করোনাকালে রাজনীতি, উল্টো পথে বিএনপি

মতিউর রহমান চৌধুরী

মত-মতান্তর ২৫ জুন ২০২০, বৃহস্পতিবার | সর্বশেষ আপডেট: ৯:৩৬

রাজনীতি আগেও ছিল না। এখনো নেই। করোনাকালে না থাকারই কথা। তবে আছে ভার্চুয়াল আওয়াজ। সরকার তার গন্তব্যে পৌঁছাতে মরিয়া। বিরোধীরা মাস্ক পরে দোয়া-দরুদ পড়ছে। রয়েছে মাঝে-মধ্যে ভার্চুয়াল ঝলকানি। শব্দের লড়াইয়ে কেউ কারও চেয়ে কম নয়।
শাসক দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বরাবরই সাহিত্যের ভাষায় কথা বলেন।
ছাত্র জমানা থেকেই বাংলা সাহিত্যের উপর তার ঝোঁক রয়েছে। সাহিত্যের পরিমণ্ডলে থেকেই তিনি রাজনীতির ভাষা খুঁজেন। করোনাকালে এই চর্চা আরো বেশি দেখা যাচ্ছে। প্রায় প্রতিদিনই মিডিয়ার সামনে তিনি হাজির হন। নানা চমকপ্রদ তথ্য হাজির করেন। করোনা জয়ে জনগণকে সতর্ক করেন। যেহেতু সভা-সমাবেশ বন্ধ তখন ভার্চুয়ালই একমাত্র পথ। শব্দের বাহাদুরিতে প্রতিপক্ষকে ঘায়েল করার চেষ্টা, মন্দ লাগে না। করোনার যৌবনকালে একদিনে ১৯টি ছবি পোস্ট করে তিনি খবরের শিরোনাম হয়েছিলেন। আর বিরোধী বিএনপি’র মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এই সময়ে কী করছেন? হঠাৎ হঠাৎ তিনি ভার্চুয়াল মিডিয়ায় হাজির হচ্ছেন। তাও লক্ষ্যহীন। তার দল কী চায় তা বোধকরি তিনি জানেনই 
না। তার অগোছালো, লক্ষ্যহীন কথাবার্তা শুনলে যে কেউ এটা বুঝতে পারবেন। এজন্য রাজনীতির পণ্ডিত হওয়ার দরকার নেই।
প্রায় ১৪ বছর যাবৎ দলটি ক্ষমতার বাইরে। এরমধ্যে তিনটি নির্বাচন হয়ে গেল। কোনো নির্বাচনেই ফায়দা তুলতে পারেনি দলটি। কারণ ভুল নীতি কৌশল। নির্বাচনেতো জয়-পরাজয় থাকবেই। অন্তত আমাদের মতো দেশে। যে দেশে ক্ষমতা যার, নির্বাচন তার। এটাই অনেকটা প্রচলিত রীতি। এতে কেউ সফল, কেউ ব্যর্থ। তবে এই সরকার শতভাগ সফল। অন্তত নির্বাচনী রাজনীতিতে। এ নিয়ে বিতর্কের কোনো সুযোগ নেই। বিএনপি কেন বারবার ব্যর্থ হচ্ছে? সাধারণভাবে বলা যায় সরকারের কৌশল সম্পর্কে সম্যক ধারণা না থাকা। ধরা যাক ২০১৪ সালের নির্বাচনের কথা। গ্রাউন্ড তাদের পক্ষে। ৫টি সিটি নির্বাচন জিতে এসেছে। মিডিয়াও ঘুরে গেছে। জনগণতো পরিবর্তনের পক্ষে। এমন অবস্থায় তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবি তুলে বয়কটের পথে গেল বিএনপি। সরকার যে টলবে না এটা বুঝতেই পারেনি। এরমধ্যে সংলাপের ঐতিহাসিক সুযোগটি হাতছাড়া করলো। রাজনীতির পরিভাষায় এটাকে ‘সুইসাইড’ বলা হয়ে থাকে। সংলাপ ছেড়ে গেল আন্দোলনে। কিন্তু এতে সফলতা এলো না। এর মূল কারণ কিছু হঠকারী সিদ্ধান্ত। চোখের সামনে বাস পুড়ছে, মানুষ মারা যাচ্ছে। দলটি দেখেও চুপ থাকলো। সব দায়ভার চাপলো তার ওপর। একবারও দাবি তুললো না কারা এসব করেছে। নিজেরাও তদন্ত করে দেখলো না। আগুন সন্ত্রাসের তকমা নিয়ে ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা করলো। নির্বাচনী লড়াইয়ে জয়-পরাজয় নির্ধারিত হলো না। বিনা ভোটেই জয় তুললো আওয়ামী লীগ।
প্রয়াত সেনা কাম রাজনীতিক হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ কেন রহস্যজনকভাবে নিখোঁজ হয়ে গেলেন তাও তলিয়ে দেখলো না। ব্যর্থ হলো আঞ্চলিক রাজনীতির মোড়লদের মনোভাব বুঝতে। প্রণব মুখার্জির সঙ্গে সাক্ষাৎ না করে কি সুবিধা পেলো দলটি তা অজানাই থেকে গেল। যদিও এজন্য চড়া মূল্য দিতে হয়েছে। এসব বুদ্ধি পরামর্শ কারা দিয়েছিল তাদের মতলব সম্পর্কেও সজাগ ছিল না দলটি। অকাতরে নিজের সর্বনাশ নিজেই ডেকে আনলো। গত নির্বাচনের আগে ড. কামাল হোসেনকে সঙ্গে নিয়ে চাঞ্চল্য সৃষ্টির চেষ্টা করলো। নাটকীয়ভাবে সংলাপে যোগ দিলো। এসবই ছিল ইতিবাচক দিক। ভুল করেই মানুষ শিখে। ২১ বছর ক্ষমতার বাইরে ছিল আওয়ামী লীগ। নির্বাচনে পরাজয় জেনেও বয়কটের পথে যায়নি। নির্বাচন বয়কট বোকামি ছাড়া কিছু নয়। রাষ্ট্রীয় শক্তির কাছে সবসময় কি জয়ী হওয়া যায়? দেশে দেশে ব্যর্থতার নজিরই দেখছি। কেবল মাত্র বসন্তের হাওয়াই পারে বদলাতে। নির্বাচনে অংশ নেয়ার ঘোষণায় শাসক মহলে দুশ্চিন্তা বাড়লো। কারণ দেশি-বিদেশি মহল তখন সক্রিয়। আসন নিয়ে পর্দার আড়ালে কথা