কালীগঞ্জে জমি সংক্রান্ত বিরোধে ফলদ গাছ কর্তন

বাংলারজমিন

কালীগঞ্জ (গাজীপুর) প্রতিনিধি | ৩ ডিসেম্বর ২০১৯, মঙ্গলবার
গাজীপুরের কালীগঞ্জে জমি সংক্রান্ত বিরোধের জেরে বিভিন্ন প্রজাতির ৩০/৩২টি ফলদ গাছ প্রতিপক্ষরা কর্তন করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। সোমবার সকালে কালীগঞ্জ উপজেলার জামালপুর ইউনিয়নের জামালপুর মধ্যপাড়া এলাকায় বিরোধপূর্ণ জমি থেকে ২০টি লিচু গাছ, দু’টি বরই, ১টি আকাশি, দু’টি জাম্বুরা, দুটি পেয়ারা, দুটি খেজুর ও ১৪/১৫ শতাংশের বাঁশঝাড় প্রতিপক্ষের লোকজন কেটে ফেলার অভিযোগ উঠেছে। সরজমিন গিয়ে স্থানীয় ও উভয়পক্ষের লোকজনের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, স্থানীয় করিম নেওয়াজ সরকার মৃত্যুকালে তিন মেয়ে ও মোট ৩২১ শতাংশ সম্পত্তি রেখে যান। মেয়েরা তাদের পৈতৃক সম্পত্তি ভোগ দখল নিতে গেলে উভয়ের মধ্যে ঝগড়া বিবাদের সৃষ্টি হয়। পরবর্তীতে স্থানীয় চেয়ারম্যান, মেম্বার ও স্থানীয় রাজনৈতিক ব্যক্তিবর্গ উভয় পক্ষের উপস্থিতিতে চার মাস আগে সালিশ বৈঠকে জমি মেপে সীমানা নির্ধারণ করে দেয়া হয়। সালিশ বৈঠকের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী মা’র সম্পদের উত্তরাধিকার হিসেবে মুজিবুর রহমানকে ৫৯ শতাংশ জমি মেপে তাকে বুঝিয়ে দেয়া হয়। পরে মুজিবুর গং সীমানা ঘেঁষে বেড়া দেয়। গতকাল সোমবার সকালে মুজিবুর গং তাদের দখলকৃত জায়গার ফলদ গাছ কর্তন করতে থাকে।
এতে মুজিবুরের খালাতো ভাই আরেক ওয়ারিশদার আব্দুল হাই গাছ কাটতে নিষেধ করেন। এ নিয়ে উভয়পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করে। এ ব্যাপারে আব্দুল হাই বলেন, ৫৯ শতাংশ সম্পত্তির মধ্যে ৩৫ শতাংশ তার ক্রয়কৃত সম্পত্তি। তার খালাতো ভাইয়েরা উত্তরাধিকার সূত্রে মালিক হলে, তারা দাগে দাগে সম্পত্তি পাবে। কিন্তু তারা এসবের তোয়াক্কা না করে জোরপূর্বক মূল্যবান ফলজ গাছগুলো কর্তন করে। তবে অপর খালাতো ভাই মুজিবুর রহমানের দাবি, স্থানীয় সালিশ বৈঠকে এই সম্পত্তি তাদের বুঝিয়ে দেয়া হয়েছে। ওই সম্পত্তিতে বাড়িঘর করার প্রয়োজনে সেখানকার গাছপালা কাটা হয়। স্থানীয় মেম্বার বজলুর রহমান বলেন, কিছুদিন পূর্বে স্থানীয়ভাবে উভয়পক্ষের সম্মতিতে বিরোধপূর্ণ সম্পত্তির সমাধান করে দেয়া হয়েছে। এ সংক্রান্ত বিষয়ে জামালপুর ইউপি চেয়ারম্যান মো. মাহবুবুর রহমান ফারুক মাস্টার বলেন, চার মাস পূর্বে জমি সংক্রান্ত বিরোধ নিয়ে সালিশ বৈঠক হয়। বৈঠকের প্রথমদিকে দাগে দাগে সম্পত্তি ভাগ করার সিদ্ধান্ত হলেও ওয়ারিশদার আব্দুল হাইয়ের সম্মতিতে ৫৯ শতাংশ সম্পত্তির মালিকানা মুজিবুর গংকে বুঝিয়ে দেয়া হয়। ওই সম্পত্তির গাছগুলো আব্দুল হাইয়ের রোপণ করা। তাই তাকে গাছগুলো কেটে নিয়ে যাওয়ার জন্য বলা হয়। দামি দামি গাছগুলো আব্দুল হাই কেটে নিয়ে গেলেও চারাগাছগুলো সে কেটে নেয়নি।

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

গাম্বিয়াকে সব ধরণের সমর্থন দেবে কানাডা ও নেদারল্যান্ডস

বাংলাদেশকে ছাড়িয়ে যাচ্ছে ভিয়েতনাম

রেকর্ড

সেই ক্যারিশমা তিনি ব্যয় করছেন জেনারেলদের পেছনে

রোহিঙ্গাদের বিচার পাওয়ার আশা থাকছে

বিপণি বিতানে ছাড় দিয়ে বিক্রি বাড়ানোর চেষ্টা

দুর্নীতি মুক্ত হলে দেশ আরো এগিয়ে যেতো

অজয় রায় আর নেই

অনেক পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় দিনে সরকারি, রাতে বেসরকারি

কোনো শিশু ও নারী যেন নির্যাতনের শিকার না হয়

সাড়ে তিন বছরের মধ্যে সর্বনিম্ন লেনদেন

‘উগ্রবাদ দমনে সম্মিলিতভাবে কাজ করতে হবে’

‘দিল্লি সফরে গুরুত্বপূর্ণ সব ইস্যুতেই আলোচনা হবে’

মাদক মামলায় সম্রাট ও আরমানের বিরুদ্ধে চার্জশিট

দুর্নীতির মাধ্যমে অর্থনীতিকে ধ্বংস করা হয়েছে: ফখরুল

বাজি ধরে সড়কে প্রাণ গেল ২ জনের