কারও বিরুদ্ধে জঙ্গি সংশ্লিষ্টতার অভিযোগ পেলে কঠোর ব্যবস্থা-ঢাবি ভিসি

শিক্ষাঙ্গন

বিশ্ববিদ্যালয় রিপোর্টার | ২৫ জুলাই ২০১৬, সোমবার | সর্বশেষ আপডেট: ৮:৪২
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি অধ্যাপক ড. আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক বলেছেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী থেকে শুরু করে শিক্ষক, কর্মচারী কারও বিরুদ্ধে জঙ্গি সংশ্লিষ্টতার অভিযোগ পেলে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে। গতকাল সকাল ১১টায় ‘ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় পরিবারের জঙ্গিবিরোধী মানববন্ধন’ কর্মসূচীতে তিনি এ কথা বলেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সার্বিক তত্ত্বাবধানে মানববন্ধনটি অনুষ্ঠিত হয়। এক ঘন্টার এই মানববন্ধনে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রায় ৬ হাজার শিক্ষক, শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা-কর্মচারী অংশ নেয়। সকল অনুষদ, বিভাগ, ইনস্টিটিউট, আবাসিক হল, বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রিক বিভিন্ন সংগঠন ‘প্রিয় বাংলাদেশ, সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ রুখে দাড়াও’ ব্যানারে মানববন্ধনে অংশগ্রহণ করে। বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি, প্রো-ভিসিদ্বয় ভিসির বাসভবন সংলগ্ন স্মৃতি চিরন্তনীতে অবস্থান করেন।
এছাড়া বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভূক্ত র্গাহস্থ্য অর্থনীতি কলেজ, উদয়ন স্কুল এন্ড কলেজ, ইউনির্ভাসিটি ল্যাবরেটরি স্কুল এন্ড কলেজের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরাও মানববন্ধনে অংশগ্রহণ করে।   
মানববন্ধনে অবস্থান নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় সংশ্লিষ্টরা ‘বাংলাদেশে জঙ্গিবাদের ঠাই নেই’, ‘জঙ্গিবাদ রুখতে ঐক্যবদ্ধ হও’, ‘ধর্মের নামে জঙ্গিবাদ চলবে না’, ‘ধর্ম যার যার, রাষ্ট্র সবার’ শীর্ষক প্ল্যাকার্ড প্রদর্শন করে। মানববন্ধনটি নীলক্ষেতের গণতন্ত্র ও মুক্তি তোরণ থেকে টিএসসির রাজু ভাস্কর্য হয়ে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার ঘুরে দোয়েল চত্বর হয়ে চাঁনখারপুল মোড় পর্যন্ত। দোয়েল চত্বর হয়ে হাইকোর্টের মোড় পর্যন্ত। টিএসসি থেকে আরেকটি অংশ শাহবাগ মোড় পর্যন্ত অবস্থান নেয়। মানববন্ধন চলাকালে বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক ও প্রশাসনিক কাজকর্ম বন্ধ ছিল।
মানববন্ধনে ভিসি ড. আরেফিন সিদ্দিক আরও বলেন, আমরা কখনও জঙ্গিবাদকে মেনে  নেইনি, নেব না। এটা বার বার প্রমাণিত হয়েছে যে বাংলাদেশে জঙ্গিবাদের কোনো স্থান নেই। আজ আমরা একসাথে মিলিত হয়েছি, এখন থেকে সারাদেশে গণপ্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে। তিনি বলেন, আমরা হয়তো প্রতিদিন মানববন্ধনে মিলিত হব না, কিন্তু প্রতিদিন ঐক্যবদ্ধ থাকি, যেন কোথাও সন্ত্রাসী-জঙ্গিরা মাথাচাড়া দিতে না পারে।
ভিসি বলেন, এজন্য আমরা শুরু করি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে, আমাদের ক্যাম্পাস থেকে। এখানে যদি কাউকে পাওয়া যায়। যারা নিষিদ্ধ জঙ্গিদের সঙ্গে যুক্ত আছে, তাদের হয়ে কাজ করেছে, তাদের প্ররোচনায় প্ররোচিত হয়ে কাজ করছে, সেক্ষেত্রে আমাদের একাডেমিক ডিসিপ্লিনারি অ্যাকশন খুবই শক্ত। তাৎক্ষণিকভাবে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। গুলশান হামলার প্রসঙ্গ টেনে তিনি বলেন, গুলশানের ওই হোটেলে সেদিন ইতালি, জাপান, ভারতীয় নাগরিকরা গিয়েছিল নৈশভোজের জন্য। কিন্তু সেখানে তাদেরকে খাবারের টেবিলে হত্যা করা হয়েছে। এর চেয়ে নৃশংস, এর চেয়ে জঘন্য ঘটনা আর কি হতে পারে? ভিসি ড. আরেফিন সিদ্দিক বলেন, যে বাঙালি জাতি অতিথিপরায়ণ হিসেবে সারা পৃথিবীতে পরিচিত, সেই দেশে বিদেশিরা এসে হত্যাকাণ্ডের শিকার হবে এটা মেনে নেওয়া যায় না।

