রাজশাহীতে আসামির স্বীকারোক্তি

ছিনতাইকারীর হাতে খুন হন কলেজছাত্র রাব্বী

শেষের পাতা

স্টাফ রিপোর্টার, রাজশাহী থেকে | ১৯ আগস্ট ২০১৯, সোমবার | সর্বশেষ আপডেট: ১:২৮
রাজশাহী সিটি কলেজছাত্র ফারদিন ইসনা আষাঢ়িয়া রাব্বী (১৯)কে রনক নামে এক ছিনতাইকারী খুন করেছে বলে আসামি আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে। শনিবার ম্যাজিস্ট্রেট মো. সেলিম রেজা, এমএম-৫, রাজশাহী এর আদালতে ১৬৪ ধারায় আসামি এ জবানবন্দি দেয়। গত শনিবার রাত পৌনে ৯টার দিকে মহানগর পুলিশের মুখপাত্র ও অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (সদর) মো. গোলাম রুহুল কুদ্দুস স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে এ তথ্য জানানো হয়। প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, রাজশাহী নগরীর হেতেম খাঁ ছোট মসজিদ এলাকার মৃত কুদরত আলীর ছেলে আসামি রনক ঘটনার দিন গত ৬ আগস্ট ভোর সাড়ে ৫টার দিকে ঘটনাস্থলের পাশে (আমরুর কনফেকশনারীর পাশে) ছিনতাই এর উদ্দেশ্যে ওৎপেতে থাকে। ওই সময় নিহত রাব্বী তিতুমীর ট্রেন ধরার উদ্দেশ্যে ঘাড়ে ও কাধে ব্যাগ নিয়ে হেঁটে বর্ণালীর মোড়ের দিকে যেতে থাকে। তখন আসামি রনক রাব্বীর পথরোধ করে দা বের করে ছিনতাইয়ের চেষ্টা করে। রাব্বী তখন দৌঁড়ে পালানোর চেষ্টা করে। এক পর্যায়ে দুইজনের মধ্যে ধস্তাধস্তি হয়। এসময় রাব্বী আসামিকে ফেলে দেয় এবং চিৎকার করতে থাকে। তখন রনক রেগে গিয়ে পিছন থেকে রাব্বী’র মাথায় দা দিয়ে সজোরে কোপ মারে। এতে রাব্বীর মাথায় গুরুতর জখম হলে সে মাটিতে পড়ে যায়। অবস্থা বেগতিক দেখে লোকজনের হাতে ধরা পড়ার আশঙ্কায় রাব্বীর টাকা, ম্যানিব্যাগ, মোবাইল, ব্যাগ না নিয়েই রনক ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যায়। রনক হেরোইয়ের টাকা সংগ্রহের জন্য একাকি দা হাতে ছিনতাই এর চেষ্টা করার সময় রাব্বীর সাথে ধস্তাধস্তির একপর্যায়ে সজোরে তার মাথায় ধারালো দা দিয়ে গুরুতর জখম করে হত্যা করেছে বলে স্বীকার করে।
প্রেসবিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, আসামি জানান- তিনি ভিকটিমকে পূর্বে চিনতেন না। ঘটনা ঘটার পর বিভিন্ন লোকজনের মাধ্যমে জানতে পারেন ভিকটিম সিটি কলেজের ছাত্র ছিলেন এবং মেসে বসবাস করতেন।
সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, গত ৭ই আগস্ট আসামি রনককে ৭.২ গ্রাম হেরোইনসহ পুলিশ আটক করে। কিন্তু রনক যে রাব্বী হত্যাকাণ্ডের মূল হোতা পুলিশ তখনো জানতো না। তাকে আটকের পর হেরোইনসহ আদালতে সোপর্দ করা হয়। পরে তথ্য প্রমাণের ভিত্তিতে এবং পুলিশের তদন্তে বেরিয়ে আসে রাব্বী হত্যার মূল হোতা রনক। পরে ৮ আগস্ট আাসমি রনককে রাব্বী হত্যা মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে রিমান্ডের আবেদন করা হয়। ১৪ই আগস্ট পুলিশ আসামিকে রিমান্ডে নিলে সে রাব্বী হত্যার সাথে সরাসরি জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে। রিমান্ডে আসামির দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে তার বাসার শয়ন কক্ষ থেকে হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত একটি ১৫ ইঞ্চি ধারালো দা উদ্ধার করা হয়। পরে গতকাল শনিবার আসামী রনক ম্যাজিস্ট্রেট মো. সেলিম রেজার (এমএম-৫ রাজশাহী এর আদালতে) আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়। আসামি তার জবানবন্দিতে জানায়, তিনি বিভিন্ন নেশায় আসক্ত। ঘটনার দিন একাই ছিনতাই করার উদ্দেশ্যে তার পরিহিত গোল গলা গেঞ্জির ভিতরে বর্ণিত দা (দাউলি) লুকিয়ে রেখে ছিনতাই করার করার উদ্দেশ্যে বেরিয়েছিলেন।
প্রসঙ্গত, গত ৬ই আগস্ট ভোরে রাজশাহী সিটি কলেজের দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্র ফারদিন ইসনা আষাড়িয়া রাব্বীকে মহানগরীর হেতেমখাঁ ও বর্ণালীর মোড় এালাকার মাঝামাঝি সড়কে কুপিয়ে হত্যা করা হয়। পরে ওই দিন ভোর ৬টার দিকে পুলিশ তার মরদেহ উদ্ধার করে। এ ঘটনায় ওইদিনই একটি অজ্ঞাত কয়েকজনকে আসামি করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করা হয়। নিহত রাব্বীর বাড়ি দিনাজপুর জেলার পার্বতীপুর থানার মমিনপুর গ্রামে।

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আপনার মতামত দিন

এনআরসি’র নামে আসামে যা হচ্ছে তা বিপজ্জনক

ছয় মাসে মালয়েশিয়ায় ৩৯৩ বাংলাদেশি শ্রমিকের মৃত্যু

এবার প্রক্টর-ছাত্রলীগ নেতার ফোনালাপ ফাঁস

সিনেট থেকে শোভনের পদত্যাগ, কী করবেন গোলাম রাব্বানী

দৃশ্যত কাশ্মীর নিয়ে মন্তব্য করায় আমাকে ভিসা দেয়া হয়নি

বিদেশ মিশনে নিয়োগ চেয়ে পুলিশের প্রস্তাব

খালেদা জিয়াকে হত্যার উদ্দেশ্যে আটকে রাখা হয়েছে: মির্জা ফখরুল

আগুনে কি ইরানই ঘি ঢালছে?

আজ থেকে খোলাবাজারে পিয়াজ বিক্রি

জাপাকে ছেড়ে দিয়ে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাহার

মেট্রোরেলের নিরাপত্তায় পুলিশ ইউনিট গঠনের নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর

ডেঙ্গুতে দুই শতাধিক মৃত্যুর তথ্য স্বাস্থ্য অধিদপ্তরে

নতুন ভিডিও ভাইরাল

সম্পাদক পরিষদের সভাপতি মাহফুজ আনাম, সম্পাদক নঈম নিজাম

নবজাতক সারাকে ফেলে লাপাত্তা মা-বাবা

সিলেটের নিপার বিরুদ্ধে যে অভিযোগ প্রবাসী নাজমুলের