ভোলায় ঘূর্ণিঝড় মোকাবিলায় প্রস্তুতি, খোলা হয়েছে ৬৪৮টি আশ্রয়কেন্দ্র

অনলাইন

ভোলা প্রতানিধি | ৮ নভেম্বর ২০১৯, শুক্রবার, ৪:০৫
ফাইল ফটো
ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’ মোকাবিলায় সর্বোচ্চ প্রস্তুতি নিয়েছে ভোলার জেলা প্রশাসন। জেলার ৬৪৮টি আশ্রয়কেন্দ্র খুলে দেয়া হয়েছে। গঠন করা হয়েছ ৯২টি মেডিক্যাল টিম। এছাড়াও জেলা সদরসহ সাত উপজেলায় ৮টি কন্ট্রোল রুম খোলা হয়েছে। মানুষকে সতর্ক করতে উপকূলে প্রচারণা চালানো হচ্ছে।

শুক্রবার সকালে জেলা প্রশাসক কার্যালয়ে ঘূর্ণিঝড়ের বিষয়ে জরুরি সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

জেলা প্রশাসক মাসুদ আলম ছিদ্দিক মানবজমিনকে বলেন, ঘূর্ণিঝড় বুলবুল মোকাবিলায় সব ধরনের প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে। প্রস্তুত রাখা হয়েছে ১৩ হাজার স্বেচ্চাসেবী। জেলার সব আশ্রয়কেন্দ্র খুলে দেয়া হয়েছে। এছাড়াও মজুদ রাখা হয়েছে ত্রাণ।

ঘূর্ণিঝড় প্রস্তুতি কর্মসূচি (সিপিপি) ভোলার উপ-পরিচালক সাহাবুদ্দিন সাংবাদিকদের বলেন, ঝড়ের বিষয়ে মানুষকে সতর্ক করতে সিপিপি ও রেডক্রিসেন্ট কর্মীরা প্রচার-প্রচারণা শুরু করেছে।
সিপিপির ১০ হাজার ২শ’ স্বেচ্চাসেবী প্রস্তুত রয়েছে।

তিনি আরও বলেন, ভোলায় এখনো ৪ নম্বর সতর্কতা সংকেত চলছে। ঝড়টি কোন দিকে আঘাত হানবে তা এই মুহূর্তে ঠিক বলা যাচ্ছে না।

এদিকে ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের প্রভাবে সকাল থেকে জেলায় গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি হচ্ছে। কোথাও কোথাও ভারী বর্ষণ হয়েছে। পুরো জেলা মেঘাচ্ছন্ন রয়েছে। নদী এবং সাগর উত্তাল হয়ে উঠেছে। তবে অভিযান শেষে সাগরে গেলেও ঝড়ের খবরে অনেক জেলে তীরে চলে এসেছেন।

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

লিবিয়ায় বিমান হামলায় নিহত বাংলাদেশির পরিচয় শনাক্ত

লিবিয়ায় বিমান হামলায় বাংলাদেশিসহ নিহত ৭

বারকী শ্রমিক থেকে কোটিপতি, কারাগারে আলিম

বিদেশে সেলিম প্রধানের ২০০ কোটি টাকা

এলডিপিতে পাল্টাপাল্টি

সিলেটে পিয়াজ নিয়ে লঙ্কাকাণ্ড পথচারী গুলিবিদ্ধ

বিশ্ববিদ্যালয়, মেডিকেল, ব্যাংকসহ বিভিন্ন নিয়োগ পরীক্ষার জালিয়াত চক্রের সদস্য আটক

পিয়াজ কেলেঙ্কারির ঘটনায় ২৫০০ জনের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা

দাম কমার খবরে পিয়াজ ছেড়ে দিচ্ছেন আড়তদাররা

টিসিবি’র পিয়াজ বিক্রি, শৃঙ্খলায় পুলিশ

শেরপুরে বিএসএফ’র গুলিতে ২ বাংলাদেশি নিহত

শাকিব খানকে ১০ লাখ টাকা জরিমানা

সৃজিত-মিথিলার বিয়ে ২২শে ফেব্রুয়ারি!

বাংলাদেশিদের জন্য শ্রমবাজার খুলে দিতে পারে আরব আমিরাত

চিকিৎসা ব্যয় মেটাতে পারছেন না আহতরা

ভীতির পরিবেশ, অবিশ্বাসই ভারতের শ্লথ অর্থনীতির কারণ