জাবির সাহসী সাংবাদিকেরা

ফেসবুক ডায়েরি

মারুফ মল্লিক | ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯, সোমবার | সর্বশেষ আপডেট: ২:১৫
ক্যাম্পাস রিপোটিং-এ জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের সাংবাদিকরা বরাবরই ব্যতিক্রমী দৃষ্টান্ত। জীবনের ঝুঁকি নিয়েও সংবাদ প্রকাশ করতে কখনও দ্বিধাবোধ করেনি জাবির সাংবাদিকরা। জাবিতে সাংবাদিকতা বিভাগ ছিল না। যারা কাজ করতেন তারা সবাই নিজ থেকেই সাংবাদিকতায় আসতেন। সাংবাদিকতা ও গণমাধ্যম অধ্যায়ন বিভাগ কিছুদিন হয় শুরু হয়েছে। কিন্তু এর আগে থেকেই জাবির রিপোর্টাররা দক্ষতার ছাপ রাখছেন।

১৯৯৮ সালে ধর্ষণের সংবাদ প্রকাশ থেকে হালের ২ কোটি টাকা ভাগ বাটোয়ারার সংবাদ; সবই আলোড়ন সৃষ্টিকারী সংবাদ। ধর্ষণের সংবাদ প্রথম প্রকাশ হয়েছিল মানবজমিন পত্রিকায়। ওইদিন সারা ক্যাম্পাসে মানবজমিনের কোনো কপি পাওয়া যায়নি।
দরোজা, জানালা বন্ধ করে চুপি চুপি পড়তে হয়েছিল মানবজমিন। জাফরি কোত্থেকে যেন এক কপি মানবজমিন নিয়ে এসেছিল। রাতের বেলা ভাসানী হলের ৪৩৮ নম্বর রুমে গরমের মধ্যে দরোজা জানালা সব সেটে নিয়ে আমরা সেই সংবাদ পড়েছিলাম। এমনটি পড়ার সময় আমরা জোরে জোরে শ্বাস নিতেও ভয় পাচ্ছিলাম যে, যদি কেউ তাতে জেনে যায়। এবার বুঝে নিন ক্যাম্পাসের পরিস্থিতি তখন কেমন ছিলো। এইরকম পরিস্থিতিতে কাজ করতে হয় ক্যাম্পাস রিপোর্টারদের।

এইবার ২ কোটি টাকা ভাগ বাটোয়ারার সংবাদ প্রকাশ করে প্রথমে বাংলাদেশ প্রতিদিন ও পরে  ডেইলি স্টার। এখনও প্রতিবেদকরা খুব ভালো নেই। খোদ ভিসি অফিসে শিক্ষকরা সাংবাদিকদের হুমকি দিয়েছেন। আগে ছাত্রলীগের বা ছাত্রদলের ক্যাডাররা হুমকি দিতেন। এখন শিক্ষকেরা দেন। এই যা পরিবর্তন।

যাই হোক এরপরের ইতিহাস এখন সবার জানা। ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদ হারিয়েছেন। ভিসি এবং সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক সবারই দুর্নীতির অভিযোগ এখন প্রকাশিত।

জাহাঙ্গীরনগরের প্রতিনিধিদের প্রকাশিত সংবাদ জাতীয় রাজনীতির মোড় ঘুরিয়ে দেয়। জাবি একটা উদাহরণ। প্রচণ্ড চাপের মধ্যেও সদিচ্ছা ও সাহস থাকলে সংবাদ প্রকাশ করা সম্ভব। সাংবাদিক পেশাই ঝুঁকিপূর্ণ পেশা। যারা ঝুঁকি নিতে ভয় পান তাদের জন্য সাংবাদিকতা না। অনুসন্ধানী প্রতিবেদন প্রকাশ করা একজন প্রতিবেদকের আরাধ্য থাকে আজীবন। এটাই সাংবাদিকতা। এছাড়া ইনি বলেন, তিনি বলেন, উনি আরো জোর দিয়ে বলেন টাইপের সংবাদ প্রকাশ কোনো সাংবাদিকতার মধ্যে পড়ে না। পিআর কমিউনিকেশন হয়ে যায় বড়জোর। আমি মনে করি জাবির ওইসব প্রতিবেদকদের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের সাংবাদিকতা ও গণযোগাযোগ বিভাগে নিয়ে লেকচারের আয়োজন করা উচিত। তাদের কাছ থেকে শিক্ষার্থীদের শোনা উচিত কিভাবে ঝুঁকি ও চাপকে মোকাবেলা করতে হয়।

আমিও প্রতিবেদক হিসাবে কাজ করেছি জাবিতে। হুমকি-ধমকি কি জিনিস আমি জানি। দুইবার  শোকজ নোটিশ পেয়েছি। তবে জাবি প্রতিনিধি পরিবারের একজন হতে পেরে ভালো লাগছে।

পরিশেষে, আতিক ভাই ও আসাদকে অভিনন্দন। ২১ বছরের ব্যবধানে দুইজন একই সামন্তরালে অবস্থান করছেন। ইতিহাস এই দুইজনকে মনে রাখবে।

(লেখক: জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ছাত্র ও সাংবাদিক, লেখাটি বিশ্বদ্যিালয়ের ক্লোজড ফেসবুক গ্রুপ ‘আমরাই জাহাঙ্গীরনগর’-এ প্রকাশিত)

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

মোঃ নুরুল আলম

২০১৯-০৯-১৬ ১৫:৩৩:৪৪

ভয়তো একটাই গুম যেন সঙ্গী না হয় !

মিজানুররহমান

২০১৯-০৯-১৬ ০১:২৮:৩৩

আমি মনে করি, "ভিসি ম্যাডামকে দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দেয়া উচিত" ।

আপনার মতামত দিন

বরগুনার ঘটনায় বুধবার সারাদেশে বিএনপির বিক্ষোভ

বায়ু দূষণে বাড়ে হার্ট অ্যাটাক, অ্যাজমা

ভারত-পাকস্তান দ্বন্দ্ব তীব্র হয়েছে

ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে ‘ইংলিশ ক্ল্যাসিক’ ১-১ গোলে ড্র

শপথ নিলেন হাইকোর্টের ৯ বিচারপতি

বলুন তো এটা কিসের ছবি!

জেল হতে পারে পর্নো তারকা ব্রিজেতের

সৌদিতে ধরপাকড়: আজ ফিরেছেন ৭০ বাংলাদেশী

বোমা সন্দেহে রহস্যজনক লাগেজে মিললো লাশ

অস্ট্রেলিয়ার সংবাদপত্রগুলোর প্রথম পৃষ্ঠা ফাঁকা

কাউন্সিলর রাজীবের ১৪ দিনের রিমান্ড

বিশ্লেষক হিসেবে প্রতিবন্ধী শিশুদের খুঁজছে বৃটিশ গুপ্তচর সংস্থা

পর্নো ব্যবসা এত বিপুল হয়ে উঠলো কীভাবে : পর্ব ১

‘সেগুলোতে কাজ করার আগ্রহ পাই না’

পদ হারালেন ওমর ফারুক

১০ বছর আমার চেহারা ভালো ছিলো এখন খারাপ হয়েছে: ওমর ফারুক চৌধুরী