চললো। একধরনের সমঝোতার মধ্যে হঠাৎ করে দৃশ্যপট বদলে গেল। বিগড়ে গেল অন্যপক্ষ। জামায়াতকে ২৫ আসন তুলে দিয়ে বিএনপি তৃতীয় বারের মতো আত্মহত্যা করলো। ইউরোপীয় ইউনিয়নও মত পাল্টালো। তারা সব সময়ই এই শক্তির বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছিল। নির্বাচন গ্রহণযোগ্য করতে একধরনের সমঝোতায় রাজি ছিল। কিন্তু জামায়াত প্রশ্নে তারা ছিল অনড়। অন্য একপক্ষ আগে থেকেই সুযোগের অপেক্ষায় ছিল। ঝুঁকিতে না গিয়ে তারা রাতের আঁধারেই কাজটি সেরে ফেললো। ফের মৃত্যু হলো ভোটের। দাবার ঘুঁটি চলে গেল অন্য পক্ষের হাতে। তারা জানান দিলো এখন থেকে আমরাই এই অঞ্চলে খেলবো। পরাজিত পক্ষটি এখন আফসোস করছে। বলছে, সেদিনের ভুলের মাশুল দিতে হবে। বিএনপি এটাও বুঝতে পারেনি। এখনও কি পারছে? বল এখন অন্যদিকে গড়াচ্ছে। আঞ্চলিক ভূ-রাজনীতিতেও আসছে অনেক পরিবর্তন। এতকিছুর পরেও অবস্থান পরিবর্তন না করে এক রহস্যজনক কারণে সেই শক্তিকে আঁকড়ে ধরে বসে আছে। মজার ঘটনা হলো আমরা এক অদ্ভুত দেশের বাসিন্দা। হেফাজতের হাত ধরেও সেক্যুলার থাকা যায়। এতে করে নিকট ভবিষ্যতে কোনো সুবিধাই পাবে বলে মনে হয় না। রাজনীতি আবেগের মতোই। গভীর সমুদ্রে তৈরি হয়। অনেকটা ঢেউয়ের মতোই। এক জায়গায় স্থির থাকলে চলে না। বারবার কৌশল বদলাতে হয়। বলাবলি আছে বিগত নির্বাচনের আগে সুনির্দিষ্ট কিছু প্রস্তাব নিয়ে পর্দার আড়ালে কথা চালাচালি হয়েছিল। যথারীতি প্রত্যাখ্যান করেছে একই কৌশলে। এটা যেন একধরনের অসুখী আক্রোশ। বিএনপি কীভাবে চলে, কারা চালায় এটা কেউ জানে না। দলটির ভেতরে অন্যপক্ষের শেয়ার হোল্ডার বেশি এমনটাই বলা হয়ে থাকে। মাঝখানে গুঞ্জন দলটির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া চিকিৎসার জন্য লন্ডন চলে যাচ্ছেন। সংবাদ মাধ্যমেও এ খবরটি এলো। পরে দলটির তরফে বলা হলো সঠিক নয়। অনুসন্ধানে জানা গেল বিএনপি নেতাদের কেউ কেউ এ খবরটি চাউর করেছিলেন কানে কানে। তাদের উদ্দেশ্য কি? তারা কি জানতেন না কতিপয় শর্তে তিনি জেল থেকে বের হয়েছেন! এই শর্তের ব্যত্যয় ঘটাতে হলে দু’পক্ষের মধ্যে সমঝোতা প্রয়োজন। সেই সমঝোতার আগেই তারা খবরটি রটিয়ে দিলো।
যাই হোক, সরকারের ভেতরে সংকট আরও সর্বগ্রাসী। করোনা মোকাবিলায় নিশানা ঠিক করতে না পারায় লেজে গোবরে হয়ে গেছে সবকিছু। চীনা বিশেষজ্ঞরা বলে গেছে বাংলাদেশ দিশা না পেয়ে অন্ধকারে ঢিল ছুড়ছে। সময়মতো কার্যকর পদক্ষেপ না নেয়ায় এই পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে। লকডাউন লকডাউন খেলা না খেললে হয়তো অল্পতেই রাশ টানা যেত। অর্থনীতি বাঁচাতে গিয়ে মানুষের জীবন এখন হুমকির মুখে। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের বেহাল দশা দেখেও কোনো পদক্ষেপই নেয়া হচ্ছে না। পুরনো সহকর্মী সাহসী কলম যোদ্ধা পীর হাবিবুর রহমান ব্যর্থ স্বাস্থ্যমন্ত্রীর অব্যাহতি চেয়ে নিবন্ধ লিখেছেন। তার লেখায় মুনশিয়ানা আছে। কিন্তু কে নেবে ব্যবস্থা। অতীত অভিজ্ঞতা বলে ব্যর্থরাই টিকে থাকেন। অভিজ্ঞ আর দক্ষরা আগে-ভাগেই বিদায় নেন। ব্যর্থতা নেই কোথায়? টাকা লুট হচ্ছে। টাকা বিদেশেও পাড়ি দিচ্ছে। টিআইবি’র দেয়া তথ্যমতে, প্রতিবছর ২৬ হাজার চারশ’ কোটি টাকা অবৈধভাবে দেশ থেকে চলে যাচ্ছে। কোনো বিচার হয়নি। কোনো উদ্যোগও নেই। মেগা প্রকল্পে মেগা দুর্নীতির খবর এখন মুখে মুখে। ক্যাসিনোকাণ্ডে আমরা সবাই প্রত্যক্ষ করলাম। সমালোচকদের কণ্ঠ চেপে ধরতে যে দক্ষতা দেখানো হচ্ছে তার সিকিভাগও যদি ব্যর্থতার আমলনামা পরখ করে দেখা হতো মনে হয় সংকট গভীর হতো না। তাহলে হয়তো দেশ বেঁচে যেত। আমরা উন্নয়নের জয়গান গাইতে পারতাম। কে না জানে সবকিছুরই একটা বিজ্ঞান আছে। বিজ্ঞানের বাইরে সমাধান খুঁজলে বিপর্যয়ের জন্য প্রস্তুত থাকতে হয়। রাষ্ট্রে কি না হয় তা নিয়ে ক’জন ভাবে! সবাইতো অন্ন চিন্তা নিয়ে ব্যস্ত। কারণ অন্ন চিন্তা অন্য সব চিন্তাকে ভুলিয়ে দেয়। করোনা বিশ্বমানচিত্রে পরিবর্তন এনে দিয়েছে। রাজনীতিও বদলে যাবে এমনটাই স্বাভাবিক। আমরা এখন একটি শব্দের সঙ্গে পরিচিত তা হলো ‘নিউ নরমাল’।

