘২০৬ নম্বর কক্ষে আছি, আমরা আত্মহত্যা করছি’

ট্রেনে কাটা পড়ে দুই পা হারালেন ঢাবি ছাত্র

পুলে যাচ্ছে সেই সব বিলাসবহুল গাড়ি

নীলক্ষেত মোড়ে ব্যবসায়ীদের বিক্ষোভ, এমপির আশ্বাসে স্থগিত

আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সফর সফল করতে নির্দেশনা