আলাপন

‘নাটক বানিয়ে লম্বা করে ছেড়ে দিলে তো সিনেমা হবে না’

কামরুজ্জামান মিলু

বিনোদন ১৮ নভেম্বর ২০১৯, সোমবার | সর্বশেষ আপডেট: ২:০১

সিঙ্গেল সিনেমা হলের চেয়ে সিনেপ্লেক্সগুলো বেশ আরামদায়ক। মানুষ দুই ঘন্টা বা তার বেশি সময় একটি সিনেমা আরাম করে দেখতে না পারলে কেন সিনেমা দেখবে? আর আরাম করে দেখার পাশাপাশি মনোযোগ সহকারে দেখার বিষয়টিও জরুরি। সেজন্য চাই সিনেমা হলের ভালো পরিবেশ। এখন তো বাসার এলইডি টেলিভিশনে ঝকঝকে প্রিন্ট দেখতে পাচ্ছেন দর্শকরা। তাই টাকা খরচ করে সিনেমা হলে গিয়ে স্বচ্ছ ও ভালো মানের ছবিই তো তারা দেখতে চাইবেন। আর সিনেমা সিনেমার মতো করে তৈরি করতে হবে। নাটক বানিয়ে লম্বা করে ছেড়ে দিলে তো সিনেমা হবে না-কথাগুলো বলছিলেন ঢাকাই চলচ্চিত্রের অন্যতম জনপ্রিয় মুখ পূর্ণিমা। বর্তমানে সিনেমা না দেখার কারণ সম্পর্কে বলতে গিয়ে এসব কথা বলেন তিনি।
পূর্ণিমা আরো বলেন, আমার মনে হয় জেলা পর্যায়ে শপিং মলের পাশাপাশি যগি সিনেপ্লেক্স তৈরি হয় তাহলে দর্শকরা অবশ্যই সিনেমা দেখতে যাবেন। কারণ শপিং মল সব সময় জমজমাট থাকে। আর সিনেমা মুক্তির সময় যদি ঠিকভাবে প্রচারণা করে সকলকে জানানো যায় যে, একটি ভালো সিনেমা এসেছে। তখন অনেক দর্শকই সিনেমাটি দেখতে আসবেন। তাই সিনেমা সঠিকভাবে নির্মাণের পাশাপাশি প্রেক্ষাগৃহের পরিবেশ সুন্দর করা খুব জরুরি। বিশিষ্ট চলচ্চিত্র নির্মাতা জাকির হোসেন রাজু পরিচালিত ‘এ জীবন তোমার আমার’ ছবিতে অভিনয় করে দর্শকদের চমকে দিয়েছিলেন পূর্ণিমা। এ ছবির মধ্য দিয়ে অল্প বয়সেই রূপালি পর্দায় নায়িকা হিসেবে ঝলমলে এক অভিষেক হয়েছিল তার। ১৯৯৭ সালে মুক্তি পাওয়া ক্যারিয়ারের এ প্রথম ছবিতে পূর্ণিমা নায়ক হিসেবে পেয়েছিলেন রিয়াজকে। এরপর ‘নিঃশ্বাসে তুমি বিশ্বাসে তুমি’, ‘মেঘলা আকাশ’, ‘মনের মাঝে তুমি’, ‘মেঘের পরে মেঘ’, টাকা’, ‘সুভা’, ‘হৃদয়ের কথা’, ‘আকাশ ছোঁয়া ভালোবাসা’, ‘মাটির ঠিকানা’সহ অসংখ্য জনপ্রিয় বাংলা সিনেমায় অভিনয় করে তিনি ব্যাপক দর্শকপ্রিয়তা পান। ২০১০ সালে কাজী হায়াত পরিচালিত ‘ওরা আমাকে ভালো হতে দিল না’ ছবির জন্য শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রী হিসেবে তিনি জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার লাভ করেন। মাঝে চলচ্চিত্র থেকে দূরে থাকলেও আবারো নিয়মিত কাজ করছেন পূর্ণিমা। বর্তমানে নঈম ইমতিয়াজ নেয়ামূলের ‘জ্যাম’ ও ‘গাঙচিল’ নামে দুটি ছবিতে অভিনয় করছেন তিনি। এ দুটি সিনেমার বিষয়ে জানতে চাইলে বলেন, আগামীকাল থেকে নোয়াখালিতে ‘গাঙচিল’ ছবির কাজ আবার শুরু হচ্ছে। এরইমধ্যে ইউনিট পৌঁছেও গেছে। আমিও শুটিংয়ে অংশ নিব। এবার গিয়ে ছবির বেশকিছু অংশের কাজ শেষ করবো। সিনেমাটি দর্শকদের ভালো লাগবে বলে আশা করছি। এ সিনেমায় পূর্ণিমাকে দর্শকরা মোহনা নামের চরিত্রে দেখতে পাবেন। ছবিটিতে তার বিপরীতে রয়েছেন ফেরদৌস। নোয়াখালীর সুবর্ণচরের বাসিন্দাদের জীবনের নানা ঘটনা নিয়ে এই ছবির গল্প এগিয়েছে। এই অঞ্চলের একজন এনজিওকর্মী হিসেবে অভিনয় করছেন পূর্ণিমা। আর ফেরদৌস অভিনয় করছেন সাংবাদিক চরিত্রে। এদিকে চলতি বছরের কোরবানি ঈদে ছোট পর্দার একটি বিশেষ নাটকে অভিনয় করেছেন পূর্ণিমা। মিজানুর রহমান আরিয়ানের নির্মাণে নাটকটির নাম ‘সাবলেট’। এতে তার বিপরীতে অভিনয় করেছেন অপূর্ব। বর্তমানে নতুন কোনো নাটকে অভিনয় করতে দেখা যাচ্ছে না তাকে। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘সাবলেট’ নাটকের ভাবনাটা অন্যরকম, গল্পটিও বেশ সুন্দর ছিল। তাই কাজটি করা হয়েছে। বর্তমানে ছোট পর্দার জন্য নতুন কোনো কাজ করছি না। আগে সিনেমা দুটির বাকি কাজ শেষ করবো। তারপর নতুন কিছু। এদিকে প্রয়াত জনপ্রিয় নায়ক মান্নার প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান কৃতাঞ্জলী কথাচিত্রের ব্যানারে নির্মাণ হচ্ছে ‘জ্যাম’ ছবিটি। এটির বেশকিছু অংশের কাজ শেষ হয়েছে। এ ছবিতে পূর্ণিমার বিপরীতে অভিনয় করছেন আরিফিন শুভ। আছেন ফেরদৌস ও পশ্চিমবঙ্গের জনপ্রিয় অভিনেত্রী ঋতুপর্ণা। পূর্ণিমা বলেন, দুটি ছবির পরিচালক একজনই। তাই ‘গাঙচিল’ এর পাশাপাশি ‘জ্যাম’ ছবির বাকি কাজও সামনে শেষ হবে বলে আশা করছি।



আপনার মতামত দিন

বিনোদন -এর সর্বাধিক পঠিত