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

সাইফুল ইসলাম ফিরোজ

২০২০-০৬-২৬ ১০:০৪:৩৭

মতি ভাই একজন অভিজ্ঞ সাংবাদিক। আমি তাঁর একজন ভক্ত। তিনি লিখেছেন বিএনপি কে চালায়, কিভাবে চলে কেউ জানে না। কথাটা কতটুকু যৌক্তিক মতি ভাই নিজই একটু চিন্তা করে দেখবেন। এই সরকারের একনায়কতান্ত্রিক শাসন আমলে আপনারা কি স্বাধীনভাবে লিখতে পারছে? আপনারা কি সাগর রুনী হত্যার বিচার করতে পেরেছে। যে দেশে সাংবাদিকদের নিরাপত্তা নাই সে দেশের রাজনীতিবিদদের কি অবস্থা হতে পারে? অবৈধ এরশাদ সরকারের শাসনামলে সাংবাদিকদের রাস্তায় আন্দোলন করতে দেখেছ। কিন্তু মধ্যরাতের নির্বাচনের পর গনতন্ত্র ও মানুষের ভোটাধিকার রক্ষার জন্য একদিনের জন্য আন্দোলন তো দূরে থাক মানববন্ধন করতে পেরেছেন? স্বৈরশাসক এর বিরুদ্ধে শুধু রাজনৈতিক দলের একার পক্ষে মোকাবিলা করা সম্ভব নয়। এখন সময় এসেছে রাজনৈতিক দল, সাংবাদিক, সুশীল সমাজ এক হয়ে গনতন্ত্র ও নাগরিকদের ভোটাধিকার নিশ্চিত করতে ঐকবদ্ধ আন্দোলনে।