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

kamal

২০১৬-০৭-২৫ ০৮:৩৫:৪৮

ঢাবি আর বুয়েট থেকেইতো শুরু, আর হল হল দখল, চাঁদাবাজি ছাড়া কি মুরোদ দেখিয়েছেন আপনারা ? বর্তমান যে ছাত্র রাজনীতি তাতে কান আদর্শ নেই। আছে পেশী শক্তি,দখল,টেন্ডার বাজি ,হানাহানি এতএব এতে তেমন কোন উপকার হবে না।সরকারী বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্ররাজনীতি কী সুফল বয়ে আনছে ? জঙ্গিদের আমরা ঘৃণা করি আবার টেন্ডারবাজী করেও তো কত খুন হচ্ছে, শিক্ষাঙ্গন থেকে জোরেশোরে কলুষিত ছাত্ররাজনীতি উঠিয়ে দেবার দাবী উঠছে l-রাষ্ট্রপরিচালিত বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে ভীতির রাজত্ব কায়েমের পর এবার বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতেও নিয়ন্ত্রণ নিতে চায় ছাত্রলীগ।

আপনার মতামত দিন

যুদ্ধাপরাধের ২৯তম রায়ের আপেক্ষা

ঈদে মিলাদুন্নবী নিয়ে চাঁদ দেখা কমিটির সভা কাল

সিরিয়া ইস্যুতে আবারো রাশিয়ার ভেটো

হারিরির সৌদি আরব ত্যাগ

ঢাকায় চীন-বাংলাদেশ বৈঠক শুরু

প্যারাডাইস পেপারসে শিল্পপতি মিন্টু ও তার পরিবারের নাম

ঝুঁকিপূর্ণ উপায়ে আসছে রোহিঙ্গারা, ইউএনএইচসিআরের উদ্বেগ

নৌকায় বসেই ভাষণ দেবেন শেখ হাসিনা

‘নতুনরা সব সময় পরিবর্তন নিয়ে আসে’

নিজ দলে বিদ্রোহ, আজ মুগাবের পদত্যাগ দাবিতে বিক্ষোভ

ছোট্ট শিশুদের দুর্নীতির প্রশিক্ষণ

ছাত্রদল সাধারণ সম্পাদক গ্রেপ্তার

রাবিতে হলের সামনে থেকে ছাত্রী অপহৃত

সীমানা বিন্যাস আইন নিয়ে বিপাকে ইসি

সেনা অভ্যুত্থানের পর প্রথম জনসমক্ষে মুগাবে

ইরাক ও ইসরায়েল সুন্দরী একসঙ্গে সেলফি তুলে বিপাকে