স্ত্রী সন্তানের হাতেই খুন হন কৃষক রফিকুল

বগুড়া প্রতিনিধি

বাংলারজমিন ২৯ মে ২০২০, শুক্রবার | সর্বশেষ আপডেট: ৯:০৮

হত্যাকান্ডের ১১ মাস পর লাশের সন্ধান পেলো পুলিশ। তারপর মাটি খুড়ে মাথার খুলি মিললো বগুড়ার কৃষক রফিকুলের। রহস্যও উদঘাটন হয়। নিজের স্ত্রী এবং সন্তানের হাতেই তিনি খুন হন। কারণ স্ত্রীর পরকীয়ায় বাঁধা।
হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত মহিদুল এবং শাকিল নামের দু’জনকে আটক করার পর তাদের দেয়ার তথ্যের ভিত্তিতে শুক্রবার মৃতের মাথার খুলি এবং গলিত দেহ উত্তোলন করে বগুড়া জেলা পুলিশের টিম। ওই হত্যার সাথে জড়িত আরো দু’জনকে আটক করা হয়। পরকীয়া প্রেমের বাধা সরাতেই কৃষক রফিকুলকে হত্যা করা হয় বলে জানিয়েছে পুলিশ।
শুক্রবার বগুড়ার পুলিশ সুপার আলী আশরাফ ভূঞাঁর উপস্থিতিতে পানির মধ্য থেকে কৃষক রফিকুলের গলিত মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়।
জানা গেছে, ২০১৯ সালের ১ জুলাই সোনাতলা সদর ইউনিয়নের রানিরপাড়া গ্রামের কৃষক রফিকুল ইসলাম (৪৭) নিখোঁজ জানিয়ে তার পরিবার সোনাতলা থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করে। জুন মাসের ১৫ তারিখ থেকে রফিকুল নিখোঁজ বলে উল্লেখ করা হয়। এরপর  ১১ মাসেও কৃষক রফিকুলের কোন হদিস পাওয়া যাচ্ছিল না। এর মাঝে গত বৃহস্পতিবার রাতে উপজেলার তেকানিচুকাই নগরের শাকিল (২২) নামের এক যুবককে আটক করে পুলিশ। এরপর তার দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে মহিদুলকে আটক করা হয়। পরে নিখোঁজ রফিকুলের স্ত্রী রেহানা এবং ছেলে জসিমকে আটক করা হয়। এরপর তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করলে কৃষক রফিকুলের স্ত্রীর গোপন প্রেমের ঘটনা বেরিয়ে আসে। পরে পুলিশের নিবিড় জিজ্ঞাসাবাদে তারা স্বীকার করে মুহিদুল, রফিকুলের বউ রেহানা, ছেলে জসিম এবং রেহানারা বোনের ছেলে শাকিল মিলে রফিকুলকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করেছে। এরপর তারা রফিকুলের লাশ বস্তায় ভরে বাড়ি থেকে এক কিলোমিটার দূরে বগুড়া সোনাতলা রেলাইনের পাশে প্রায় তিনফুট গর্ত করে পুঁতে রাখে। পরকীয়া প্রেমের বাঁধা সরাতেই রফিকুলকে হত্যার পরিকল্পনা করা হয় বলে জানায় রেহানা এবং মুহিদুল। বাবাকে হত্যা করতে ছেলেকে মা রেহানা বাবার নামে মিথ্যা অপবাদ দিয়ে ভুল বুঝিয়ে তাদের দলে সামিল করে। এরপর ঘটনার দিন রফিকুলকে রাতে খাবারের সাথে ঘুমের ওষুধ খাইয়ে গভীর ঘুমে আচ্ছন্ন করার পর তার গলাটিপে হত্যা করে। হত্যাকাণ্ডে তারা চারজনই সক্রিয়ভাবে অংশ নেয়। এরপর শাকিল, মুহিদুল এবং জসিম লাশ ঘাড়ে করে রেললাইনের পাশে নিয়ে পুঁতে রাখে।
বগুড়ার শিবগঞ্জ ও সোনাতলা সার্কেল এএসপি কুদরত ই খুদা শুভ জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে আমরা প্রথমে মহিদুল এবং শাকিলকে আটক করি। এরপর তাদের দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে নিহতের স্ত্রী রেহানা এবং ছেলে জসিমকে আটক করা হয়। নিহতের ছেলে জসিমকে তার মা রেহানা অর্থের লোভ দেখিয়ে হত্যাকান্ডে সামিল করে। বেলা সাড়ে ১১টায় মহিদুল এবং শাকিল দেয়া তথ্যে সোনাতলা রেলাইনের পাশের জমি থেকে নিহত রফিকুলের লাশ উত্তোলন করা হয়। গ্রেফতারকৃতদের সোনাতলা থানা হাজতে রাখা হয়েছে।

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

Md. Shahid ullah

২০২০-০৫-২৯ ২৩:৫৮:১২

চার জনের ফাঁসিতে দন্ডের নিউজটা যেন দেখি।

আপনার মতামত দিন

বাংলারজমিন অন্যান্য খবর

বাসাইলে ১৯ মাসের শিশু করোনা আক্রান্ত

৫ জুলাই ২০২০

টাঙ্গাইলের বাসাইলে ১৯ মাসের এক কন্যা শিশু করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে। করোনা আক্রান্ত শিশু মাইশা উপজেলার ...

রাজনগরে নতুন করে ৪ জনের করোনা শনাক্ত

৫ জুলাই ২০২০

মৌলভীবাজারের রাজনগরে নতুন করে ৪ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। তাদের মধ্যে ২ জন রাজনগর হাসপাতালের ...

শিবগঞ্জ সীমান্তে বিএসএফ’র গুলিতে বাংলাদেশি নিহত

৫ জুলাই ২০২০

চাঁপাই নবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ সীমান্তে বিএসএফ’র গুলিতে এক বাংলাদেশি নিহত হয়েছেন। নিহত বাংলাদেশি শিবগঞ্জ উপজেলার শাহবাজপুর ...

পাঁচবিবিতে মাছের সঙ্গে শত্রুতা

৫ জুলাই ২০২০

জয়পুরহাটের পাঁচবিবি উপজেলার কুসুম্বা ইউনিয়নের রহমতপুর নামা বাঁশখুর গ্রামে গত শুক্রবার শিং-মাগুর চাষের পুকুরে রাতের ...

লক্ষ্মীপুরে দুই ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত ২

৫ জুলাই ২০২০

লক্ষ্মীপুরের রায়পুর-চাঁদপুর আঞ্চলিক মহাসড়কে মিনি দুই-ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষে দু’চালক নিহত হয়েছেন। এ সময় আহত হয়েছেন ...



বাংলারজমিন সর্বাধিক পঠিত