Md.Abdul Jalil khuko

২০২০-০৬-২৬ ০৬:১০:০৩

বিশ্লেষণ ধর্মীলেখার জন্য লেখক কে ধন্যবাদ।বিএনপি সম্ভবত এখন ও ক্ষমতার মোহের মধ্যে আছে।লেখক দলটির যে সকল ভুলের কথা তুলে ধরেছেন তা যথার্ত।তবে একটি দল পথ পরিক্রমায় ভুল করতেই পার। ভুল করে ভুলের কারণ চিহ্নিত করে তা থেকে উত্তরণের উপায় বাহির করা হচ্ছে যথার্ততা।বিএনপি যত তাড়াতাড়ি নিজকে শোধরাতে পারবে তত তাড়াতাড়ি দলটির যেমন মংংগল তেমন দেশের ও।কারণ সরকার যত ভালো করুক না কেন যদি সমকক্ষ আরেকটি দল সরকারের বাহিরে না থাকে তা দেশ ও জাতির জন্য খুবই বিপজ্জনক।

MD. Rafiquel Islam

২০২০-০৬-২৫ ১৯:৪০:৫৬

Absolutely correct

shah

২০২০-০৬-২৬ ০৪:১০:৪১

The BNP is currently suffering from Covid-19( Corona}. Ventilator needed!!!!

Shafiul Alam Dolon

২০২০-০৬-২৬ ০২:২৩:০৮

দলটির এখনো যথেষ্ট সম্ভাবনা রয়েছে। কিন্তু ওই যে মতিভাই বলেছেন, দলটির ভিতরে অন্য পক্ষের শেয়ার হোল্ডার বেশি। কাজেই সাফল্য পেতে হলে ওই শেয়ার হোল্ডাদের সবগুলোকে একসঙ্গে ছুটি দিয়ে জাতীয় এবং আন্তর্জাতিক উভয় ক্ষেত্রেই সঠিক সিদ্ধান্ত নিতে হবে। কিন্তু তার বদলে দেখা যাচ্ছে যেই লাউ, সেই কদু। দলের ভিতরে ক্ষমত্সীন দলের যেসব শেয়ার হোল্ডারদের কারণে দীর্ঘ দুই বছরেরও বেশি সময় খালেদা জিয়া জেল খেটেছেন। যাদের জন্য দুই হাতই পংগু হয়ে গেছে। মুক্তি পাবার পর তারাই আবার যথাযথ স্থানসমূহে অধিষ্ঠিত হয়ে গেছেন।

Anima Ali

২০২০-০৬-২৫ ২৩:৪০:৫৮

Govt er somalochona korle jehetu jail e jete hobe, ashun amra sobai shob situation e shudhu BNP er e somalochona kori. Awamali League democracy ke kill korese forever... ashun tar jonno o amra BNP er e somalochona kori.

Mohammad hossain

২০২০-০৬-২৫ ০৯:৪৬:১৪

mr motiur Rahman, due to respect BNP Did mistake done alliance with someone is wrong in your eyes. Unfortunately do not criticised rigging election and blatant third party interference in a independent county??? This is not shame claimed independent county and blame always a party. Also you appreciate pir habib for his column criticising health ministry but real problems is illegal head of the state. We celebrate victory day every year tell me please where is independent ?if a regional power control election? People's can't vote?

শরীফ

২০২০-০৬-২৫ ২২:১৩:০০

বি এন পি এখন ইতিহাসের পাতায় জায়গা করে নিয়েছে .। বি এন পি এখন কিছু বলতে হলে সরকার থেকে অনুমতি নিয়ে কথা বলতে হবে । আপনি বি এন পির মত ফালতু দল্টার জন্য চিন্তা না করে বর্তমান সরকারকে বুদ্দি পরামর্শ দিন যেন আওয়ামিলীগ সরকার এই দেশটাকে যতটুকু এগিয়ে নিয়েছে ভাল ভাবে আরো এগিয়ে নিয়ে যেতে পারে । বি এন পির দ্বারা দেশের জন্য কোন দিন কিছু হয় নাই আর ভবিষ্যতেও হবে না ।

