৬০ বাংলাদেশি আসছেন, ৩ লাখের বিতাড়ন বেঙ্গালুরু থেকেই

মানবজমিন ডেস্ক

অনলাইন ১৩ নভেম্বর ২০১৯, বুধবার, ৯:২৬ | সর্বশেষ আপডেট: ৩:০২

বেঙ্গালুরুর পুলিশ তথাকথিত ৬০ অবৈধ বাংলাদেশী নাগরিককে ১৫ই নভেম্বরে ফেরত পাঠাবে। কোনো একটি সীমান্ত দিয়ে তাদের বাংলাদেশে ফেরত পাঠানো হবে। এদিকে ৬০ বাংলাদেশির গ্রেপ্তার নিয়ে বিপাকে পড়েছে বেঙ্গালুরুর পুলিশ প্রশাসন।  কারণ তাদেরকে বাংলাদেশে ফেরত পাঠাতে রাজ্য সরকারের হাতে টাকা নেই। কিন্তু এই বাংলাদেশিদের ফেরত পাঠাতে সাড়ে ছয় লাখ রুপির দরকার হবে । মঙ্গলবার এই খবর চেপেছে নিউ ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস।
পত্রিকাটি বলেছে, পুলিশ প্রশাসন জানে না এই তহবিল কে দেবে । কারণ রাজ্য বা কেন্দ্রীয় সরকারের কোনো খাতেই বিতাড়ন বাবদ অর্থ বরাদ্দের সুযোগ নেই । সুতরাং  তারা ভীষণ চিন্তিত। নিউ ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস পত্রিকা প্রশ্ন তুলেছে, বলা হয়ে থাকে, কেবল বেঙ্গালুরুতেই তিন লাখের বেশি অবৈধ বাংলাদেশি আছে।
তাহলে তাদের পাঠাতে খরচ কত খরচ লাগবে।
 রক্ষণশীল প্রাক্কলন বলেছ, তিন লাখ বিতাড়নে ১০০ কোটি রুপির দরকার হবে।  তাও শুধু পরিবহনেই সবটা খরচ হয়ে যাবে । পুলিশ কর্মকর্তা, যিনি ৬০ বাংলাদেশি ধরায় নেতৃত্ব দিয়েছেন, তিনি বলেছেন, ৬০ জনে সাড়ে ছয় লাখ রুপি দরকার পড়লে  তিন লাখের বেশি অবৈধ বাংলাদেশিকে পাঠাতে কত বাজেট দরকার পড়বে।
নগরীর একজন গোয়েন্দা কর্মকর্তা বলেছেন, এই খরচ যদি আমাদের বিভাগকে  বহন করতে হয়, তাহলে আমরা বাধ্য হব অবৈধ বাংলাদেশি গ্রেপ্তার অভিযান বন্ধ করে দিতে।
আগামী ১৫ই নভেম্বর ওই ৬০ অভিবাসীকে ভারতীয় রেলের একটি স্পেশাল বগিতে কঠোর নিরাপত্তায় বেঙ্গালুরু থেকে হাওড়া পাঠানোর চিন্তা করা হচ্ছে । ইতিমধ্যেই বাংলাদেশি গ্রেপ্তারকৃতদের পেছনে দুই লাখ রুপি ব্যয় করে ফেলেছে পুলিশ। থানায় রাখা হয়েছে তাদের। নারী ও শিশুদের সরকারি হোমে রাখা হয়েছে । পুলিশ কমিশনার ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসকে বলেছেন, এই মুহূর্তে আমরা কোনভাবে টাকা জোগাড় করে এই বাংলাদেশিদের ফেরত পাঠাচ্ছি। ভবিষ্যতে এরকম ফেরত পাঠাতে হলে আলাদা বরাদ্দের দরকার হবে।
উল্লেখ্য যে গত ২৬শে অক্টোবর বেঙ্গালুরু নগরীর ইন্টেলিজেন্স এবং সেন্ট্রাল ক্রাইম ব্রাঞ্চ এর এক্সট্রিমিস্ট সেল একটি অভিযান চালায়। তারা রমামূর্তিনগর এবং মারাথাল্লি এলাকায় অভিযান চালিয়ে ৬০ জন বাংলাদেশিকে গ্রেপ্তার করে। বাংলাদেশিদের জন্য টিকিট কাটা হয়েছে । তাদের পাহারা দিয়ে আনবে ২০ জন পুলিশ । আর যেহেতু ওই  বগিতে অন্য যাত্রী টানা হবেনা। তাই ভারতের রেলকে  বিশেষ ভাড়া হিসেবে বাড়তি ৫ লাখ রুপি দিতে  হবে । নিরাপত্তাজনিত কারণে ও সম্ভাব্য পলায়ন রোধে অন্যান্য যাত্রীদের তাদের মিশতে দেওয়া হবে না। তারা দুই হাজার কিলোমিটার ভ্রমন করবে ।
পুলিশ কর্মকর্তারা প্রথমে তাদেরকে বিমানযোগে বাংলাদেশে ফেরত পাঠানোর কথা ভেবেছিলেন। কিন্তু ২০১৭ সালের অভিজ্ঞতা তাদের থামিয়ে দিয়েছে । পুলিশ ২০১৭ সালে ১৫ জন অবৈধ অভিবাসীকে ফেরত পাঠিয়েছিল। কিন্তু সেই অর্থ কেন্দ্রীয় সরকার আজ পর্যন্ত ফেরত দেয়নি।
এখন পরিকল্পনা করা হচ্ছে যশবন্তপুর-হাওড়া এক্সপ্রেস যোগে ওই বাংলাদেশীদের এসকর্ট করে পশ্চিমবঙ্গের হাওড়া পর্যন্ত  নিয়ে যাওয়া হবে । খালি বগিটি প্রথমে গোয়া থেকে হুগলি এবং তারপর বেঙ্গালুরু যাবে। সেখান থেকে ৬০ জনকে নিয়ে আসবে হাওড়া রেল স্টেশনে। সেখানেই বাংলাদেশিদের বিএসএফের কাছে তুলে দেয়া হবে । বিএসএফ তাদেরকে স্থল সীমান্ত দিয়ে ফেরত পাঠাবে।



পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

সেলিম এনায়েত

২০১৯-১১-১৩ ০৫:১৬:৩৫

তারাওআমাদের দেশে অনেক আছে তাদের কে ফেরত পাঠাতে হবে

Kamal

২০১৯-১১-১২ ২০:০৩:১০

Well come. This is love between our friendly country. G to G

Abdur Rahim

২০১৯-১১-১২ ১২:৫৪:৫৫

এত বাংলাদেশী ভারতে কাজ করে ?!!!

আপনার মতামত দিন

অনলাইন -এর সর্বাধিক পঠিত