তালাকের নোটিশ পেয়ে স্বামীর দুধগোসল, ভূরিভোজ

অনলাইন

মধুপুর (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি | ১৬ জুলাই ২০১৯, মঙ্গলবার, ১১:২১
টাঙ্গাইলের মধুপুরে স্ত্রীর তালাকের নোটিশ পেয়ে খুশিতে দুধ দিয়ে গোসল করলেন এক স্বামী। গত সোমবার সন্ধ্যায় উপজেলার বেরিবাইদ ইউনিয়নের জাঙ্গালিয়া বাদলা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। শুধু গোসল নয়, আনন্দে দুই শতাধিক লোককে বাড়িতে নিমন্ত্রণ করে ভূরিভোজও করিয়েছেন। উপজেলার জাঙ্গালিয়া গ্রামের মৃত নয়ন আলীর ছেলে আলমকে (১৮) একই গ্রামের মো. আনোয়ার হোসেনের মেয়ে রিনা আক্তার (১৬) তালাকের নোটিশ পাঠালে তিনি এ কাণ্ড করেন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে দুধ দিয়ে গোসল করার ছবিটি ভাইরাল হলে পুরো উপজেলায় তোলপাড় শুরু হয়।

ছেলের দুধ দিয়ে গোসল করার খবর শুনে মেয়ের বাবা আনোয়ার ড্রাইভার আদালতে মানহানি মামলা করতে চেয়েছিলেন। কিন্তু স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানের পরামর্শে পরিষদের গ্রাম আদালতের মাধ্যমে বিষয়টির সুরাহা করা হচ্ছে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, তিনমাস আগে উপজেলার জাঙ্গালিয়া গ্রামের মৃত নয়ন আলীর ছেলে আলম (১৮) একই গ্রামের মো. আনোয়ার হোসেনের মেয়ে রিনা আক্তারকে (১৬) ভালোবেসে বিয়ে করেন। ছেলে-মেয়ের চাপেই বাবা-মা এ বাল্য বিয়েটি দিয়েছিলেন। কিন্তু বিয়ের একমাস পার হতে না হতেই নেশা করা নিয়ে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে মনোমালিন্য শুরু হয়। এ মনোমালিন্যের একপর্যায়ে স্বামী আলমকে তালাক দেন স্ত্রী রিনা।
 
মেয়ের বাবা আনোয়ার ড্রাইভার জানান, ছেলে কামাই রোজগার তো করেই না, উল্টো নেশা করে মাতলামি করে। মেয়ে তার নেশাখোর স্বামীর সংসার করবে না বলে তালাক দিয়েছে।

স্থানীয়রা জানান, এক সময় কোনো শুভ খবরে দুধ ঢেলে, আপনজনকে আশীর্বাদ করা ছিল পাহাড়ি গারো সমাজের প্রচলিত নিয়ম। ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠি কোচরা নতুন বধূকে বরণে দুধে স্নান করাতেন। বিচ্ছেদ হওয়া স্বামী-স্ত্রীর সম্পর্ক পুনঃএকত্রীকরণ হলে দুধ ঢেলে আশীর্বাদের রেওয়াজ এখনো রয়েছে। যাতে সারাজীবন টিকে থাকে সেই সম্পর্ক। কিন্তু তালাকের নোটিশ পেয়ে উচ্ছ্বসিত স্বামী খুশিতে দুধে গোসল করেন- এমন ঘটনা সত্যিই বিরল। এ ধরনের কর্মকাণ্ডে আলোচনা-সমালোচনার ঝড় বইছে।

বেরিবাইদ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মো. জুলহাস উদ্দিন ঘটনার সত্যতা স্বীকার জানান, বিয়েটি ছিল প্রেমঘটিত বাল্যবিয়ে। তালাক দেয়া স্ত্রীর অধিকার, তাই বলে দুধ দিয়ে গোসল করে আনন্দ প্রকাশ করা ঠিক নয়।



এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।

সুলতান মাহমুদ

২০১৯-০৭-১৬ ০৯:১৮:১২

নিজের দোষ ঢাকতে এ কাহিণী।

Mohammed Ali

২০১৯-০৭-১৬ ০৫:১৯:০৮

আলমকে জুতাপেটা দেওয়া দরকার। আমি যদি ঐ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান হটতাম , তাহলে এই রায় দিতাম।

Dipu

২০১৯-০৭-১৬ ১৪:৩৩:১৯

SETA TAR BYAKTIGOTO ICCHA.

Jashim uddin

২০১৯-০৭-১৬ ০০:৫২:৫৯

কি আর কমু। আমরাতো ডিজিটাল।

আপনার মতামত দিন

রাঙ্গামাটিতে সন্ত্রাসীদের গুলিতে সেনাসদস্য নিহত

ঈদে সড়কেই প্রাণ গেল ২২৪ জনের

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন আদৌ শুরু হচ্ছে কি?

কুমিল্লায় সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ৮

এখনো উচ্চ ঝুঁকি ২৪ ঘণ্টায় ১৭০৬ রোগী ভর্তি

পার্বত্য চট্টগ্রাম ভারতের অবিচ্ছেদ্য অংশ

ডেঙ্গুর প্রজননস্থলে কতটা যেতে পারছেন মশক নিধন কর্মীরা?

বৈঠকের পর চামড়া বিক্রিতে সম্মত আড়তদাররা

জনগণকে সতর্ক পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন থাকার পরামর্শ

ছিনতাইকারীর হাতে খুন হন কলেজছাত্র রাব্বী

শিক্ষিকাকে গণধর্ষণের পর হত্যা

শহিদুল আলমের মামলা স্থগিতই থাকবে

ডেঙ্গুর ভয়ে স্কুলে যাওয়া বন্ধ তবুও...

রক্ত পরীক্ষার রিপোর্ট নিয়ে ঢামেকে সংঘর্ষ, আহত ২৫

টার্গেট রাজনৈতিক সম্পর্ক দৃঢ়করণ

ইউজিসি প্রফেসর হলেন ডা. এবিএম আব্দুল্লাহ