সমাপনী পরীক্ষা বাতিলের দাবিতে ফুঁসে উঠছেন অভিভাবকরা

শিক্ষাঙ্গন

স্টাফ রিপোর্টার | ১৪ জুন ২০১৬, মঙ্গলবার | সর্বশেষ আপডেট: ১০:০৫
অষ্টম শ্রেণিকে প্রাথমিকের স্তর নির্ধারণ করে ৫ম শ্রেণি শেষে নয় বরং অষ্টম শ্রেণি  শেষে একটি সমাপনী পরীক্ষা নেয়ার নীতিগত সিদ্ধান্ত নিয়েছে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়। এই সিদ্ধান্তকে ইতিবাচক মনে করলেও পুরোপুরিভাবে স্বাগত জানাচ্ছেন না অভিভাবকরা। যদিও কবে থেকে এই সিদ্ধান্তটি কার্যকর করা হবে মন্ত্রিসভার  বৈঠক থেকে এখনও এ বিষয়ে চূড়ান্তভাবে জানানো হয়নি। কিন্তু চলতি বছর থেকেই সমাপনী পরীক্ষাটি বাতিলের দাবিতে রাজধানীর বিভিন্ন স্কুলে স্কুলে অভিভাবকেরা গত এক সপ্তাহের বেশি সময় ধরে মানববন্ধন, বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছেন। তারা এ ব্যাপারে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করছেন। জানা যায়, জাতীয় শিক্ষানীতি-২০১০ অনুযায়ী ৫ম ও অষ্টম শ্রেণি শেষে সমাপনী পরীক্ষা নেয়ার কথা না থাকলেও ২০০৯ সাল থেকে পরীক্ষা দুটি নেয়া হচ্ছে।
এই পরীক্ষা দুটি চালুর পর থেকেই অভিভাবক ও শিক্ষা সচেতন ব্যক্তিদের সমালোচনার মুখে  ওঠায় গত ১৮ই  মে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের এক সভায় ৫ম শ্রেণি শেষে সমাপনী পরীক্ষা বাতিল করে এবং শুধুমাত্র অষ্টম শ্রেণি শেষে একটি সমাপনী পরীক্ষা হবে বলে সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। এই পরীক্ষার নাম প্রাথমিক স্কুল সার্টিফিকেট (পিএসসি) হবে বলেও নীতিগত সিদ্ধান্ত হয়। অভিভাবকরা মন্ত্রণালয়ের এমন সিদ্ধান্তকে সাধুবাদ জানালেও চলতি বছর থেকেই সমাপনী পরীক্ষা বাতিলের দাবি জানাচ্ছেন। তারা বলছেন, যদি আগামী বছর থেকে ৫ম শ্রেণির সমাপনী পরীক্ষা বাতিল হয়, তাহলে এ বছর যারা পরীক্ষায় বসবে তারা কি আবার অষ্টম শ্রেণিতেও সমাপনী পরীক্ষায় বসবে? একটি অপ্রয়োজনীয় সনদের জন্য দুটি পরীক্ষা দিতে হবে  কেন? অভিভাবক ঐক্য  ফোরামের উদ্যোগে ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজ, মতিঝিল আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজ, উইলস লিটল ফ্লাওয়ার স্কুল অ্যান্ড কলেজ, মনিপুর উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজ, উদয়ন উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়সহ রাজধানীর বেশিরভাগ স্কুলের অভিভাবকরা আন্দোলনে নেমেছেন। প্রতিদিনই অভিভাবকরা রাজধানীর বিভিন্ন স্কুলের সামনে মানববন্ধন ও সমাবেশ পালন করছেন। গত ৬ই জুন ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের সামনে, গত বুধবার ও বৃহস্পতিবার মতিঝিল আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজের সামনে, গত শনিবার কাকরাইলের উইলস লিটল ফ্লাওয়ার স্কুল অ্যান্ড কলেজের সামনে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেন অভিভাবকেরা। এদিকে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচিব হুমায়ুন খালিদ বলেন, আগামী বছর  থেকেই যে সমাপনী পরীক্ষা বাতিল করা হয়েছে, সেটাও একদম সঠিক নয়। আমরা অষ্টম  শ্রেণিকে প্রাথমিকের স্তর নির্ধারণ করেছি। কেবল একটি অর্থাৎ অষ্টম শ্রেণি শেষেই একটি সমাপনী পরীক্ষা হবে, আপাতত এই সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত। কিন্তু কবে থেকে ৫ম শ্রেণির সমাপনী পরীক্ষাটি বাতিল হচ্ছে, এ ব্যাপারে এখনও চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হয়নি। মন্ত্রিসভার বৈঠক থেকে এ বিষয়ে শিগগিরই সিদ্ধান্ত হবে বলে জানান তিনি।

এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

Mujahid

২০১৬-০৬-১৯ ২০:০৪:৪৪

Not only coaching center; I think primary school teacher also don't want to stop primary somaponi exam.cause they also get benefit fromexam

bb

২০১৬-০৬-১৪ ০১:২৩:৩৩

কোচিং সেন্টারগুলোর বানিজ্য তাহলে বন্ধ হয়ে যাবে যে। সেই জন্য এই তালাবাহানা। দেখা যাবে শেষ মুহুর্তে এই সিদ্ধান্ত দেওয়া হচ্ছে যে প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষা বাতিল করা হয়েছে। ততক্ষণে কোচিং সেন্টার কর্তৃক অভিভাবকদের পকেট কাটা সারা। আর কোচিং সেন্টারগুলো কারা চালায় কে তাদের পৃষ্ঠপোষক সেটা তো কারো অজনা নয়।

আপনার মতামত দিন

অভিযোগের পাহাড়, অসহায় ইউজিসি

প্রত্যাবাসন শুরু হচ্ছে না আজ

মৈত্রী এক্সপ্রেসে শ্লীলতাহানির শিকার বাংলাদেশি নারী

‘২০৬ নম্বর কক্ষে আছি, আমরা আত্মহত্যা করছি’

ট্রেনে কাটা পড়ে দুই পা হারালেন ঢাবি ছাত্র

পুলে যাচ্ছে সেই সব বিলাসবহুল গাড়ি

নীলক্ষেত মোড়ে ব্যবসায়ীদের বিক্ষোভ, এমপির আশ্বাসে স্থগিত

আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সফর সফল করতে নির্দেশনা

নেতাকর্মীরা জেলে থাকলে নির্বাচন হবে না: ফখরুল

তিন দিনের ধর্মঘটে এমপিওভুক্ত শিক্ষকরা

ইডিয়ট বললেন মারডক

সহায়ক সরকারের রূপরেখা প্রণয়নের কাজ শেষ পর্যায়ে

২৩শে ফেব্রুয়ারির মধ্যে প্রেসিডেন্ট নির্বাচন

বাসায় ফিরছেন মেয়র আইভী

‘আমাকে ইমোশনাল ব্ল্যাকমেইল করে’

জনগণ রাস্তায় নেমে ভোটাধিকার আদায় করবে: মোশাররফ