কলকাতা কথকতা

সোমবার ভারতে খুলছে শপিং মল, রেস্তোরাঁ - হোটেল, আরোপিত বেশ কিছু শর্ত

জয়ন্ত চক্রবর্তী, কলকাতা

কলকাতা কথকতা ৫ জুন ২০২০, শুক্রবার | সর্বশেষ আপডেট: ১০:২৫

সোমবার থেকে আনলক - ওয়ানের অঙ্গ হিসেবে ভারতে সব শপিং মল এবং হোটেল রেস্তোরাঁর দরজা খুলছে। কিন্তু তার আগে কড়া নিয়ম কানুন জারি করলো কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রক। এই নিয়ম কানুনের ফলে আড়াইমাস আগে বন্ধ হয়ে যাওয়া মল আর হোটেল, রেস্তোরাঁ আগের অবস্থায় ফিরতে পারছে না তা নিশ্চিত ভাবেই বলা যায়। শপিং মলগুলোতে ফুটফল বা মানুষের আনাগোনার ব্যাপারে কড়া নজরদারি রাখা হবে। উইন্ডো শপিং করতে আসা এবং ফুডকোর্টে সময় কাটানো মানুষের গতিবিধি নিয়ন্ত্রিত হবে,। একটি সমীক্ষা জানাচ্ছে গড়পড়তা মানুষ শপিং মলে সময় কাটায় পৌনে তিন ঘন্টা। এই সময় কাটছাঁট করে একঘন্টা করা হচ্ছে। শপিং মলে একসঙ্গে কত মানুষ থাকতে পারনেন তাও নির্দিষ্ট করা হচ্ছে।
কলকাতার অন্যতম বৃহৎ মল সাউথ সিটির মোট আয়তন সাত লক্ষ চল্লিশ হাজার বর্গফুট। সপ্তাহের সাধারণ দিনে এখানে দৈনিক ফুটফল ছিল ত্রিশ থেকে চল্লিশ হাজারের। রবিবার সংখ্যাটি দাঁড়াতো এক লক্ষ থেকে এক লক্ষ কুড়ি হাজার। সৎ সিটি তে মোট বিভিন্ন শো রুম রেস্তোরাঁর কর্মী সংখ্যা আড়াইহাজার। এই মলে একসঙ্গে দশ হাজারের বেশি মানুষের সমাগম নিষিদ্ধ। ফলে, সাড়ে সাত হাজারের বেশি সাধারণ মানুষ ঢুকতে পারবে না এই মলে। পাঁচ লক্ষ বর্গফুট এর মানি স্কোয়ারে সাড়ে ছ হাজারের প্রবেশাধিকার। এছাড়াও থার্মাল স্ক্রিনিং, সানিটাইজেশন, মাস্ক বাধ্যতামূলক। হোটেল রেস্তোরাঁর ক্ষেত্রে কেবলমাত্র উপসর্গহীনরা কাজ করতে পারবেন। হোটেলের ক্ষেত্রে গেস্টকে সেলফ ডিক্লেরেশন দিতে হবে। গেস্ট এর লাগেজ স্যানিটাইজ করার পরই রুমে নিয়ে যাওয়া যাবে। রুমসার্ভিসের ক্ষেত্রে মোবাইলে অর্ডার নেয়া যাবে এবং স্বাস্থ্য বিধি মেনে পরিষেবা দিতে হবে। রেস্তোরাঁর ক্ষেত্রে পেপার ন্যাপকিন ব্যবহার বাধ্যতামূলক। কাপড়ের ন্যাপকিন আর নয়। দশ জনের টেবিলে এখন ছজন বসবেন। ডিস্পোসেবল খাবার এবং হোম ডেলিভারিতে জোর দিতে বলা হয়েছে রেস্তোরাঁগুলোকে । রেস্তোরাঁর মধ্যে সেলফি তোলা নিষিদ্ধ করা হয়েছে। অর্থাৎ সোমবার থেকে মল, রেস্তোরাঁ, হোটেল খুললেও সেই চেনা ছন্দ ফিরে পেতে লাগবে আরও কয়েক মাস।

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

সুমন কর্মকার

২০২০-০৬-০৫ ২০:৩৫:২৫

খুলে দেয়া হোক সব পর্যটন কেন্দ্র গুলি অবশ্যই নিয়ম বিধি মোতাবেক। তাহলে সরকারের ও আয় বাড়বে, অনেক মানুষের কাজ ও ফিরে আসবে।

আপনার মতামত দিন

কলকাতা কথকতা অন্যান্য খবর



কলকাতা কথকতা সর্বাধিক পঠিত