রিপন

২০২০-০৬-২৫ ২১:৫৫:৪৩

বিএনপির প্রতি লাগাতার বিমাতাসুলভ আচরণ গালমন্দ চালিয়ে কী করে আশা করা যায় যে, বিএনপি একাই সমাজ পরিবর্তন করবে? কোন দলের পক্ষে কি আদতেই সম্ভব একাই পরিবর্তন ঘটাবে? বিশ্বের ইতিহাসে অমন নজির একটিও নেই। সামাজিক পুনর্গঠন আন্দোলন কারো একক দায় দায়িত্ব নয়, এ দায় দায়িত্ব সামষ্টিক, সকল মহলের। "বিদ্যুৎ ও জ্বালানির দাম বৃদ্ধির পক্ষে আইন পাস হলে আন্দোলনের হুঁশিয়ারি বিএনপির" - আপামর জনগোষ্ঠীর পক্ষে বিএনপির এই সাম্প্রতিকতম সোচ্চার আওয়াজটি দেশের কোন সংবাদপত্রেই ঠাঁই পায় নি, একমাত্র ইত্তেফাক ছাড়া। কেন ইত্তেফাক ছাপালো সংবাদটি? না ছাপিয়ে ওই জায়গাটুকু আউয়ামিদেরকে তেল মারায় খরচা করলেও তো পারতো। কেনর উত্তর ভাবনা চিন্তা করে যা পেলাম তা হলো একমাত্র দৈনিক ইত্তেফাকই আজ পর্যন্ত গণতান্ত্রিক ধ্যান ধারণা মূল্যবোধের প্রতি মনের গহীনে শ্রদ্ধা ভালোবাসা মমতা পোষণ করে। মানবজমিনের অবস্থান কী? বিএনপির পদক্ষেপ, কর্মসুচি এসবকে তার ন্যায়সঙ্গত পাওনা অধিকার - নিউজ কভারেজটুকুনও দিতে অনিচ্ছুক, উল্টো বিএনপির নিন্দাচর্চায় মেতে গেছে। বিষয়টি কি আর আদৌ গণতন্ত্র চর্চার পর্যায়ে রইলো? প্রকৃতিতে কোন কিছুই ফাঁকা শূন্য পড়ে থাকে না। ভলতেয়ার মানের পরমত সহিষ্ণুতা, সর্বজনীন মানের গণতন্ত্র অনুশীলন আর বাংলার একদার সুলতান মানের তথা শাসকের তলোয়ারকে অবলীলায় নির্ভীক চাবুক হাঁকানো স্বাধীন সার্বভৌম বিচার বিভাগ যেখানে থাকে না, সেখানে ইবলিস শয়তানের স্বৈরতন্ত্র এসে দখলে নিয়ে নেয় শূন্য পড়ে থাকা ফাঁকা জায়গাটি।

শহীদ আহমদ

২০২০-০৬-২৫ ০৮:৫২:৫৯

আপনি ভালো লিখেন ভালো বলেন। পারলে একটা নতুন প্লাটফর্ম গড়ে তুলতে মতামত দিন যেখানে লোভ লালসা বিহীন সৎ মানুষের ইস্পাত কঠিন ঐক্য থাকবে । বর্তমানের ধান্দাবাজ দল ও নেতাদের দিয়ে কিছু আশা করলে জাতি আরও পিছিয়ে পড়বে। দেশটাকে বাঁচান।

Sharif azad Choudhur

২০২০-০৬-২৫ ০৮:৩৩:৫০

সাজানো র্নিবাচনের ফলাফল নিয়ে বিএনপিকে দোষারূপ করা কি যৌক্তিক ?

Kamrul

২০২০-০৬-২৫ ০৮:০৬:২৫

Thanks Moti Bhai for nice and pragmatic article. At the same time I observed some public comments about it. Still I am confused and sad why our young and educated classes not think beyond AL or BNP. BNP was the root cause of present situation. They rolled the ball to the opponent and finally they are out of track with their legal married partner. I agreed some comments , BNP is in ICU now that’s why AL is taking chances over everything. I am sure AL have pay the price in future . They can défend BNP but not stop people’s voices. Some hybrid AL leaders is enough for dooming the entire political systems and country . At present people can’t say anything due to Premier S Hasina. She is the only hope of the nation and sometimes is misguided by some over reacting leaders. If there was a balanced parliament in the country it could be very much positive of the nation. Thanks

জাফরুল আমিন

২০২০-০৬-২৫ ২০:৩৯:৪৩

হঠাৎ বিএনপির রাজনীতির বিশ্লেষন ! করোনার এ দিনে ক্ষমতাসীনদের চেলাদের স্বাস্থ্য খাতের লুট পাট , ব্যক্তিগত সুরক্ষা সামগ্রীর অভাবে ডাক্তারদের মৃত্যুর মুখে নির্মমভাবে ঠেলে দেয়া , সারাদেশে রোগীদের অসহায়যত্ব , মানুষের জীবন আজ রাজনীতির হায়েনাদের মুখে সেখানে আপনার এ সব বিএনপি বিশ্লেষন এদেশের পাবলিককের (!) দৃষ্টি ফেরাতে চাচ্ছেন জনাব ? লাভ হবে না । মন্তব্যের ঘরে একতরফাভাবে শুধু চামচাদের একপেশে তৈলাক্ত মন্তব্য গুলি প্রকাশ করছেন , অন্ন্যগুলে চেপে যাচ্ছেন , বুঝতে কষ্ট হচ্ছে না আপনার মিশন !

Shabbir Ahmed

২০২০-০৬-২৫ ০৬:১৯:১৫

মতি ভাইর বিশ্লেষণ এবং বাস্তবতা সব সময় প্রাসঙ্গিক।চমৎকার বিশ্লেষ!!

JOBAIR MINTO

২০২০-০৬-২৫ ১৯:১০:৪০

জনাব, আপনার কথায় মনে হইল,এদেশে ক্ষমতার পালাবদল কখনো জনগণের রায়ের মাধ্যমে সম্ভব নয়। আরেকটি প্রশ্ন সবিনয়ে আপনার কাছে করতে চাই,বিএনপি যে তার কৌশলে ভুল করছে তাকি আপনি এখন বুঝতে পেরেছন নাকি আগে থেকে জানতেন ?

Muhammad Faruk Ahama

২০২০-০৬-২৫ ১৮:৫১:০২

অসাধারণ এবং চমৎকার লেখনী.........সংক্ষিপ্ত কিন্তু গভীর বিশ্লেষণাত্মক।..ধন্যবাদ প্রিয় মতিউর রহমান চৌধুরী

Md. Harun al Rashid

২০২০-০৬-২৫ ০৫:৪২:২৩

Everything is in the right tract as per their own plans and policies except the media including our favorite Manabzamin.

nurul choudhury

২০২০-০৬-২৫ ১৭:৫৯:১৩

Fantastic write up.

Sirajulislam

২০২০-০৬-২৫ ০৪:১৪:৪৮

চমৎকার লিখেছেন ।

kamrul

২০২০-০৬-২৫ ১৭:১৪:২৩

‌‌দেশে কোনো রাজনীতি আছে নাকি ?? আবার বলা হয়েছে তিন তিনবার জাতীয় নির্বাচন হয়েছে। আসলেই কি সেগুলো নির্বাচন ছিলো ?? দেশে এতো অন্যায়, অত্যাচার, লুটপাট, ধ্বংস নিয়েও কিছু লিখবেন আশা করছি।

MD.Razaul karim

২০২০-০৬-২৫ ০৩:৩৭:২২

শ্রদ্ধেয় বড় ভাই কে অসংখ্য ধন্যবাদ, আজ দুই এক টি কথা না লিখে পারলাম না।তাই কিছু কথা মনের অজান্তে লিখে দিলাম।কথাই আছে না পাপ বাপকেও ছাড়ে না।তো আজ বিএনপি নামক দলটির এই অবস্থা। বাংলাদেশের রাজনীতির পরিবেশ নষ্ট করেছে এরা।আমরা তো DNA শব্দটির সাথে অনেকে পরিচিত।DNA যেমন বংশগত বৈশিষ্ট্য বহন করে,সেটা ভাল ও খারাপ দুই বৈশিষ্ট্য বহন করে।তাই বিএনপির পূর্বপুরুষরা যে পাপ করেছে সেই খারাপ বৈশিষ্ট্য গুলো তাদের সন্তানের উপর আসবে এটাই স্বাভাবিক। জীবনে বেঁচে থাকার জন্য বেশি টাকার দরকার হয় না।আপনি বা আমরা ভুলে গেলে চলবে না।সারা দিন আপনি হারাম কাজ,হারাম টাকা উপার্জন করবেন আর আযান দিলে নামাজ পড়বেন কোন লাভ হবে না।অবৈধ সম্পত্ত আপনার পিছু ছাড়বে না।

Ferdous

২০২০-০৬-২৫ ০৩:৩৪:৫৭

সবে মতামতে যার যার বুদ্ধিমত্তার পরিচয় দিয়েছেন বেশ ভাল কথা!আমার কথা হল দেশে রাজনীতি থাকলে রাজনীতি নিয়ে ভাবা যেত!অযথা এ সব নিয়ে চিন্তা করে লাভ নেই! জীবন কেমনে বাঁচবে সেটা নিয়ে ভাবনার বিষয়!

মো.রেজাউল করিম

২০২০-০৬-২৫ ০৩:১৯:২১

কথাই আছে না পাপ বাপকেও আছে না,তো বিএনপির এই অবস্থা হয়েছে।আমরা তো বিশ্বাস করি জিনগত বৈশিষ্ট্য, ধরে নিন বিএনপির সৃষ্টির শুরু থেকে যে পাপ করেছে ঐগুলো এখন পরিবর্তী বংশধরের উপর পড়েছে।এই বিএনপি নামক দলটিকে সামনে আরো পাপ মোচনের জন্য অপেক্ষা করতে হবে।বাংলাদেশের রাজনৈতিক পরিবেশ তো নষ্ট করেছে বিএনপি।সবশেষে বলতে চাই এই দেশের রাজনীতি এখন আর রাজনীতি বিদদের হাতে নাই।আসুন আমরা সবাই মিলে দেশকে ভালবাসি,দেশের জনগনকে ভালবাসি।জীবনে বেঁচে থাকার জন্য খুব বেশি টাকার দরকার নাই।

