যশোরে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত দুই নারীর মৃত্যু

বাংলারজমিন

স্টাফ রিপোর্টার, যশোর থেকে: | ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৯, বৃহস্পতিবার
যশোরে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে দুই নারীর মৃত্যু হয়েছে। নিহতরা হলেন মণিরামপুর উপজেলার আব্দুল কাদেরের স্ত্রী জাহিদা বেগম (৩৫) এবং একই উপজেলার মশ্মিমনগর গ্রামের ইনতাজ আলীর স্ত্রী জাহানারা বেগম (৪৫)। জাহিদা বেগম বুধবার ভোরে এবং জাহানারা বেগম মঙ্গলবার রাতে মারা যান। যশোর জেনারেল হাসপাতালের ভারপ্রাপ্ত তত্ত্বাবধায়ক ডা. আব্দুর রহিম মোড়ল জানান, সোমবার দুপুরে শরীরে প্রচণ্ড জ্বর নিয়ে জাহিদা বেগম হাসপাতালে ভর্তি হন। পরীক্ষার পর দেখা যায় তিনি ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হন। গতকাল ভোরে রক্তের প্লাটিলেট কমে যাওয়ায় ৬টা ২৫ মিনিটে তার মৃত্যু হয়। অপরদিকে গত সোমবার দুপুরে জাহানারা বেগম ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হন। এ সময় তার ডায়েবেটিস নিয়ন্ত্রণ ছিল না। তারপর রক্তের প্লাটিলেট ১ লাখ ৪০ হাজার এসে দাঁড়ালে মঙ্গলবার রাতে ২টা ৩৫ মিনিটে তার মৃত্যু হয়। যশোর সিভিল সার্জন অফিস সূত্রে জানা যায়, গত ২৪ ঘন্টায় যশোরে নতুন করে ৪৮ জন ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে ভর্তি হয়েছেন। এ পর্যন্ত যশোরে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত সংখ্যা ২ হাজার ৪২ জন। এর মধ্যে চিকিৎসা নিয়ে বাড়ি ফিরে গেছেন ১ হাজার ৭৩৩ জন। যশোর জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে ৮৫ জন। এছাড়া অন্যান্য উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এবং ক্লিনিকে ২২৪ জন চিকিৎসাধীন রয়েছে।
এ পর্যন্ত যশোরে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে ৭ জনের মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করেছেন জেলার সিভিল সার্জন ডা. দিলীপ কুমার রায়।

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

কোটি টাকা চাঁদা দাবির অডিও ফাঁস

টিআইবির নির্বাহী পরিচালকের মন্তব্য অনভিপ্রেত: বেক্সিমকো

ডিপ্লোম্যাটের প্রচ্ছদে শেখ হাসিনা

জনগণের সঙ্গে পুলিশের নিবিড় সম্পর্ক থাকতে হবে

‘ছাত্রলীগ নেতাদের বহিষ্কারেই বোঝা যায় দেশে কতটা দুর্নীতি চলছে’

বিকেন্দ্রীকরণে বাধা দিচ্ছেন এমপিরা

বাংলাদেশে ৫টি অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ে তুলবে আরব আমিরাত

সিলেট সফরে যে বিতর্কের জন্ম দেন শোভন

পিয়াজের কেজি একলাফে বেড়ে ৭০ টাকা

প্রয়োজনে থানায় বসে ওসিগিরি করব

আসুন, ভাঙনের খেলাটা শুরু করি!

চাঁদাবাজির তথ্য পেলে সঙ্গে সঙ্গে ব্যবস্থা

ভিকারুননিসায় নতুন অধ্যক্ষ নিয়োগ

সিলেট বিভাগের পৌর মেয়রদের সঙ্গে পররাষ্ট্রমন্ত্রীর মতবিনিময়

রাব্বানীর ডাকসু জিএস পদে থাকা নিয়ে প্রশ্ন

শোভন-রাব্বানীকে নিয়ে যা ছিল গোয়েন্দা রিপোর্টে