গাজীপুরে গণপরিবহন নিয়ন্ত্রণে মেয়রের নেতৃত্বে কাজ করছে ৬৩ টিম

স্টাফ রিপোর্টার, গাজীপুর থেকে

এক্সক্লুসিভ ২৭ মার্চ ২০২০, শুক্রবার | সর্বশেষ আপডেট: ১০:২৫

করোনা পরিস্থিতি মোকাবিলায় গণপরিবহন বন্ধের সিদ্ধান্ত থাকলেও গাজীপুরে সীমিত সংখ্যক, একেবারেই সীমিত সংখ্যক গণপরিবহন স্থানীয়ভাবে চলাচল করছে। তবে জেলা প্রশাসকের নেতৃত্বে গঠিত করোনা মোকবিলা সংক্রান্ত কমিটির পাশাপাশি গণপরিবহন নিয়ন্ত্রণে গাজীপুর সিটি করপোরেশনের মেয়রের নেতৃত্বে সিটির গঠিত ৬৩টি টিম নগর জুড়ে দায়িত্ব পালন করছেন।
গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র অ্যাডভোকেট মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম এ বিষয়ে জানান, গণপরিবহনের বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর দেয়া নির্দেশ যাতে পালন করা হয় সে ব্যাপারে আমাদের সকলের তৎপরতা রয়েছে। মাঠ পর্যায়ে নেমে আমরা পর্যবেক্ষণ করে যখন যা দরকার সেভাবে ব্যবস্থা নিচ্ছি। দূর-দূরান্তে চলাচল করতে না পারে এমনকি জরুরি প্রয়োজন ছাড়া ঘরের বাইরে যেতে না পারে, সেজন্য আরো কঠোরভাবে মনিটরিং করে ব্যবস্থা নেয়া হবে। সিটি করপোরেশনের ৬৩টি টিম বিভিন্ন এলকায় এ বিষয়ে দায়িত্ব পালনের পাশাপাশি নগরের অলিগলিতে মাইকিং করা হচ্ছে। পরিবহন শ্রমিক-মালিকদের প্রতি এ ব্যাপারে কঠোর নির্দেশনা রয়েছে। নগর, জেলা এবং ও আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর কর্মকর্তারাগণ সার্বিক অবস্থা পর্যবেক্ষণ করে এ বিষয়ে আরো কঠোর হচ্ছেন। আমরা সকলে মিলে দেশের মানুষকে সুস্থ রাখার জন্যে আন্তরিকতার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করতে চাই।
এদিকে, সকালে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের চান্দনা চৌরাস্তা থেকে ময়মনসিংহের দিকে বেশ কয়েকটি বাস ছেড়ে যেতে দেখা গেছে।
এমনকি সরকারি পরিবহন বিআরটিস্থির কয়েকটি দ্বিতল বাস চলাচল করতে দেখা গেছে। গাজীপুর টাঙ্গাইল সড়কেও বিচ্ছিন্নভাবে কিছু গণপরিবহন দেখা গেছে। এছাড়াও অল্প কিছু লোকাল বাস, সিএনজি অটোরিকশা, লেগুনা পরিবহন ও রিকশা চলাচল করছে কম সংখ্যক। সড়কে মানুষের চলাচল কম রয়েছে। তবে সকালে লেবার মার্কেটগুলোতে দিনমজুরদের জটলা দেখা গেছে। শহরের বিপণিবিতান ও মার্কেটগুলো বন্ধ রয়েছে। গাজীপুরে কর্মরত অন্তত ২০ লাখ পোশাক শ্রমিকসহ নানা শ্রেণি-পেশার কর্মজীবী মানুষ রয়েছেন। তাদের অনেকেই ততটা সচেতন না হয় হুটহাট বিনা প্রয়োজনে ঘরের বাইরে চলে যাচ্ছেন। সড়কে রাস্তায় বের হয়ে সার্বিক অবস্থা দেখার চেষ্টা করছেন। সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে এবং ঘরে থাকার জন্য আরও বেশি করে মাইকিংসহ প্রচারের পাশাপাশি আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কঠোর ভূমিকা প্রয়োজন রয়েছে বলে মনে করছেন অনেকে। ট্রাক-পিকআপ অটোরিকশাসহ বিভিন্ন যানবাহনের চলাচল করে অনেকে জেলার অভ্যন্তরে এমন কি ময়মনসিংহ- নেত্রকোনাসহ দূর-দূরান্তে যাচ্ছেন। যারা দূর-দূরান্তে তারা বলছেন, ১০-১৫ দিনের জন্য তাদের কর্ম প্রতিষ্ঠান বিশেষ করে পোশাক করাখানা বন্ধ হওয়ার কারণে নিজ নিজ বাড়িতে কিংবা আত্মীয়-স্বজনের সাথে দেখা সাক্ষাৎ করতে যাচ্ছেন।

আপনার মতামত দিন

এক্সক্লুসিভ অন্যান্য খবর

চিকিৎসক, নার্সসহ স্বাস্থ্যকর্মীদের জন্য হোটেল-গেস্ট হাউজে থাকার ব্যবস্থা

২৭ মার্চ ২০২০

করোনা সংক্রমণ মোকাবিলায় যে চিকিৎসক, নার্স ও স্বাস্থ্যকর্মীরা মানুষের সেবা করে চলেছেন, তাদের হাসপাতালের নিকটবর্তী ...

সরজমিন সিলেট

যেভাবে বদলে গেল নগরের দৃশ্যপট

২৭ মার্চ ২০২০

ব্যতিক্রমী মমতা

২৭ মার্চ ২০২০

ভারতে করোনা আক্রান্ত বেড়ে ৬৪৯ মৃত্যু ১৩

২৭ মার্চ ২০২০

ভারতজুড়ে চলছে ২১ দিনের লকডাউন। এরই মধ্যে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা দ্রুত হারে বেড়ে চলেছে। বৃহস্পতিবার ...



এক্সক্লুসিভ সর্বাধিক পঠিত