jonogon

২০২০-০৬-২৫ ১৫:৫৫:৩৬

বিএনপি চালায় লন্ডন-মালায়শিয়া সিন্ডিকেট। অযোগ্য অপদার্থ পুত্রকে দলের উত্তরাধিকার বানাতে গিয়ে মা দল ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে নিয়ে এসেছেন। এই পুত্রের আশেপাশের কাছের লোকজনদের দেখুন- সব দুর্নীতিবাজ, অশিক্ষিত/আধা-শিক্ষিত, আনস্মার্ট, বাজে লোকজন। লন্ডনের মতো জায়গায় যেখানে লবিং করতে হয় হাউজ অফ কমন্স এ পার্লামেন্টে , সেখানে তার নির্বাচিত ইউকে কমিটি দেখুন! তার উপদেষ্টাদের দেখুন! বিএনপি ঘরানার কম করে হলেও হাজার শিক্ষিত মার্জিত পরিচ্ছন্ন নেতাকর্মী/সমর্থক/নেতাকর্মীদের উচ্চশিক্ষিত ছেলে-মেয়ে আছে ইউকে ইউরোপে। কিন্তু তাদের উনার পছন্দ না। বিগত নির্বাচনে এই সিন্ডিকেট কম করে হলেও ৬০-৭০টি আসনে নিজের দলের লোকদের কাছ থেকেই টাকা খেয়েছে। কমিটি বানিজ্য ২০১৬ থেকে চলছে তো চলছেই। এতো জনসমর্থন নেতাকর্মী থাকার পরও একটা দল ঘুরে দাঁড়াতে পারছেনা কেন? কারণ পোড় খাওয়া নেতাকর্মীরা বিরক্ত। না পারে সইতে না পারে কইতে।

Khalil mazumder

২০২০-০৬-২৫ ০২:৫১:০৯

আপনার লেখনি আপনি চালিয়ে যান, অসাধারণলিখেছেন অসাধার, দুদলেরই বিশ্লষণ সুন্দর হয়েছে।

মুরাদ

২০২০-০৬-২৫ ০২:১২:২৭

আপনার লেখা পড়ে মনে হল সব দোষ শুধু বিএনপির। অতীতেে গুম, গায়েবি মামলা ছিল না। প্রথম আলোর ভয়ংকর সেপ্টেম্বর নামেে একটা রিপোর্ট পড়েছিলাম। সেখানে বলা হয়েছে কিভাবে বিএনপি নেতা কর্মীদের নামে গায়েবি মামলা দিয়ে গ্রেফতার বাণিজ্য হয়েছে। এসব বাংলাদেশের জনগণ ঠিকই মনে রেখেছে। আল্লাহ মানুষকে ছাড় দেন কিন্তু ছেড়ে দেন না। হিসাব একদিন দিতেই হবে।

KM Mozibul Hoque

২০২০-০৬-২৫ ০২:০৯:১৯

Report of reality! Leadership should review this article and consider the positive contents which may contribute for their forward ,

Azad hossain

২০২০-০৬-২৫ ০২:০৭:৫৯

এ সত্য কথা গুলো বুঝার মানুষ ও তো কম, সবাই ছুটছে নিজেকেনিয়।

Sarwar Hossain

২০২০-০৬-২৫ ১৪:২৯:০৪

BNP suffers from leadership crisis. Simple is that. The place of strength has turned into enmity. Top leadership is illiterate, low intelligent, egoistic, corrupt and arrogant always suffer from inferiority complex, unable to assess the situation and make the correct decision. Being always surrounded by the sycophants, top leadership probably lost the sense to realize and understand what is right or wrong or what is politics. This party did not make a single attempt face lift its bad image created in 2001-06 regimes. Deliberately divorced the effective, renown and honest leaders from the party. They can probably never lead this party to power any more.

Advocate Md. Abdus

২০২০-০৬-২৫ ১৪:২৭:১৭

ধান ভানতে সীব এর গীত, এখন করোনাকাল, আমাদের দরকার জেসিন্ডা আরডেন, জাজট্রিন ট্রডো এর মত নেতা যারা সামনে থেকে নেত্রিত্ব দিবে। ওবায়দুল কাদের বা জাহিদ মালিক সাহেবদের মত ঘবে থেকে লাদেন এর মতো ভিডিও বার্তা দিয়ে জাতিকে উদ্ধার করবে, উনারা কেউ করোনা চিকিৎসার জন্য নিয়োজিত হাসপাতাল ভিজিট করে নাই। বিএনপি হিমাগারে, বিএনপিকে নিয়ে ঐসব লিখে লাভ কি? বিএনপিকে নিয়ে লিখলে কি দেশ উদ্ধার হবে। অনুরোধ করবো মন্ত্রীরা করোনা হাসপাতাল ভিজিট করছে না কেনো? সে বিষয়ে লিখেন, যে লেখা কাজে আসবে।

M A Hafiz

২০২০-০৬-২৫ ১৩:১৭:০০

Dear Sir, Thanks for your excellent writing about BNP and present related tropic.

