বিকিনি গার্ল থেকে রেফারি

রকমারি

| ২৩ নভেম্বর ২০১৬, বুধবার | সর্বশেষ আপডেট: ১১:৪৬
বন্যপ্রাণী সংরক্ষণের কট্টর সমর্থক তিনি। আর মাঠে বাঁশি মুখে তাঁর বন্যতা দেখার জন্য গ্যালারিতে ভিড় জমান দর্শকরা। ৩৪ বছরের আকর্ষণীয় মডেল এবং ফুটবল মাঠে রেফারি ক্লদিও রোমানিকে নিয়ে উত্তাল সেরি-আ।
বাবা-মা সার্বিয়ার নাগরিক হলেও রোমানির জন্ম ইতালিতে। ছোটবেলা থেকে মডেলিংয়ের প্রতি আকর্ষণ ছিল তাঁর। ২০১২ সালে আদ্রিয়ানা লিমা এবং নাওমি ক্যাম্পবেলের মতো বিখ্যাত মডেলদের পিছনে ফেলে সেরা বিকিনি গার্লের সম্মান ছিনিয়ে নিয়ে শিরোনোমে উঠে আসেন রোমানি।
তবে কাহিনি সেখানেই শেষ নয়। ২০১৪ সালে রেফারিং নিয়ে পরীক্ষায় পাশ করে সেরি-আ এবং সেরি-বি ডিভিশনের ম্যাচ পরিচালনার যোগ্যতা অর্জন করে সবচেয়ে বড় চমক দেন রোমানি। এসি মিলানের সমর্থক বলে নিজেকে দাবি করা সুন্দরী মডেল চলতি বছরের শুরুতে টুইটারে ক্লাবের জার্সি গায়ে লাস্যময়ী ছবি পোস্ট করে ঝড় তুলে দেন। যা  নিয়ে এসি মিলান সমর্থকদের এক বড় অংশ প্রতিবাদও জানান। অনেকে আবার এমনও প্রশ্ন তোলেন যে, প্রাক্তন এসি মিলান তারকা ফিলিপো ইনজাঘির একসময়ের বান্ধবী পেশাদার রেফারি হয়ে কীভাবে ক্লাবকে নিয়ে এতটা আবেগপ্রবণ হতে পারেন।
যদিও তা নিয়ে বিন্দুমাত্র বিচলিত নন রোমানি। সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং‌ ওয়েবসাইটে তাঁর স্বল্পবসন পরিহিত ছবি ভক্তমহলে সাড়া ফেলে দিয়েছে। এক বছরের মধ্যে ফলোয়ারের সংখ্যা ৬০ হাজার থেকে ২ লক্ষ ৪ হাজারে গিয়ে পৌঁছেছে। ৩৪ বছরের সুন্দরী বলেছেন, ‘‘মাঠে ফুটবলারদের সঙ্গে দৌড়নোর সঙ্গে সঠিকভাবে ম্যাচ পরিচালনা করার সুযোগকে হাতছাড়া  করতে চাইনি আমি। তাই রেফারি হয়েছি।’’
কিন্তু মাঠের বাইরেও তাঁর সুডৌল শরীর নিয়ে সাধারণ মানুষের কৌতূহলও তারিয়ে তারিয়ে উপভোগ করেন রোমানি। বলেছেন, ‘‘লোকজন আমাকে দেখে মুগ্ধ হয়, সেটা অবশ্যই দারুণ প্রাপ্তি। তবে সেটা মাত্রা ছাড়ালে হলুদ কার্ড দেখাতেও দেরি করব না!’’

সুত্রঃ এবেলা
এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন