‘স্ত্রী পরিচয়ে সহপাঠীকে আবাসিক হোটেলে নিয়ে যেতো শিঞ্জন’

এক্সক্লুসিভ

স্টাফ রিপোর্টার, খুলনা থেকে | ১৯ আগস্ট ২০১৯, সোমবার | সর্বশেষ আপডেট: ১০:১১
প্রতীকী ছবি
খুলনা মহানগরীর বেসরকারি একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ও কর বিভাগের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তার ছেলে শিঞ্জন রায় (২৫) তার সহপাঠী ওই ছাত্রী (২০) কে কুয়াকাটা সমুদ্র সৈকতে বেড়াতে নিয়ে স্ত্রী পরিচয়ে আবাসিক হোটেলে রেখেছিল। তাছাড়াও সোনাডাঙ্গাস্থ আবাসিক হোটেলসহ তাকে বিভিন্ন স্থানে বাসা ভাড়া করে রেখে ধর্ষণ করতো। বিয়ের পর ধর্মান্তরিত হওয়াসহ নানা ধরনের আশ্বাসও দিয়েছে শিঞ্জন। এ নিয়ে ধর্ষণ মামলা হলে গ্রেপ্তার করা হয় শিঞ্জনকে। রোববার শিঞ্জন রায়কে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পুলিশের ৫ দিনের রিমান্ড আবেদনের শুনানি শেষে একদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করে আদালত। এদিকে ভিকটিম ওই ছাত্রীর পরীক্ষা-নিরীক্ষা শেষে তাকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের  ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টার (ওসিসি) থেকে রিলিজ করা হয়েছে।
মামলার সংক্ষিপ্ত বিবরণী থেকে জানান গেছে, নগরীর সোনাডাঙ্গাস্থ নর্থ ওয়েস্টার্ন ইউনিভার্সিটির ছাত্রীর সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তুলে তাকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে এক বছর ধরে শারীরিক সম্পর্ক স্থাপন করে খুলনার কর কমিশনার প্রশান্ত কুমার রায়ের ছেলে শিঞ্জন রায় (২৫)। ওই ছাত্রী যে ভাড়া বাসায়, আবাসিক হোটেলসহ বিভিন্ন বন্ধু বান্ধবের বাসায় নিয়েও শিঞ্জন তার সঙ্গে শারীরিক সম্পর্কে বাধ্য করতো। এরপর ওই ছাত্রী চলতি বছরের ফেব্রুয়ারিতে গর্ভবতী হয়ে পড়েন। শিঞ্জন তাকে বিয়ে করবেন বলে নানাভাবে আশ্বস্তও করেছেন। এ অবস্থায় শিঞ্জন গত ১৪ই আগস্ট অন্যত্র বিয়ে করেন। ১৬ই আগস্ট নগরীর হোটেল সিটি ইনে পূর্বনির্ধারিত বৌভাত অনুষ্ঠানের দিন নির্ধারিত ছিল।
এদিকে বিয়ের খবর ওই ছাত্রীর কানে পৌঁছালে সে শিঞ্জনের খোঁজে গত ১৫ই আগস্ট রাত ১০টার দিকে মুজগুন্নী আবাসিকের ১৬ নম্বর রোডে যান। সেখানে গিয়ে শিঞ্জন রায়ের দেখা পায়। এ সময় তার বিয়ের ব্যাপারে জিজ্ঞাসা করলে সে তাকে সেখান থেকে ইজিবাইকে জোর করে তুলে দিতে গেলে স্থানীয়দের নজরে আসে। এরপর থানা পুলিশের কাছে খবর গেলে তারা দু’জনকেই সোনাডাঙ্গা মডেল থানায় নিয়ে আসে। পুলিশ ১৫ই আগস্ট সাড়ে ১২টার ওই ছাত্রীকে ভিকটিম সাপোর্ট সেন্টারে হস্তান্তর করেন। এরপর রাত ৩টার দিকে তার শারীরিক অবস্থার কথা বিবেচনা করে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল প্রেরণ করেন। সেখানে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে ওই ছাত্রীকে ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে ভর্তি করা হয়। ১৬ই আগস্ট সোনাডাঙ্গা মডেল থানায় ওই ছাত্রী নিজেই বাদী হয়ে শিঞ্জন রায়ের বিরুদ্ধে মামলা করেন (নং-২০)।
এ বিষয়ে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা মো. তৌহিদুল ইসলাম জানান, এজাহারভুক্ত আসামিকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ৫ দিনের রিমান্ড আবেদন করা হয়। রোববার শুনানি শেষে একদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত। তিনি বলেন, এজাহারের বাদিনীর অভিযোগের বিষয়গুলো তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। এজাহারে উল্লিখিত ভিকটিমকে ধর্ষণের স্থানসমূহের মধ্যে কয়েকটি স্থানের তদন্ত করে সত্যতা পাওয়া গেছে।
খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, ধর্ষণের শিকার মেয়েটিকে শুক্রবার সকাল থেকে গত ২৪ ঘণ্টা ওসিসিতে রাখা হয়েছিল। এসময় তার ডাক্তারি পরীক্ষা সম্পন্ন হয়েছে। এছাড়াও তাকে মানসিক নিরাপত্তা দানের লক্ষ্যে কাউন্সিলিং করা হয়। শনিবার দুপুরে তাকে হাসপাতাল থেকে ছেড়ে দেয়া হয়েছে। তার পরিবারের লোকজন তাকে বাড়িতে নিয়ে গেছে।
খুমেক হাসপাতালের ডা. শফিউজ্জামান বলেন, ধর্ষণের শিকার মেয়েটির পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য স্যাম্পল নেয়া হয়েছে। এছাড়াও ডিএনএ টেস্টের জন্যও স্যাম্পল নেয়া হয়েছে বলে তিনি জানান।

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

Kazi

২০১৯-০৮-১৮ ২৩:৪৮:৪৩

উভয়ই অপরাধী । মেয়েটি এক বছর যাবত বিয়ের আশ্বাস পেয়ে তাকে দেহদান করে আনন্দ উপভোগ করছে। বিয়ের আগে দৈহিক সম্পর্ক কেন ?

Mohin

২০১৯-০৮-১৯ ১০:৪১:১৮

দু'জনেরই উপযুক্ত শাস্তি দাবী করছি।

আপনার মতামত দিন

বাংলাদেশের মানবাধিকার পরিস্থিতির কড়া সমালোচনা জাতিসংঘে

গোপালগঞ্জে সড়ক দুর্ঘটনায় পুলিশ কর্মকর্তাসহ নিহত ৪

বিধবাকে গণধর্ষণ, এএসআই প্রত্যাহার

মাফিয়া ডন শামীম গ্রেপ্তার

বদলে গেল ক্লাবপাড়ার দৃশ্যপট, তবে

তদন্তের জালে ছাত্রলীগের শতাধিক নেতা

কলাবাগান ক্রীড়াচক্রে র‌্যাবের অভিযান সভাপতি গ্রেপ্তার

পিয়াজের দাম কমছেই না

ছাত্র রাজনীতির ইতিবাচক পরিবর্তন দেখছি না

দুর্ঘটনায় প্রাণ গেল ১০ জনের

‘খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্যের আরো অবনতি’

৪ খুঁটির মূল্য দেড় লক্ষাধিক টাকা

নজরদারিতে আওয়ামী লীগের অনেক নেতা

যুবলীগ কইরা মাতব্বরি করবেন ওই দিন শেষ

ভুটানের জালে তিন গোল বাংলাদেশের

সিলেট চেম্বার নির্বাচন নিয়ে মর্যাদার লড়াই