আবুল কাসেম

২০২০-০৬-২৫ ০০:১৬:২০

যারা বিচক্ষণ তাদের জন্য এই লেখাগুলোর ভেতর রয়েছে অফুরন্ত খোরাক। বিএনপির মতো নির্বোধের জন্য রয়েছে হয়তো কথার বাচালতা। আমি যারপর নেই অবাক ও বিস্মিত হয়েছিলাম সেদিন, যেদিন ভারতের মাননীয় রাষ্ট্রপতি প্রনব মুখার্জি খালেদা জিয়ার সাথে সাক্ষাৎ করতে সোনারগাঁওয়ে অপেক্ষমাণ ছিলেন। খালেদা জিয়া হটকারি হরতালের অজুহাতে তাঁর সঙ্গে সাক্ষাৎ করলেননা। খালেদা জিয়ার অপমান নিয়ে তিনি বাংলাদেশ ছাড়লেন। এ অপমান প্রনব মুখার্জির শুধু নয়। এ অপমান বাংলাদেশের প্রতিটি নাগরিকের। এ অপমান বাংলাদেশের মানচিত্রের। শিক্ষা দীক্ষা, যোগ্যতা ও মান মর্যাদার বিচারে প্রনব মুখার্জির সাথে এক ধরনের বেয়াদবীই হয়েছে। রাজনৈতিক প্রজ্ঞা না থাকলে যা হয় আরকি! করোনা ভাইরাসের সাগরে হাবুডুবু খেতে খেতে বেদিশা আমরা অন্ধকারে ঢিল ছোঁড়ার কথা তো চীনারাই বলে গেলেন। এখানে আমরা এখন বিমূঢ়, বিহ্বল হতবুদ্ধি! মনে মনে বলি আল্লাহ ভরসা !!

Rezaul Karim jewel

২০২০-০৬-২৫ ০০:১৪:১৯

agree with your every point..thank you much

আবুল বাশার

২০২০-০৬-২৫ ০০:০০:৫১

মতি ভাই কে এমন একটি লেখার জন্য অনেক ধন্যবাদ। আমি নিজেও ভাবি যে বিএনপিকে চালাচ্ছেন কারা? আমি নিজেও বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রদলের রাজনীতির সাথে জড়িত ছিলাম। কিন্তু এমন অপদার্থ টাইপের এবং মেধাহীন রাজনীতি বাংলাদেশের ইতিহাসে দেখছে কিনা সন্দেহ আছে!! বিএনপি অফিসতো দখল করে প্রতিদিন কবিতা আবৃত্তি করছেন জনাব রিজভী আহমেদ। তাতে বুদ্ধিবৃত্তির কোন বালাই নাই! রাজনীতি হলো বাঘে-মহিষের লড়াই। সেখানে থাকবে তার বিরোধীপক্ষ কে ঘায়েল করার যতো সব মেকানিজম! আর বিএনপির কমিটিগুলো দেখলে মনে বাংলাদেশে বুঝি বিএনপি করার লোকের অভাব হয়ে পড়েছে!! আব্দুল্লাহ আল নোমান, মেজর হাফিজ, মওদুদ আহমেদ, ওলি আহমেদ এর মতো ঝানু রাজনীতিবিদরা কথা বলতে পারছে না! লন্ডন থেকে বসে একটা কমিটি চাপিয়ে দিলেই দলে দলে লোক বিএনপিকে বাঁচাতে রাস্তায় হুমড়ি খেয়ে পড়ার দিন শেষ। বিএনপির নেতাকর্মীদের মধ্যে নেতৃত্বের প্রতি আস্থাহীনতা অনেক দিন থেকেই। আজকের দিনে সেটা আরো প্রকটভাবে দেখা যাচ্ছে। রিজভীর কথা ৯০% মানুষই আর শুনতে চায় না। সব অন্তঃস্বার শূন্য। আলাল ভাই, দুদুভাই কে ফ্লোর দিলে হয়তো কিছু বলতে পারতো! সুতরাং বিএনপিকে কবে মাঠে পাওয়া যাবে তা সৃষ্টিকর্তাই বলতে পারবেন! তবে হলফ করে বলতে পারবো এদের দিয়ে হবে না!! তাবিথ আউয়াল বা ইসরাকের মতো ইয়াং জেনারেশন কে দিয়ে কিছু হয়তো আশা করা যেতে পারে! তবে লন্ডন থেকে চাপিয়ে দিলে কিছুই হবে না!

Muhammad Bashir Howl

২০২০-০৬-২৫ ১২:৫২:৩৮

! Dear Sir, Many many thanks for excellent writing.

Khaled

২০২০-০৬-২৪ ২৩:২৬:০৭

মতি ভাইযের লেখা অসাধারন. বিশেষ করে বিএনপি নিয়ে যা লিখেছেন তার প্রতিটা শব্দের সাথে একমত এই দলটা আসলেই কে চালায় তা ভাবার বিষয়. বাকি বিষয়গুলিতে কোন মন্তব্য করতে চাই না সংগত কারনেই..

আপনার মতামত দিন

মত-মতান্তর অন্যান্য খবর

কথার মারপ্যাঁচ

৩ আগস্ট ২০২০

সফলতার মূলমন্ত্র!

২৭ জুলাই ২০২০

রম্য কথন

শাহেদের শখ এবং বোরকা কাহিনী

১৯ জুলাই ২০২০



মত-মতান্তর সর্বাধিক পঠিত