ফের বাঘের খাঁচায় ঝাঁপ যুবকের

রকমারি

| ২৭ নভেম্বর ২০১৬, রবিবার | সর্বশেষ আপডেট: ৯:৫৪
ওই যে কথায় বলে না, 'রাখে আল্লাহ মারে কে' তা যে কতটা সত্যি...! না হলে বাঘের খাঁচা থেকে এ ভাবে কেউ প্রাণ নিয়ে ফিরে আসতে পারে! অনেক বছর আগে প্রকাশ তিওয়ারি পারেননি। আলিপুর চিড়িয়াখানার রয়্যাল বেঙ্গল টাইগার 'শিবা'র খাঁচায় ঢুকে, তার গলায় মালা পরাতে গিয়ে, ক্ষতবিক্ষত হয়ে মরেছিলেন। তবে, শুদ্ধধন বাবারাও ওয়াংখেড়ে কিন্তু বরাত জোরেই ফিরে এসেছেন। বাঘের একটি নখের আঁচড় পর্যন্ত তাঁর গায়ে লাগেনি। পুনের রাজীব গান্ধি জুওলিজক্যাল পার্কে ঘটনাটি ঘটেছে শনিবার। চিড়িয়াখানা কর্তৃপক্ষ জানায়, শুদ্ধধন নামে বছর পঁচিশের ওই যুবক শনিবার সাদা বাঘের খাঁচায় ঝাঁপ মারেন। সেখানকার নিরাপত্তারক্ষীদের নজরে পড়ায়, তড়িঘড়ি এনক্লোজারের পিছন দিকের গেট খুলে ওই যুবককে তুলে আনা হয়। চিড়িয়াখানায় আসা প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বাঘটির একদম কাছাকাছি চলে গিয়েছিলেন ওই যুবক। বাঘটির গায়েও হাত দেন। ভাগ্য ভালো বাঘটি পালটা আক্রমণ করেননি। চিড়িয়াখানা কর্তৃপক্ষ ঘটনার কথা স্বীকার করে জানিয়েছেন, আর কয়েক মিনিট দেরি হলে, ওই সাদা বাঘের খাঁচাতেই বেঘোরে মরতে হত ওই যুবককে। পরে তাঁকে ভারতী বিদ্যাপীঠ পুলিশের হাতে তুলে দেওয়া হয়। ধৃতের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছে চিড়িয়াখানা কর্তৃপক্ষ। শুদ্ধধনকে জিগ্যাসাবাদ করে পুলিশের মনে হয়েছে, ওই যুবক মানসিক ভারসাম্যহীন।

সুত্রঃ এই সময়
এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

Salim Khan

২০১৬-১১-২৬ ২২:১০:৩৫

আজকের মুসলমানদের মুখে আল্লাহ আসে না। রাম আসে, হরি আসে। রাখে আল্লাহ মারে কে বললে কি হতো? মনে হয় এখানে মৌলবাদের গন্ধ পাওয়া গেছে। হায়রে কপাল পোড়া মুসলমান।

আপনার মতামত দিন