নজরদারিতে আওয়ামী লীগের অনেক নেতা

শেষের পাতা

স্টাফ রিপোর্টার | ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯, শনিবার | সর্বশেষ আপডেট: ২:০৬
আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ছাত্রলীগ-যুবলীগের পাশাপাশি আওয়ামী লীগের অনেক নেতা নজরদারিতে রয়েছেন। গতকাল ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতির কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে ওবায়দুল কাদের বলেন, অন্যায়, অপকর্ম, অনিয়ম-দুর্নীতি ও শৃঙ্খলাবিরোধী অ্যাকশনে সরকার ও আওয়ামী লীগের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল হচ্ছে। শেখ হাসিনার জনপ্রিয়তা বেড়ে গেছে, উই আর হ্যাপি ইন অ্যাকশন। তিনি বলেন, জিরো টলারেন্স নীতি মেনে সকল ধরনের অন্যায়, দুর্নীতি ও অনিয়মের বিরুদ্ধে অ্যাকশন শুরু হয়েছে। আর সরকার প্রধানের নির্দেশেই এমন অ্যাকশন শুরু হয়েছে, এটা বুঝতে না পারা বোকামি বলে মন্তব্য করেন তিনি। সারাদেশের যেখানে দুর্নীতি বা অনিয়ম হবে শুধু যুবলীগ বা ছাত্রলীগের প্রশ্ন নয়, আওয়ামী লীগেরও যারা অনিয়ম দুর্নীতি করবে, তাদেরও একই পরিণতি ভোগ করতে হবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাদের বিষয়ে খোঁজখবর নিচ্ছেন। দুর্নীতি, অপকর্ম ও শৃঙ্খলাভঙ্গের জন্য অনেকেই নজরদারিতে রয়েছেন।
সময়মত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ওবায়দুল কাদের বলেন, দুর্নীতি ও অনিয়ম রোধে যে শুদ্ধি অভিযান চলছে, তা সারাদেশেই ছড়িয়ে যাবে। যাদের কারণে দলের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন হয়েছে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। এর আগেও হয়েছে। দুদক অনিয়ম অভিযোগের বিরুদ্ধে আগেও ব্যবস্থা নিয়েছে। সেতুমন্ত্রী বলেন, অন্যায়-অনিয়ম বা দুর্নীতিতে প্রশাসন বা রাজনীতির কেউ যদি মদদ দিয়ে থাকেন, তাহলে তাদেরও আইনের আওতায় আনা হবে। কোনও গডফাদারই ছাড় পাবে না। যারা আগামীতে এসব অপকর্ম করবেন, তাদের জন্য এটা সতর্কবার্তা। আওয়ামী লীগ মসজিদের শহরকে ক্যাসিনোর শহর বানিয়েছে বিএনপি নেতাদের এমন অভিযোগের জবাবে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, বিএনপিই ঢাকাকে ক্যাসিনোর শহর বানিয়েছে।

বিএনপি যা পারেনি আওয়ামী লীগ তা করছে। এটাই বিএনপির গাত্রদাহের কারণ। বিএনপি সরকার কখনও দুর্নীতির বিরুদ্ধে অ্যাকশনে যায়নি। এই অ্যাকশনের জন্য জনগণের কাছে প্রধানমন্ত্রীর গ্রহণযোগ্যতা তৈরি হয়েছে। বিএনপি যা পারেনি, তা শেখ হাসিনা করছেন। বিএনপি নেতা শামসুজ্জামান দুদুর শেখ মুজিব যেভাবে বিদায় হয়েছেন, শেখ হাসিনাও সেভাবে বিদায় হবেন এই বক্তব্যের বিষয়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে তিনি বলেন, তার এ বক্তব্য বিএনপির দলীয় নাকি তার ব্যক্তিগত তা পরিষ্কার করতে হবে। আর এটা করতে হবে দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরকে। অতীতেও আমাদের নেত্রীকে ‘হত্যা করা হবে, তাকে সরিয়ে দেয়া হবে, বঙ্গবন্ধু যে পথে গেছেন, শেখ হাসিনাও সে পথে যাবেন’, এ ধরনের বক্তব্য তারেক রহমানসহ বিএনপির অনেক নেতাই বিভিন্ন সময়ে বলেছেন। তারা এখন আন্দোলনে ব্যর্থ, নির্বাচনে ব্যর্থ। সবক্ষেত্রে ব্যর্থ হয়ে ষড়যন্ত্র করছে আমাদের নেত্রীকে সরিয়ে দেয়া যায় কি না। ক্ষমতায় যেতে মরিয়া হয়ে উঠেছে। ক্ষমতায় যেতে এটাই তাদের কৌশল কিনা প্রশ্নে ওবায়দুল কাদের বলেন, দুদুর এই বক্তব্যে আমরা শঙ্কিত নই। শেখ হাসিনা মৃত্যুকে ভয় পান না। মৃত্যু হবে জেনে নীতি আদর্শ থেকে বিচ্যুত হন না। হত্যা ষড়যন্ত্রের রাজনীতি যারা করেন, তাদের বিষয়ে দেশের মানুষকে সতর্ক হওয়ার সময় এসেছে।

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

Kazi

২০১৯-০৯-২০ ১৭:৫৭:৩১

বেশরম দুর্নীতিবাজদের ধোলাই দিয়ে দলের হৃত গৌরব পুনরুদ্ধার করুন। জাতির পিতার দল আওয়ামিলীগ। এ দলকে যারা স্বার্থ ও দুর্নীতির অবাধ ক্ষেত্র মনে করে এই দলে যোগ দিয়েছে এদের ধোলাই প্রাপ্য।

আপনার মতামত দিন

মতপ্রকাশের স্বাধীনতা সীমিত বলেই নৃশংস ঘটনা ঘটছে

যুবলীগের নেতৃত্ব নিয়ে নানা আলোচনা

যুবলীগের দায়িত্ব পেলে ভিসি পদ ছেড়ে দেবো

বিজিবি-বিএসএফ ভুল বোঝাবুঝি আলোচনায় শেষ হবে

আন্ডার ওয়ার্ল্ডের চাঞ্চল্যকর তথ্য সম্রাটের মুখে

শেয়ারবাজার টালমাটাল

ম্যানচেস্টারে বিমানের অফিস নিয়ে প্রশ্ন

পিয়াজের দাম কমবে কবে?

শিশু নির্যাতনকারীর ক্ষমা নেই

জামায়াতকে তালাক দিয়ে রাস্তায় নামুন: বিএনপিকে জাফরুল্লাহ

ঐক্যের ডাক গ্রামে গ্রামে ছড়িয়ে দিতে হবে

বাংলাদেশে পাবজি গেম বন্ধ

ভারতের সব রাজ্যে ডিটেনশন ক্যাম্প তৈরি হচ্ছে

জমি দখল করাই তাদের কাজ

ফেনী নদীর পানিচুক্তি নিয়ে হাইকোর্টে রিট

নতুন ব্রেক্সিট চুক্তি নিয়ে পার্লামেন্টে কঠিন লড়াইয়ের মুখে জনসন